বাংলাদেশে প্রথম এটিএম মেশিন তৈরি করতে যাচ্ছে টেকনো

প্রকাশিত: সেপ্টেম্বর ৩০, ২০২১, ০২:৪৯ দুপুর
আপডেট: সেপ্টেম্বর ৩০, ২০২১, ০২:৪৯ দুপুর
আমাদেরকে ফলো করুন

বাংলাদেশে প্রথম অটোমোটেড টেলার মেশিন (এটিএম) তৈরি করতে যাচ্ছে টেকনো মিডিয়া লিমিটেড। আর কোম্পাটিতে নতুন করে কর্মসংস্থানের সৃষ্টি হবে ২৫০ জন শিক্ষিত তরুণের। কোম্পানিটি দেশে নিজস্ব কারখানায় দুই ধরণের প্রযুক্তি সম্পন্ন মেশিন তৈরি করবে। একটি হলো এটিএম মেশিন আরেকটি হলো ক্যাশ রিসাইকেলার মেশিন (সিআরএম)। এজন্য সরকার বঙ্গবন্ধু হাইটেক পার্কে কোম্পানিটিকে এক একর জায়গা বরাদ্দ দিয়েছে।
বৃহস্পতিবার (৩০ সেপ্টেম্বর)  দুপুরে হাইটেক পার্কে জায়গা বরাদ্দের দলিল হস্তান্তর করেন পরিকল্পনা মন্ত্রী এমএ মান্নান। উপস্থিত ছিলেন তথ্য ও প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জোনায়েদ আহমেদ পলক। টেকনো মিডিয়া লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ড. যশোদা জীবন দেবনাথ, সিআইপি দলিল গ্রহন করেন।
তিনি বলেন, শুরুতে আমরা আড়াই মিলিয়ন ডলার দিয়ে কোম্পানি তৈরি করা হয়েছে। পর্যায়ক্রমে এই বিনিয়োগ আরও বাড়বে। আমরা প্রথম বাংলাদেশে এটিএম মেশিন তৈরি করতে যাচ্ছি। এখাতে দেশে অন্তত দুইশত কোটি টাকা বাঁচবে। এই পরিমাণ টাকার এটিএম মেশিন বিদেশ থেকে আমদানি করা হতো। এই বিপুল পরিমাণ টাকা বাঁচার কারনে অনেক কর্মসংস্থানেরও সুযোগ হবে।
পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান বলেন, একটা আধুনিক সমাজ গড়ে ওঠেছে আধুনিক বিজ্ঞান প্রযুুক্তির মাধ্যমে আমরা আমাদের গার্মেন্ট নিয়ে গর্ব করি। সেখানে আমাদের সস্তা শ্রম ছিলো। কিন্তুু এখানে সস্তা শ্রম চলবে না সেক্ষেত্রে আমরা কাজ করে যিচ্ছি। প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বে কাজ করছি।
আপনাদের ফ্যাক্টরিতে আরেক পণ্য উৎপাদন হচ্ছে আমরা মান নিয়ে সচেতন থাকবেন। আমাদের কোয়ালিটির ব্যাপারে সচেতন থাকতে হবে। এখানে যারা আজ চুক্তিবদ্ধ হলেন সকলকে আমাদের অভিনন্দন। বেসরকারকারি সেক্টরকে নিয়ে আগাতে হবে। আমাদের বিনিয়োগকরারীদের নিরাপত্তা দিতে হবে। তিনি আরও বলেন, আমাদের উন্নত রাষ্ট্রের চেয়ে সভ্য রাষ্ট্রের প্রয়োজন।
জুনাইদ আহমেদ পলক বলেন, আমাদের জাতীয় জীবনে ২০২১ সাল খুব গুরুত্বপূর্ণ। এই সালে ২০২১ সালে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর সফল বাস্তবায়ন করেছি আমরা। আমরা মহামারির সময় এই ২০২১ সালে যেভাবে অর্থনীতির চাকা সচল রেখেছি তার কর্তৃত্ব মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর। এই ডিজিটাল বাংলাদেশের স¦প্ন দেখেছিলেন জাতির জনক। তবে তিনি তার স্বপ্নপূরণ করতে পারেনি। তবে তার স¦প্ন পূরণ করছেন প্রধানমন্ত্রী। তিনি কাজ করছেন নিরলসভাবে। তিনি আরো বলেন, দেশেন উন্নয়ন কাজ থেমে ছিলো না।  একনেকে একের পর এক প্রকল্প পাস হয়েছে। আজকে দেশের এতো হাইটেক তা প্রধানমন্ত্রী না থাকলে হতো না। ১৯৯৬ সালে বিএনপির কারণে আমরা স্যাটেলাইট ক্যাবলে যুক্ত হতে পারিনি। পরবর্তীতে আমরা তাতে যুক্ত হয়েছি। আগে দেশে এক ফোন কোম্পানী ছিলো এখন সব কোম্পনি উন্মুক্ত আছে। একটি সঠিক সরকার একটি সিদ্ধান্ত দেশকে যে কতটা এগিয়ে নিতে যেতে পারে তার অন্যতম উদাহরণ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।  
চুক্তির আওতায় আগামী ৪০ বছরের জন্য বঙ্গবন্ধু হাই-টেক সিটিতে ওয়ালটন হাই-টেক ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেড, টেকনোমিডিয়া লিমিটেড, ড্যাফোডিল কম্পিউটারস লিমিটেড, সেলট্রোন ইলেক্ট্রো ম্যানুফ্যাকচারিং সার্ভিস লিমিটেড, উল্কাসেমি প্রাইভেট লিমিটেড, ম্যাকটেল লিমিটেড, চাইল্ড হেলথ রিসার্চ ফাউন্ডেশন এবং শেখ হাসিনা সফটওয়্যার টেকনোলজি পার্ক, যশোর রেডডট ডিজিটাল ও ফেলিসিটি বিগ ডাটা লিমিটেড নামীয় প্রতিষ্ঠানগুলো বিনিয়োগের সুযোগ পেলো।

 

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, দৈনিক করতোয়া এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়