সুনামগঞ্জে বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত ৭ উপজেলার ২৫ সড়ক

Staff Reporter Staff Reporter
প্রকাশিত: ০৮:৪৩ পিএম, ১৮ জুলাই ২০২০

সিলেট প্রতিনিধি : অতিবৃষ্টি ও পাহাড়ি ঢলের পানিতে সদর, ছাতক, ধর্মপাশা, দোয়ারাবাজার, তাহিরপুর, বিশ্বম্ভরপুর, জামালগঞ্জসহ সাত উপজেলার ২৫টি সড়ক ব্যাপকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। এক সপ্তাহের ব্যবধানে দু’বার বন্যার কারণে এসব এলাকার ৬০০ কিলোমিটার সড়ক ভেঙে পড়েছে। অর্ধশতাধিক সেতু ও কালর্ভাটের সংযোগ সড়ক বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে। জেলার ২২টি সড়কের বিভিন্ন অংশ ভেঙে বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে। ফলে জেলা সদর ও অন্যান্য এলাকায় যাতায়াতকারী হাজার হাজার মানুষ দুর্ভোগে পড়েছেন। সুনামগঞ্জে ছাতক সড়কের কাটাখালী এলাকায় প্রথম দফার বন্যায় ভাঙন দেখা দেয়। পরে দ্বিতীয় দফা বন্যার পানি প্রবল তোড়ে সড়কের ভাঙা অংশ দিয়ে পানি লোকালয়ে প্রবেশ করছে। ঢলের পানির চাপে ব্যাপক আকারে সড়কে ভেঙে গেছে।

স্থানীয় সরকার ও প্রকৌশল অধিদফতর জানায়, ৩০টি সড়ক বন্যায় তিগ্রস্ত হয়েছে। এছাড়া ৩০টি গ্রাম প্রতিরক্ষা দেয়াল ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। জেলার সড়ক অবকাঠামোতে সাড়ে ৩০০ কোটি টাকার ওপরে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।দুর্গতরা জানান, সড়কে ঢলের পানি যাওয়ায় ও বিভিন্ন অংশ ভেঙে যাওয়ায় চলাচলে মারাত্মক দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। উজানের ঢলের পানি কাটাখালী সড়কে ভাঙা অংশ দিয়ে পানি প্রবেশ করে দুই ইউনিয়নের ১৫টি গ্রামের মানুষ ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছেন।স্থানীয় সরকার ও প্রকৌশল অধিদফতরের নির্বাহী প্রকৌশলী মাহাবুব আলম বলেন, পরপর দুই দফা বন্যায় জেলার সড়ক অবকাঠামোর ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে।

 পানি নামার সঙ্গে সঙ্গে দ্বিতীয় পর্যায়ের বন্যার ক্ষতচিহ্ন ব্যাপক আকারে দেখা দিয়েছে। প্রথম পর্যায়ের বন্যায় ৬০০ কিলোমিটারের বেশি সড়ক ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। দ্বিতীয় পর্যায়ে তারা আরও কয়েকশো কিলোমিটার বাড়তে পারে। অর্ধশতাধিক সেতু ও কালর্ভাটের সংযোগ সড়ক বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে। জেলার ২২ সড়কের বিভিন্ন অংশ ভেঙে বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে। ৩০টি ভিলেজ প্রটেকশন ওয়াল ভেঙে গেছে। টাকার অংকে ক্ষয়তির পরিমাণ গতকাল পর্যন্ত সাড়ে তিনশ’ কোটি টাকা। তবে পানি সম্পূর্ণ নেমে গেলে তির পরিমাণ আরও বাড়তে পারে। ক্ষয়তির বিষয়টি ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জানানো হয়েছে পানি নেমে গেলে সংস্কার কার্যক্রম শুরু করা হবে।প্রশাসনের বন্যা নিয়ন্ত্রণক সূত্রে জানা যায়, জেলার ৮৪ ইউনিয়ন ও ৪ পৌরসভার ৩৩৮টি আশ্রয়কেন্দ্রে ৩ হাজার ১০৩টি পরিবারের ১২ হাজার ৬৭ জন আশ্রয় নিয়েছেন। জেলায় ১ লাখ ৮ হাজার ২২৯টি পরিবার বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। ক্ষতিগ্রস্তদের মধ্যে ৮৬৫ মেট্রিকটন চাল, ৫১ লাখ ৭০ হাজার টাকা, ২ হাজার ৪০০ প্যাকেট শুকনো খাবার বিতরণ করা হয়েছে।