রাণীশংকৈলে সমঝোতা করে চলতে হচ্ছে চোরদের সাথে

প্রকাশিত: জানুয়ারী ১৩, ২০২২, ০৮:১৭ রাত
আপডেট: জানুয়ারী ১৩, ২০২২, ০৮:১৭ রাত
আমাদেরকে ফলো করুন

রাণীশংকৈল (ঠাকুরগাঁও) প্রতিনিধি: ঠাকুরগাঁওয়ের রাণীশংকৈল উপজেলায় চোরদের সাথে মোটরসাইকেল ও গরুর মালিকদের সমঝোতা করে চলতে হচ্ছে। প্রশাসন কোন উপকারে আসছে না তাদের, এমনকি চুরির ঘটনা জিডিও নিচ্ছে না থানা পুলিশ।
খোঁজ নিয়ে জানা যায়, উপজেলার লেহেম্বা গ্রামে মঙ্গলবার রঞ্জনের ১টি আড়িয়া গরু সন্ধ্যায় চুরি হয়। অনন্তপুর গ্রামের সাদেক আলীর ২টি গাভী সম্প্রতি চুরি হয়। গরুর কোন খোঁজ না পাওয়ায় চোরের সাথে ৭ হাজার টাকা সমঝোতা করে ভান্ডারা গ্রাম থেকে গাভি ২টি উদ্ধার করে গরুর মালিক। ১১ জানুয়ারি কাতিহার ধর্মসভা থেকে ভাংবাড়ী গ্রামের অলিন চন্দ্রের ১টি ডিসকভার, ৮ জানুয়ারি বলিদ্বারা বাজার থেকে সলেমান আলীর ১টি হোন্ডা, প্রভাষক মনিরউজ্জামান মনির ডিসকভার ১৩৫সিসি নেকমরদ এলাকা থেকে চুরি হয়। পরে প্রভাষক মনিরউজ্জামান মনি মোটা অংকের টাকা দিয়ে ওই গাড়িটি ফেরত পায়। এভাবে এ উপজেলায় অর্ধশতাধিক মোটরসাইকেল চোরের সাথে সমঝোতা করে ফেরত পেয়েছে মোটরসাইকেল মালিকরা।
এদিকে দুদিনের ব্যবধানে ধর্মগড়, বাংলাগড়, কাতিহার, নেকমরদ, বলিদ্বারা এলাকায় ৫টি মোটরসাইকেল ও ২টি বাইসাইকেল চুরি হয়েছে। ২টি গরু ও ১টি মোটরসাইকেল সমঝোতার মাধ্যমে উদ্ধার হলেও বাকিগুলো উদ্ধারে সমঝোতার চেষ্টা চলছে। চুরি প্রসঙ্গে থানায় জিডি করতে গেলে থানা পুলিশ জিডি নেন না বলে জানিয়েছেন ভুক্তভোগীরা ।
এ ব্যাপারে থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা কাছে মুঠোফোনে জানতে চাওয়া হলে এসআই বদিউজ্জামান বলেন, আসলে চুরির বিষয়গুলো আমরা জানি না। আমাদের জানালে তবেই আমরা জানতে পারবো। চুরির বিষয়ে হয় অভিযোগ নতুবা মামলা নেওয়া হয়। আর কাগজপত্র হারিয়ে গেলে জিডি করা হয়।

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, দৈনিক করতোয়া এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়