ফুলবাড়িয়ায় পিডিবির বিদ্যুৎ উপকেন্দ্র স্থাপনে পাল্টে যাবে গ্রামীণ চিত্র

Staff Reporter Staff Reporter
প্রকাশিত: ০৮:৪১ পিএম, ২৪ জুন ২০২০

 ফুলবাড়িয়া (ময়মনসিংহ) প্রতিনিধি :ময়মনসিংহের ফুলবাড়িয়ায় গ্রাহক পর্যায়ে নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ বিতরণের লক্ষ্যে বাংলাদেশ বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ড ৩৩/১১ কেভি বিদ্যুৎ উপকেন্দ্র নির্মাণ করতে যাচ্ছে। প্রায় ২শ কোটি টাকা ব্যয় নির্ধারণ করে গৃহীত এ প্রকল্প বাস্তবায়িত হলে ফুলবাড়িয়া এলাকায় দীর্ঘদিনের লো ভোল্টেজ সমস্যা, লোডশেডিং, সামান্য ঝড়বৃষ্টিতে সংযোগ বিচ্ছিন্নসহ বিভিন্ন কারণে নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ পেতে প্রান্তিক পর্যায়ের গ্রাহকদের যে ভোগান্তি চলে আসছে তা লাঘব হবে বলে মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা। প্রকল্পটি দ্রুত বাস্তবায়নের দাবি জানিয়েছেন স্থানীয়রা।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, ইতোমধ্যে প্রকল্পের জন্য জমি অধিগ্রহণ কার্যক্রম প্রায় শেষের দিকে। টেন্ডারের মাধ্যমে বাস্তবায়নকারী ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানও নিয়োগ দেওয়া হয়েছে। এখন কাজ শুরুর জন্য ওয়ার্ক অর্ডারের অপেক্ষায় রয়েছে। ২শ কোটি টাকার উন্নয়নে বিদ্যুৎ বিভাগের  বিতরণ ব্যবস্থা বদলে দিবে ফুলবাড়িয়ার চিত্র। তবে উপকেন্দ্রটি স্থাপনে কিছু অসাধু ব্যক্তি নিজেদের স্বার্থ উদ্ধারে প্রতিবন্ধীদের ব্যবহার করে এর বিরোধিতা করলেও জেলা প্রশাসকের তদন্তে ও শুনানি অন্তে আপত্তি নাকচ করে দেওয়া হয়েছে। যা স্থানীয় সংসদ সদস্য তাঁর ডিও লেটারে উল্লেখ করেছেন। ফলে স্থাপনাটি নির্মাণে আর কোন বাধা নেই।

একনেক কমিটি অনুমোদিত বাংলাদেশ বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ড কর্তৃক বাস্তবায়িত বিদ্যুৎ বিতরণ ব্যবস্থা উন্নয়ন প্রকল্প ময়মনসিংহ শীর্ষক প্রকল্পের আওতায় ফুলবাড়িয়া উপজেলায় ৩৩/১১ কেভি বিদ্যুৎ উপকেন্দ্র নির্মাণের জন্য ফুলবাড়ীয়া উপজেলার চকরাধাকানাই (ফুলবাড়িয়া-ময়মনসিংহ রোডের পাশে) মৌজার ৬৭৭৮ ১৯৭৬ খতিয়ানের ৪০১১ ৪০১০ ৪০০৬ এবং ৪০০৫ দাগের এক একর ভূমি অধিগ্রহণের প্রস্তাব অনুমোদিত হয়।

