বন্যার্তদের সহায়তায় নানা উদ্যোগ বিএনপির

ক্ষতিগ্রস্ত এলাকা পরিদর্শন ফখরুলের

প্রকাশিত: জুন ২৩, ২০২২, ০৮:৫৮ রাত
আপডেট: জুন ২৩, ২০২২, ০৯:০৩ রাত
আমাদেরকে ফলো করুন

রাজকুমার নন্দী : উজানের ঢল ও লাগাতার ভারী বর্ষণে সৃষ্ট ভয়াবহ বন্যা পরিস্থিতিতে দলের সাংগঠনিক কর্মকান্ডের চেয়ে বন্যার্তদের পাশে দাঁড়ানোকেই অগ্রাধিকার দিচ্ছে বিএনপি। সিলেট বিভাগসহ উত্তরাঞ্চলের বন্যাকবলিত এলাকায় বানভাসীদের সহায়তার জন্য নেওয়া হচ্ছে বিভিন্ন উদ্যোগ। পানিবন্দি মানুষদের উদ্ধার, ত্রাণ বিতরণ, চিকিৎসা ও ঔষধ, গৃহনির্মাণ ও কৃষকদের বীজতলা তৈরি করাসহ বিভিন্নভাবে বন্যার্তদের সহযোগিতা করবে দলটির হাইকমান্ড। বিভিন্ন স্থানে বন্যা পরিস্থিতি পর্যালোচনায় গত রোববার গুলশানে চেয়ারপারসনের কার্যালয়ে যৌথসভায় ত্রাণ বিতরণের সিদ্ধান্ত নেয় বিএনপি। ইতোমধ্যে সাংগঠনিক কর্মকান্ড স্থগিত রেখে দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য ইকবাল হাসান মাহমুদ টুকুকে আহ্বায়ক করে একটি জাতীয় ত্রাণ কমিটি গঠন করা হয়েছে। বন্যাদুর্গতদের সাহায্যের জন্য দলীয় নেতাকর্মীদের পাশাপাশি সাধারণ মানুষেরও সহায়তা নেবে বিএনপি। এছাড়া যুবদল, স্বেচ্ছাসেবক দল, মহিলা দল, ছাত্রদল ও কৃষক দলের উদ্যোগেও বানভাসীদের মাঝে পৃথকভাবে ত্রাণ সহায়তা প্রদানের সিদ্ধান্ত হয়েছে। পাশাপাশি ড্যাব ও জিয়াউর রহমান ফাউন্ডেশন রোগ বালাইয়ের চিকিৎসা সেবা ও ঔষধ বিতরণ এবং পানি বিশুদ্ধকরণ ট্যাবলেট বিতরণ করবে। 

এদিকে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর ও ইকবাল হাসান মাহমুদ টুকুসহ সিলেট জেলা ও মহানগরের সিনিয়র নেতৃবৃন্দ আজ বৃহস্পতিবার (২৩ জুন) কয়েকটি বন্যাকবলিত এলাকা পরিদর্শন করেছেন। এ সময় জৈন্তাপুর উপজেলার প্রত্যন্ত এলাকায় খাজার মোকাম উচ্চ বিদ্যালয় প্রাঙ্গণে ত্রাণ বিতরণ করেন বিএনপি মহাসচিব।

বিএনপি নেতারা জানান, এবারের বন্যা পরিস্থিতিকে তারা তিনভাগে ভাগ করেছেন। এখন যারা পানিবন্দি মানুষজন আছেন তাদেরকে উদ্ধার করে তাদের কাছে খাবার পৌঁছিয়ে দেয়া। বন্যার পানি নেমে গেলে মানুষজনের গৃহ নির্মাণ, তাদের খাবার ও ঔষধপত্র বিতরণ করবে দলটি। তলিয়ে যাওয়া কৃষি জমির পানি নেমে গেলে কৃষকরা যাতে চাষাবাদ করতে পারে সেজন্য কৃষকের বীজতলা তৈরি ও কৃষকদের মাঝে তা সরবরাহ করা হবে।

