মাউন্ট মঙ্গানুইতে ইতিহাস আর ক্রাইস্টচার্চে হতাশা

Online Desk Online Desk
প্রকাশিত: ০২:৫৭ পিএম, ১১ জানুয়ারি ২০২২

৫ জানুয়ারি ২০২২। টেস্ট ক্রিকেটে এত সুন্দর দিন আর দেখেনি বাংলাদেশ। যেদিন একদল তরুণে ভর করে টেস্টের বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন নিউজিল্যান্ডকে হারিয়েছে বাংলাদেশ। তাও আবার তাদেরই ঘরের মাঠে প্রথমবার হারানোর স্বাদ। নিঃসন্দেহে বাংলাদেশের জন্য একটি স্মরণীয় হয়ে থাকবে মাউন্ট মঙ্গানুইয়ের লে ওভাল।


মাউন্ট মঙ্গানুই নিউজিল্যান্ডকে হারিয়ে ইতিহাস গড়েছে বাংলাদেশ। সেই ইতিহাস গড়ার আনন্দের রেস না কাটতেই ক্রাইস্টচার্চে হতাশা দেখল বাংলাদেশ। সিরিজের দ্বিতীয় টেস্টে স্বাগতিকদের কাছে ইনিংস ও ১১৭ রানের ব্যবধানে হেরেছে বাংলাদেশ।

দ্বিতীয় টেস্টে নিউজিল্যান্ড জেতায় দুই ম্যাচের সিরিজ ১-১ ব্যবধানে ড্র হলো। ফলে সিরিজ ভাগাভাগি করে নিল দুদল। হ্যাগলি ওভালে জিতে নতুন ইতিহাসের জন্ম দিতে পারল না বাংলাদেশ। তবে নিউজিল্যান্ড সফরের আগে বাংলাদেশ ক্রিকেটে যেই বাজে সময় পার করেছে তাতে এই সিরিজ ড্র করতে পারাও বিশেষ কিছু।

ক্রাইস্টচার্চ টেস্টের প্রথম ইনিংসে ব্যাটে-বলে দুঃস্বপ্নের মতো কেটেছে বাংলাদেশের। ব্যাটিং ব্যর্থতায় পড়তে হয় ফলোঅনে।  ফলোঅনে ব্যাট করতে নেমেই মুগ্ধতা ছড়িয়েছেন লিটন দাস। তুলে নিয়েছেন ক্যারিয়ারের দ্বিতীয় টেস্ট সেঞ্চুরি ও দেশের বাইরে প্রথম সেঞ্চুরি। তবে সেঞ্চুরি করেও দলকে বাঁচাতে পারেননি। বাকিদের ব্যর্থতার দিনে লিটনের একার পক্ষে নিউজিল্যান্ডের রানের পাহাড় টপকানো সম্ভব হয়নি। ডানহাতি ব্যাটারের সেঞ্চুরি ম্লান করে তিন দিনেই বাংলাদেশকে ইনিংস ব্যবধানে হারিয়ে দিল নিউজিল্যান্ড।

ফলোঅনে পড়ে দ্বিতীয় ইনিংসে ব্যাট করতে নেমে ২৭৮ রানে থেমেছে বাংলাদেশ। দলের হয়ে সর্বোচ্চ ১০২ রান করেছেন সেঞ্চুরিয়ান লিটন দাস। ১৮৯ মিনিট ব্যাট করে ১১৪ বল মোকাবিলা করেছেন তিনি। মেরেছেন ১২টি বাউন্ডারি ও একটি ছক্কা।

তবে সেঞ্চুরি করেও ইনিংস ব্যবধানে হার এড়াতে পারেননি লিটন। দিনের শেষ সেশনের কিছু সময় বাকি থাকতেই বাংলাদেশের সবগুলো উইকেট তুলে নিয়ে জয়ের হাসি হাসে টম ল্যাথামের দল।
যদিও দ্বিতীয় ইনিংসে বাংলাদেশের শুরুটা বেশ সাবধানীই ছিল। হ্যাগলি ওভালে আজ প্রথম সেশনে বাংলাদেশ ২৮ ওভারে ২ উইকেটে ৭৪ রান সংগ্রহ করে। কিন্তু নিল ওয়াগনার ও কাইল জেমিসন মিলে পরের দুই সেশনে বাংলাদেশের ব্যাটিং ছন্দ এলোমেলো করে দেন। স্কোরবোর্ডে ১২৮ রান তুলতে বাংলাদেশের ৫ টপ অর্ডারকে তুলে নেন তাঁরা। তবে ৫ উইকেট হারানোর চাপ সামলে বাংলাদেশকে দারুণ ইনিংস উপহার দেন লিটন।

দৃষ্টিনন্দন ব্যাটিংয়ে তুলে নেন ক্যারিয়ারের দ্বিতীয় ও দেশের বাইরে প্রথম টেস্ট সেঞ্চুরি। তাঁর সেঞ্চুরিতেই ইনিংস ব্যবধান হার এড়ানোর কিছুটা স্বপ্ন দেখে বাংলাদেশ। কিন্তু লিটন ফিরলে সেই স্বপ্ন দ্রুতই শেষ হয়ে যায়। তিনি ফেরার কিছুক্ষণ পরই বাংলাদেশের সবগুলো উইকেট তুলে নিয়ে জয়ের উচ্ছ্বাসে ভাসে নিউজিল্যান্ড।

নিউজিল্যান্ডের হয়ে বল হাতে ৮২ রান দিয়ে ৪ উইকেট নেন জেমিসন। ৭৭ রান খরচায় তিন উইকেট নেন ওয়াগনার।

এর আগে গতকাল সোমবার প্রথম ইনিংসে ব্যাট করতে নেমে মাত্র ১২৬ রানে অলআউট হয়েছে বাংলাদেশ। ৩৯৫ রানে এগিয়ে থেকে বাংলাদেশকে দ্বিতীয় ইনিংসে ফলোঅনে ব্যাট করতে পাঠায় কিউইরা।

তার আগে সিরিজের দ্বিতীয় টেস্টের প্রথম ইনিংসে ৫২১ রান তুলেছে নিউজিল্যান্ড। ডাবল সেঞ্চুরি করা ল্যাথাম খেলেছেন দলের হয়ে সর্বোচ্চ ২৫২ রানের ইনিংস। আরেক সেঞ্চুরিয়ান কনওয়ে খেলেছেন ১০৯ রানের ইনিংস