জেলা প্রশাসন থেকে বিধি মোতাবেক ভূমি অধিগ্রহণের জন্য এল.এ ১৩/২০১৮-২০১৯ কেইস চালু করা হয়। ভূমি বরাদ্দ কমিটির সভায় সরেজমিন সম্ভাব্যতা যাচাই শেষে প্রকল্প অনুমোদিত হয়। এরপর স্থানীয় মৃত আবদুল হাকিম সরকারের ছেলে মোঃ সেলিম মিয়া ওই জমি অধিগ্রহণে আপত্তি তুলে। অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক রাজস্ব এবং ইউএনও কর্তৃক যৌথ তদন্তের প্রেক্ষিতে আপত্তিটি মিথ্যা প্রমাণিত হওয়ায় জেলা প্রশাসক কর্তৃক তা বাতিল হয়ে যায়। জেলা প্রশাসন ফাইল ১৩/২০১৮-১৯ এল.এ কেইস অনুমোদনের জন্য বিভাগীয় কমিশনার বরাবর প্রেরণ করে। কিন্তু বিভাগীয় কমিশনার কার্যালয় হতে ০২-০৩-২০২০ তারিখের ০৫. ৪৫. ০০০০. ০১৪. ০০৩. ১৯. ১৯৮নং স্মারকে পুনরায় জেলা প্রশাসক ময়মনসিংহ কার্যালয়ে প্রতিবন্ধীদের আবেদনের আলোকে ব্যাখ্যা চেয়ে নথি প্রেরণ করে। অধিগ্রহণের জন্য প্রস্তাবিত ফুলবাড়িয়া উপজেলার চক রাধাকানাই মৌজার ৭৬৩, ১৪৭৮, ১৯৭৬ খতিয়ানের ৪০০৫, ৪০০৬ ৪০১০ এবং ৪০১১ দাগের একর ভূমির মালিক প্রতিবন্ধীদের জমি আপত্তিতে উল্লেখ করেছেন। প্রকৃতপক্ষে প্রস্তাবিত ভূমি প্রতিবন্ধীদের নয় এবং বিআরএস রেকর্ডেও তাদের নাম অন্তর্ভুক্ত হয়নি। প্রস্তাবিত ভূমিতে কোন ফসল হয়নি এবং উঁচু জায়গা। প্রতিবন্ধীদের নাম ব্যবহার করে সরকারি কার্যক্রমকে বাধাগ্রস্ত করার জন্য এলাকার কিছু স্বার্থন্বেষী লোক মিথ্যা অভিযোগ করেছেন। যা ইতিমধ্যে তদন্তে মিথ্যা প্রমাণিত হয়েছে।

একাধিক সচেতন বিদ্যুৎ গ্রাহক জানান, ময়মনসিংহ আকুয়া উপকেন্দ্র হতে ফুলবাড়িয়ার দূরত্ব ২৫ কিলোমিটার। এর ফলে ফুলবাড়িয়ায় ভোল্টেজ লো হয়ে যায়। এতে ফুলবাড়িয়ার প্রায় সাড়ে ১৪ হাজার গ্রাহকের সীমাহীন ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে।স্থানীয় হারুনুর রশিদ বলেন, আমাদের ফ্রিজ চলে না, ফ্যান ঠিক মতো ঘুরে না। আধুনিক যন্ত্রপাতি ব্যবহার করতে পারি না। শুধু লো ভোল্টেজের জন্য। অনেক দিন পর আমরা অবদা (পিডিবি)’র সাব স্টেশন পেতে যাচ্ছি। দ্রুত এর বাস্তবায়ন চাই।

মো: জামাল উদ্দিন বলেন, আমরা কোন জামেলার কথা শুনতে চাই না। আমরা চাই সমস্যার সমাধান। উন্নয়নশীল দেশে উন্নয়নের কোন বিকল্প নেই।
উপকেন্দ্রটি স্থাপনে জাতীয় সংসদ সদস্য আলহাজ মো: মোসলেম উদ্দিন এডভোকেট গত ১১ মার্চ একনেক কমিটির অনুমোদিত বাংলাদেশ বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ড কর্তৃক বাস্তবায়িত বিদ্যুৎ বিতরণ ব্যবস্থা উন্নয়ন প্রকল্প ময়মনসিংহ শীর্ষক প্রকল্পের আওতায় ফুলবাড়িয়া উপজেলায় ৩৩/১১ কেভি বিদ্যুৎ উপকেন্দ্র নির্মাণে উপজেলার চকরাধাকানাই মৌজায় ৩৩ কেভি বিদ্যুৎ কেন্দ্র নির্মাণের লক্ষ্যে এক একর ভূমি অধিগ্রহণের ২০১৮-১৯ কেইস বিভাগীয় কমিশনারকে জরুরি ভিত্তিতে সরকারের অগ্রাধিকার কার্যক্রম হিসেবে প্রস্তাবিত ভূমি অধিগ্রহণের প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য ডিও লেটারের মাধ্যমে অনুরোধ করেছেন। স্থানীয়রা সব যড়যন্ত্র উপেক্ষা করে জনস্বার্থে বৃহৎ প্রকল্পটি বাস্তবায়নের দাবি জানিয়েছেন।