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ও জাতীয় ত্রাণ কমিটির আহ্বায়ক ইকবাল হাসান মাহমুদ টুকু বলেন, হঠাৎ সৃষ্ট বন্যা পরিস্থিতির বিষয়টিকে আমরা সর্বাধিক গুরুত্ব দিচ্ছি। সাংগঠনিক কর্মকা-ের চেয়ে এখন আমাদের একমাত্র অগ্রাধিকার বানভাসি মানুষের পাশে দাঁড়ানো এবং তাদের জন্য কাজ করা। ইতোমধ্যে সিলেট মহানগর, সুনামগঞ্জ পৌরসভা, ছাতকসহ বিভিন্ন এলাকায় আমাদের দলের নেতা-কর্মীরা রিলিফ অপারেশন শুরু করেছে। ১০ হাজারের বেশি বন্যার্ত মানুষের কাছে খাবার দেওয়া হয়েছে। বড় বড় নৌকা ভাড়া করে পানিবন্দি মানুষকে উদ্ধার ও নিরাপদ স্থানে নিয়ে আসার ব্যবস্থা করা হচ্ছে। এভাবে গণমানুষের দল হিসেবে বিএনপি মানুষের পাশে থেকে সকল বন্যার্তদের পাশে পৌঁছানোর চেষ্টা করবে বলে জানান তিনি। 

জাতীয়তাবাদী যুবদলের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল মোনায়েম মুন্না দৈনিক করতোয়াকে বলেন, বিএনপির হাইকমান্ডের নির্দেশে বন্যার্ত ১ হাজার পরিবারের জন্য স্ট্যান্ডার্ড প্যাকেট নিয়ে আমরা আগামীকাল শুক্রবার (২৪ জুন) সিলেটের বন্যাকবলিত এলাকায় যাচ্ছি। প্রতি প্যাকেটে চাল, ডাল, আলু, তেল, মুড়ি, চিড়া, সাবান, লবণ, খাবার স্যালাই, লাইটার, মোমবাতি, পানি বিশুদ্ধকরণ ট্যাবলেট থাকবে। প্রথম ধাপে আমরা ১ হাজার প্যাকেট খাদ্যসামগ্রী বিতরণ করব। সিলেট জেলা যুবদলের সদস্য সচিব মকসুদ আহমদ বলেন, জেলা যুবদল, বিএনপি এবং অন্য সংগঠনের নেতৃবৃন্দ বন্যার্ত মানুষের মাঝে ত্রাণসামগ্রী, শুকনা ও রান্না করা খাবার বিতরণ করছে। পরিস্থিতির উন্নতি না হওয়া পর্যন্ত এই কার্যক্রম অব্যাহত থাকবে বলে তিনি জানান। 

স্বেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি মোস্তাফিজুর রহমান ও সাধারণ সম্পাদক আব্দুল কাদির ভুঁইয়া জুয়েল বলেন, সিলেট বিভাগের বন্যাকবলিত এলাকায় শুরু থেকেই অসহায় মানুষের পাশে রয়েছে স্বেচ্ছাসেবক দল। সংগঠনের স্থানীয় নেতৃবৃন্দ প্রতিদিনই ত্রাণসামগ্রী ও খাদ্য বিতরণ করছেন। আগামী রোববার আমরা কেন্দ্রীয় নেতারা বন্যাকবলিত এলাকায় গিয়ে অন্ততপক্ষে ১৫শ’ পরিবারের মাঝে ত্রাণ ও খাদ্যসামগ্রী বিতরণ করব। 

এদিকে সিলেট বিভাগের বন্যার্তদের সহায়তার জন্য ৩টি কমিটি গঠন করেছে জাতীয়তাবাদী মহিলা দল। এগুলো হচ্ছে- সার্বিক ব্যবস্থাপনা কমিটি, মনিটরিং সেল ও ত্রাণ সেল। মহিলা দলের সকল জেলা শাখার (যে সকল জেলায় কমিটি হয়েছে) সভাপতি এবং সাধারণ সম্পাদকগণকে সিলেটসহ দেশের বিভিন্ন অঞ্চলের বানভাসী অসহায় মানুষকে সাহায্য-সহযোগিতার জন্য কেন্দ্র থেকে নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

 

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, দৈনিক করতোয়া এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়