আন্দোলন সামনে রেখে ইউনিয়ন কমিটি পুনর্গঠনে মনোযোগ ছাত্রদলের

প্রকাশিত: ডিসেম্বর ০৩, ২০২১, ০৮:৪৫ রাত
আপডেট: ডিসেম্বর ০৩, ২০২১, ০৮:৪৫ রাত
আমাদেরকে ফলো করুন

# জেলাভিত্তিক ৪০টি সাংগঠনিক টিম গঠন
# কেন্দ্রীয় কমিটির আকার বাড়ছে শিগগিরই

রাজকুমার নন্দী : আগামী জাতীয় নির্বাচন ও আন্দোলন সামনে রেখে সংগঠনের তৃণমূলের (জেলা ও জেলার অধীনস্থ ইউনিট) কমিটি পুনর্গঠন, তৃণমূলে শৃঙ্খলা রক্ষা ও দলীয়-সাংগঠনিক কর্মসূচি সফল করতে কেন্দ্রীয় নেতাদের নেতৃত্বে এবার জেলাভিত্তিক ৪০টি সাংগঠনিক টিম গঠন করেছে জাতীয়তাবাদী ছাত্রদল। গত বুধবার রাতে নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে সংগঠনের বর্ধিত সভায় এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে বলে সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে। এ সভায় ছাত্রদলের সাংগঠনিক অভিভাবক বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান ভার্চুয়ালি যুক্ত ছিলেন। এর আগে তৃণমূলে ছাত্রদলের কমিটি পুনর্গঠন তথা সংগঠনকে আরও শক্তিশালী ও গতিশীল করার লক্ষ্যে ২০২০ সালের জানুয়ারিতে সাংগঠনিক বিভাগভিত্তিক ১১টি সাংগঠনিক টিম গঠন করেছিল সংগঠনটি। এসব টিমের তত্ত্বাবধানে সারাদেশে থানা পদমর্যাদার (থানা-পৌর-কলেজ) ১৭০০টি ইউনিটের মধ্যে ১৫৫০টির মতো ইউনিটে আহ্বায়ক কমিটি গঠিত হয়েছে। গত অক্টোবর মাসের শেষদিকে বিভাগভিত্তিক এসব সাংগঠনিক টিম বিলুপ্ত করা হয়। এবার তৃণমূল বিশেষ করে ইউনিয়ন, ওয়ার্ড ও জেলা কমিটি পুনর্গঠনে জেলাভিত্তিক সাংগঠনিক টিম গঠন করা হলো। 

জানা গেছে, জেলাভিত্তিক এসব টিমে ঢাকা মহানগর ছাড়া দেশের ৮০টি সাংগঠনিক জেলায় কেন্দ্রীয় নেতাদের দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। ছাত্রদলের সহ-সভাপতি পদের নেতাদের তিনটি, যুগ্ম-সম্পাদকদের দুটি এবং সহ-সাধারণ সম্পাদকদের একটি করে সাংগঠনিক জেলার দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। বর্ধিত সভায় ছাত্রদলের ফজলুর রহমান খোকন, ইকবাল হোসেন শ্যামল, কাজী রওনকুল ইসলাম শ্রাবণ, আমিনুর রহমান আমিন ও সাইফ মাহমুদ জুয়েলসহ ৬০ সদস্যের আংশিক কমিটির প্রায় সকলেই অংশ নেয়। 

রংপুর জেলা ও মহানগর এবং সৈয়দপুর সাংগঠনিক জেলায় মামুন খান; পঞ্চগড়, দিনাজপুর ও ঠাকুরগাঁও জেলায় মোক্তাদির হোসেন তরু; লালমনিরহাট ও কুড়িগ্রাম জেলায় আরিফুর রহমান আরিফ; গাইবান্ধা জেলায় মাহাবুব আলম মাহাবুব; নীলফামারী জেলায় তৌহিদুর রহমান আউয়াল; রাজশাহী জেলা ও মহানগর এবং নওগাঁ জেলায় পার্থদেব মন্ডল; সিরাজগঞ্জ ও পাবনা জেলায় তবিবুর রহমান সাগর; চাঁপাইনবাবগঞ্জ ও নাটোর জেলায় রিয়াদ মো. ইকবাল হোসেন; খুলনা জেলা ও মহানগর এবং নড়াইল জেলায় ওমর ফারুক কাওসার; চুয়াডাঙ্গা ও মেহেরপুর জেলায় তানজিল হাসান; সাতক্ষীরা ও যশোর জেলায় মিজানুর রহমান শরীফ; বাগেরহাট ও মাগুরা জেলায় আব্দুল্লাহ আল জুবায়ের; কুষ্টিয়া জেলায় মো. আলাউদ্দীন খান; ঝিনাইদহ জেলায় শাহদাত হোসেন; বরিশাল জেলা ও মহানগর এবং পটুয়াখালী জেলায় হাফিজুর রহমান হাফিজ; ঝালকাঠি ও পিরোজপুর জেলায় এবিএম মাহমুদ আলম সরদার; বরগুনা জেলায় কেএম সাখাওয়াত হোসেন; ভোলা জেলায় আকতারুজ্জামান আকতার; নারায়ণগঞ্জ জেলা ও মহানগর এবং মুন্সিগঞ্জ জেলায় মাজেদুল ইসলাম রুম্মন; গাজীপুর জেলা ও মহানগর এবং মৌলভীবাজার জেলায় মোস্তাফিজুর রহমান; নরসিংদী ও মানিকগঞ্জ জেলায় মহিন উদ্দিন রাজু; টাঙ্গাইল জেলায় রাশেদ ইকবাল খান; ঢাকা উত্তর জেলায় আবু আফসান মো. ইয়াহহিয়া; ঢাকা দক্ষিণ জেলায় সুলতানা জেসমিন জুঁই; ময়মনসিংহ উত্তর ও দক্ষিণ জেলা এবং মহানগরে কেএমএস মুসাব্বির শাফি; জামালপুর ও শেরপুর জেলায় করিম প্রধান রনি; নেত্রকোনা জেলায় মাইন উদ্দীন নিলয়; কিশোরগঞ্জ জেলায় ইছামন্তাজ ইজাজ; ফরিদপুর জেলা ও মহানগর এবং গোপালগঞ্জ জেলায় জাকিরুল ইসলাম জাকির; মাদারীপুর ও শরীয়তপুর জেলায় শাহ নেওয়াজ; রাজবাড়ী জেলায় জামিল হোসেন; সিলেট জেলা ও মহানগর এবং বগুড়া ও জয়পুরহাট জেলায় সাজিদ হাসান বাবু; হবিগঞ্জ ও সুনামগঞ্জ জেলায় মারুফ এলাহী রনি; কুমিল্লা উত্তর ও দক্ষিণ জেলা এবং মহানগরে মাহামুদুল হাসান বাপ্পী; চাঁদপুর ও ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলায় মাহাবুব মিয়া; চট্টগ্রাম উত্তর ও দক্ষিণ জেলা এবং মহানগরে আশরাফুল আলম ফকির লিংকন; নোয়াখালী, ফেনী ও লক্ষ্মীপুর জেলায় মিজানুর রহমান সজীব; খাগড়াছড়ি ও বান্দরবান জেলায় নিজাম উদ্দিন রিপন এবং কক্সবাজার ও রাঙ্গামাটি জেলায় শ্যামল মালুমকে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে।

