মেয়াদোত্তীর্ণ আংশিক কমিটি দিয়েই চলছে ছাত্রদল

প্রকাশিত: ডিসেম্বর ৩১, ২০২১, ১০:১২ রাত
আপডেট: ডিসেম্বর ৩১, ২০২১, ১০:১২ রাত
আমাদেরকে ফলো করুন

# পূর্ণাঙ্গ না হওয়ায় হতাশ পদপ্রত্যাশীরা

# ৪৩তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী কাল

রাজকুমার নন্দী : জাতীয়তাবাদী ছাত্রদলের ৪৩তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী আগামীকাল শনিবার। বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা ও প্রয়াত রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমান উৎপাদনমুখী শিক্ষা ব্যবস্থা ও ছাত্রসমাজের অধিকার আদায়ের লক্ষ্যে ১৯৭৯ সালের ১ জানুয়ারি গঠন করেন এই ছাত্র সংগঠনটি। পরবর্তী সময়ে বিএনপির আন্দোলন-সংগ্রামের ভ্যানগার্ড হিসেবে পরিচিতি পায় দলের এই সহযোগী সংগঠনটি; বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ আন্দোলন-সংগ্রামে সম্মুখভাগে অংশ নিয়ে ব্যাপক প্রশংসাও কুড়িয়েছে। সর্বশেষ ২০১৪ সালের দশম সংসদ নির্বাচনের পূর্বাপরও বিএনপির আন্দোলনে রাজপথে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে ছাত্রদল। বর্তমানে মেয়াদোত্তীর্ণ আংশিক কমিটি দিয়ে চলছে এই সংগঠনটি।

দীর্ঘ ২৭ বছর পর ২০১৯ সালের ১৮ সেপ্টেম্বর ছাত্রদলের ষষ্ঠ কাউন্সিলে ফজলুর রহমান খোকন সভাপতি এবং ইকবাল হোসেন শ্যামল সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন। কাউন্সিলের তিন মাস পর ওই বছরের ডিসেম্বরে সংগঠনটির ৬০ সদস্যবিশিষ্ট আংশিক কমিটি ঘোষণা করা হয়। গত সেপ্টেম্বরে কমিটির মেয়াদ উত্তীর্ণ হয়েছে। দুই বছরের দীর্ঘ এই সময়ে দেশের জেলা ও তৃণমূল কমিটি পুনর্গঠনে মনোযোগ ছিল ছাত্রদলের। ১১টি সাংগঠনিক টিমের তত্ত্বাবধানে এই সময় সারাদেশে থানা পদমর্যাদার (থানা-পৌর-কলেজ) ১৭০০টি ইউনিটের মধ্যে ১৫৫০টির মতো শাখায় আহ্বায়ক কমিটি গঠিত হয়েছে। গত অক্টোবর মাসের শেষদিকে এসব সাংগঠনিক টিম বিলুপ্ত করে নতুনভাবে তৃণমূল পুনর্গঠনে ১ ডিসেম্বর জেলাভিত্তিক ৪০টি সাংগঠনিক টিম গঠন করা হয়।

এদিকে মেয়াদোত্তীর্ণ হলেও ছাত্রদলের আংশিক কমিটি আর পূর্ণাঙ্গ হয়নি। ফলে পদপ্রত্যাশী নেতাকর্মীদের মাঝে হতাশা ও ক্ষোভের সঞ্চার হয়েছে। সম্প্রতি ছাত্রদলের কেন্দ্রীয় সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদককে ছাড়া অন্য কোনো নেতাকেই ঢাকা বিশ^বিদ্যালয়ের মধুর কেন্টিনে বসতে দেয়নি পদপ্রত্যাশী নেতাকর্মীরা, যা সংগঠনে ব্যাপক সমালোচনার জন্ম দেয়। জানা গেছে, আগামী ১৫ জানুয়ারির মধ্যে আংশিক কমিটি পূর্ণাঙ্গ করা হবে বলে পদপ্রত্যাশীদের আশ্বস্ত করেন ছাত্রদলের শীর্ষ নেতৃবৃন্দ। 

