রাজশাহী রেঞ্জে শ্রেষ্ঠ পুলিশ সুপার সুদীপ চক্রবর্ত্তী, ওসি সেলিম রেজা

প্রকাশিত: জানুয়ারী ১৮, ২০২২, ০৯:১৭ রাত
আপডেট: জানুয়ারী ১৮, ২০২২, ০৯:১৭ রাত
আমাদেরকে ফলো করুন

স্টাফ রিপোর্টার: রাজশাহী রেঞ্জে ৮টি জেলার মধ্যে অপরাধ দমনসহ আইন শৃংখলা রক্ষায় বিশেষ অবদানের জন্য শ্রেষ্ঠ পুলিশ সুপার নির্বাচিত হয়েছেন বগুড়ার এসপি সুদীপ কুমার চক্রবর্ত্তী, বিপিএম। সেইসাথে বগুড়ার আরও চার পুলিশ কর্মকর্তা শ্রেষ্ঠত্ব অর্জন করেছেন। তারা হলেন, বগুড়া সদর সার্কেলে সহকারি পুলিশ সুপার মো: তানভীর হাসান, বগুড়া সদর থানার ওসি মো: সেলিম রেজা, সদর থানার ইন্সপেক্টর (তদন্ত) মো: আবুল কালাম আজাদ ও একই থানার এ.এস.আই ডন কংকন বর্মণ। এ ছাড়া রাজশাহী রেঞ্জের ৮ জেলার মধ্যে শ্রেষ্ঠ জেলাও নির্বাচিত হয়েছে বগুড়া।
আজ মঙ্গলবার পুলিশ হেডকোয়ার্টার্স কর্তৃক প্রবর্তিত অভিন্ন মানদন্ডের আলোকে ডিসেম্বর মাসের পারফরম্যান্স বিবেচনায় সুদীপ কুমার চক্রবর্ত্তীকে শ্রেষ্ঠ পুলিশ সুপার নির্বাচিত করা হয়। মঙ্গলাবার বেলা ১১ টার দিকে রেঞ্জ ডিআইজি কার্যালয়, রাজশাহীর পদ্মা কনফারেন্স কক্ষে গত ডিসেম্বর’ ২১ মাসের অপরাধ পর্যলোচনা সভায় এই সাফল্যের স্বীকৃতিস্বরূপ পুলিশ সুপার সুদীপ কুমার চক্রবর্ত্তীকে সম্মাননা স্মারক ও সনদপত্র প্রদান করেন রাজশাহী রেঞ্জ ডিআইজি আব্দুল বাতেন বিপিএম-পিপিএম । সেইসাথে এ সময় পুলিশ সুপার বগুড়ার আরও চার পুলিশ কর্মকর্তাও সম্মাননা স্মারক ও সনদপত্র গ্রহন করেন।
জানা যায়, ডিসেম্বর মাসের অপরাধ ও আইনশৃঙ্খলা নিয়ন্ত্রণ, মাদকদ্রব্য-অস্ত্র উদ্ধার, মামলা নিষ্পত্তি, গ্রেফতারি পরোয়ানা তামিল, অপমৃত্যু মামলা নিষ্পত্তি, ননএফআইআর প্রসিকিউশন, জিডি নিষ্পত্তি, নারী-শিশু-বয়স্ক-প্রতিবন্ধী হেল্প ডেস্কের সেবামূলক কার্যক্রম প্রভৃতি কার্যক্রম পর্যালোচনা করা হয়। পর্যালোচনা শেষে বগুড়া শ্রেষ্ঠ জেলা এবং শ্রেষ্ঠ পুলিশ সুপার হিসেবে সুদীপ কুমার চক্রবর্ত্তী নির্বাচিত হন।
উল্লেখ্য, গত বছর জুলাই মাসে বগুড়া জেলায় যোগদানের পরপরই পুলিশ সুপার বগুড়া সুদীপ কুমার চক্রবর্ত্তী  মাদক বিরোধী অভিযান, ওয়ারেন্ট তামিল, তালিকাভুক্ত মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার, চুরি, ডাকাতি, দস্যুতা, চাঁদাবাজি প্রতিরোধে জোরালো পদক্ষেপ গ্রহণ করেন। এতে ইতোমধ্যেই তিনি বগুড়াবাসীর কাছে প্রশংসা কুড়িয়েছেন।
পুলিশ সুপার সুদীপ কুমার চক্রবর্ত্তী জানান, বগুড়া'র অপরাধ নিয়ন্ত্রণ, আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি সমুন্নতকরণ, মামলার রহস্য উদঘাটন, মাদক উদ্ধার, অস্ত্র উদ্ধার, অপরাধীদের গ্রেফতার ও জন-সম্পৃক্ত পুলিশী ব্যবস্থা প্রণয়নে এ ধরণের নজিরবিহীন শ্রেষ্ঠত্বের সম্ভব হয়েছে শুধুমাত্র গর্বিত ও অদম্য পুলিশ সদস্যদের পেশাদারিত্ব, কর্মস্পৃহা, আন্তরিকতা, নিষ্ঠা, দায়বদ্ধতা ও দৃঢ় মানসিকতার কারণে। আশা করছি, এ সাফল্যের ধারা অব্যাহত থাকবে।

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, দৈনিক করতোয়া এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়