ছাত্রদল সূত্রে জানা গেছে, জেলার সাথে সমন্বয় করে উপজেলা ও থানা কমিটি ইউনিয়ন এবং পৌর শাখা ওয়ার্ড কমিটি গঠন করবে। এসব ইউনিট কমিটি গঠনে এক নেতার এক পদ, অবিবাহিত ও ২০১০ সালের এসএসসিকে ক্রাইটেরিয়া হিসেবে ধরে সর্বনিম্ন ১১ সদস্যবিশিষ্ট আংশিক কমিটি গঠন করা হবে। টিমের দায়িত্বপ্রাপ্ত নেতারা কমিটি গঠন প্রক্রিয়া তদারকি করবেন। এছাড়া এসব টিমের তত্ত্বাবধানে সারাদেশে থানা পদমর্যাদার বাকি থাকা ৮০টির মতো ইউনিটে আহ্বায়ক কমিটিও গঠিত হবে। আর ওয়ার্ড ও ইউনিয়ন কমিটি গঠন শেষে সম্মেলনের মাধ্যমে জেলা কমিটি গঠিত হবে। এক বছর মেয়াদ হওয়ায় একাদশ সংসদ নির্বাচনের আগে গঠিত সব জেলা কমিটিই এখন মেয়াদোত্তীর্ণ। সারাদেশে ছাত্রদলের জেলা পদমর্যাদার ১৪২টির মতো সাংগঠনিক ইউনিট রয়েছে। 

দীর্ঘ ২৭ বছর পর ২০১৯ সালের ১৮ সেপ্টেম্বর ছাত্রদলের ষষ্ঠ কাউন্সিলে ফজলুর রহমান খোকন সভাপতি এবং ইকবাল হোসেন শ্যামল সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন। কাউন্সিলের তিন মাস পর ওই বছরের ডিসেম্বরে সংগঠনটির ৬০ সদস্যবিশিষ্ট আংশিক কমিটি ঘোষণা করা হয়। বর্তমানে মেয়াদোত্তীর্ণ ওই আংশিক কমিটি দিয়েই চলছে আন্দোলন-সংগ্রামে বিএনপির নিউক্লিয়াস হিসেবে খ্যাত ছাত্রদলের কার্যক্রম। এদিকে দ্রুত সময়ের মধ্যেই ছাত্রদলের কেন্দ্রীয় কমিটির আকার বৃদ্ধি করা হবে বলে জানা গেছে। 

জানতে চাইলে ছাত্রদলের সভাপতি ফজলুর রহমান খোকন ও সাধারণ সম্পাদক ইকবাল হোসেন শ্যামল দৈনিক করতোয়াকে বলেন, ভবিষ্যৎ আন্দোলন সামনে রেখে ছাত্রদলের তৃণমূল বিশেষ করে ইউনিয়ন কমিটি পুনর্গঠনে গুরুত্ব দেওয়া হয়েছে। এছাড়া সম্মেলনের মাধ্যমে জেলায়ও নতুন কমিটি গঠন করা হবে। এজন্য জেলাভিত্তিক ৪০টি সাংগঠনিক টিম গঠন করা হয়েছে। পুনর্গঠিত এসব টিমের তত্ত্বাবধানে দ্রুতই এই পুনর্গঠন প্রক্রিয়া সম্পন্ন হবে। 

স্বল্প সময়ের মধ্যেই কেন্দ্রীয় কমিটি ১৫১ সদস্যবিশিষ্ট হতে পারে বলে ইঙ্গিত দেন তারা।


 

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, দৈনিক করতোয়া এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়