অন্যদিকে দীর্ঘদিন পর কাউন্সিলে ছাত্রদলের কমিটি হওয়ায় সেই ধারাবাহিকতা বজায় রেখে নির্ধারিত সময়ের মধ্যেই নতুন কমিটি গঠিত হবে বলে প্রত্যাশা ছিল সংগঠনটির অনেক সাবেক নেতার। কিন্তু বাস্তবে তা হয়নি। বর্তমান কমিটি ইতোমধ্যে মেয়াদোত্তীর্ণ হলেও পরবর্তী কমিটি কবে গঠিত হবে কিংবা কোন প্রক্রিয়ায় গঠিত হবে অথবা বয়সসীমা কত রাখা হবে- সে সম্পর্কে দায়িত্বশীল কোনো নেতাই কিছু বলতে পারছেন না। অনেকে আবার বলছেন, গণতন্ত্র পুনরুদ্ধারে এবং গুরুতর অসুস্থ খালেদা জিয়ার বিদেশে সুচিকিৎসার দাবিতে ইতোমধ্যে বিএনপির আন্দোলনের কর্মসূচি শুরু হয়ে গেছে- যা ক্রমান্বয়ে তীব্র হবে। তাই দ্রুত সময়ের মধ্যে কমিটি না হলে ছাত্রদলের নতুন কমিটির সম্ভাবনা ক্ষীণ। তাছাড়া ছাত্রদলের বর্তমান কমিটি মেয়াদোত্তীর্ণ হওয়া সত্ত্বেও সেই কমিটির নেতাদের সমন্বয়ে নতুনভাবে তৃণমূল পুনর্গঠনে জেলাভিত্তিক সাংগঠনিক টিম গঠন করা হয়েছে। এর মধ্য দিয়ে মনে হচ্ছে খোকন-শ্যামলের নেতৃত্বাধীন কমিটিই আগামী নির্বাচন পর্যন্ত বহাল রাখা হবে। তবে ছাত্রদলের সুপার-টু’র প্রত্যাশী নেতারা দ্রুত নতুন কমিটি চান।

জানতে চা্ইলে ছাত্রদলের সভাপতি ফজলুর রহমান খোকন ও সাধারণ সম্পাদক ইকবাল হোসেন শ্যামল দৈনিক করতোয়াকে বলেন, আমরা এক প্রতিকূল পরিবেশের মধ্য দিয়ে দায়িত্ব পালন করছি। এই সময়ের মধ্যেও তৃণমূলে ছাত্রদলকে শক্তিশালী করতে সর্বোচ্চ চেষ্টা করেছি। তৃণমূল পুনর্গঠনে ২০২০ সালের জানুয়ারিতে বিভাগভিত্তিক ১১টি সাংগঠনিক টিম গঠন করা হয়েছিল। এসব টিমের তত্ত্বাবধানে সারাদেশে সংগঠনকে পুরো ঢেলে সাজানোর কার্যক্রম অনেকটাই শেষ করা হয়েছে। বেশিরভাগ উপজেলায় কমিটি পুনর্গঠন করা হয়েছে। এবার ইউনিয়ন পর্যন্ত কমিটি পুনর্গঠনে জেলাভিত্তিক ৪০টি সাংগঠনিক টিম গঠন করা হয়েছে। আশা করি, নতুন বছরে নতুন উদ্যমে দলের আন্দোলন-সংগ্রামে সামনে থেকে নেতৃত্ব দেবে ছাত্রদল। 

কেন্দ্রীয় কমিটি প্রসঙ্গে তারা বলেন, আমাদের সব বিষয়ে সাংগঠনিক অভিভাবক তারেক রহমান অবগত। তিনি চাইলে যেকোনো সময় যেকোনো সিদ্ধান্ত নিতে পারেন। সংগঠনকে শক্তিশালী করার জন্য তিনি যে সিদ্ধান্ত নেবেন সেটাকেই আমরা স্বাগত জানাই। 

ছাত্রদলের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী প্রসঙ্গে সংগঠনটির সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক বলেন, দেশনেত্রী খালেদা জিয়ার স্থায়ী মুক্তি ও উন্নত চিকিৎসার জন্য তাকে বিদেশে পাঠানোর অনুমতি দিতে সরকারকে বাধ্য করা, মানুষের ভোটাধিকার ও গণতন্ত্র ফিরিয়ে আনাই আমাদের প্রতিষ্ঠবার্ষিকীর একমাত্র লক্ষ্য।

প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর কর্মসূচি : ৪৩তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উদযাপন উপলক্ষে ইতোমধ্যে ২ দিনের কর্মসূচি গ্রহণ করেছে ছাত্রদল। কর্মসূচির মধ্যে রয়েছে- শনিবার (১ জানুয়ারি) সকাল ৯টায় ছাত্রদলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়সহ দেশের সব জেলা, মহানগর ও বিশ্ববিদ্যালয় ইউনিট কার্যালয়ে দলীয় পতাকা উত্তোলন; সকাল ১০টায় প্রয়াত রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের কবরে শ্রদ্ধা নিবেদন; দুপুর ১২টায় মহানগর নাট্যমঞ্চে দিনব্যাপী ছাত্রসমাবেশ। এছাড়া রোববার (২ জানুয়ারি) প্রত্যেকটি জেলা, মহানগর ও বিশ্ববিদ্যালয় ইউনিটে ছাত্র সমাবেশ অনুষ্ঠিত হবে।


 

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, দৈনিক করতোয়া এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়