সুজানগরে শুরু হয়েছে চিনি মিশ্রিত ভেজাল খেজুরের পাটালী বিক্রি

Online Desk Aminul Online Desk Aminul
প্রকাশিত: ০৮:২২ পিএম, ২৫ নভেম্বর ২০২১

সুজানগর (পাবনা) প্রতিনিধি: প্রতিবছরের ন্যায় এবারও চলতি শীতের মৌসুমে পাবনার সুজানগরের হাট-বাজারে শুরু হয়েছে চিনি মিশ্রিত ভেজাল খেজুরের পাটালী। চিনির চেয়ে পাটালীর দাম বেশি হওয়ায় অসাধু পাটালী ব্যবসায়ী ও কতিপয় গাছি ওই ভেজাল পাটালী বিক্রি করছেন।
খোঁজ নিয়ে জানা যায়, এখনও উপজেলার কোথাও খেজুরে রস সংগ্রহ শুরু হয়নি। তাছাড়া উপজেলার কোথাও তেমন খেজুর গাছও নেই। অথচ সুজানগর পৌর বাজারসহ উপজেলার অধিকাংশ হাট-বাজারে দেদারছে খেজুরের পাটালী বিক্রি করা হচ্ছে। উপজেলার ভবানীপুর গ্রামের কামাল হোসেন বলেন, শীত মৌসুমে খেজুরের পাটালী দিয়ে দুধ ভেজানো চিতই পিঠা খাওয়া গ্রাম বাংলার মানুষের চিরাচরিত রীতি। সেকারণে শীত আসলেই গ্রামাঞ্চলে খেজুরের পাটালী দিয়ে দুধ ভেজানো চিতই পিঠা খাওয়ার ধুম পড়ে। আর এ সুযোগে অসাধু পাটালী ব্যবসায়ী ও গাছি চিনির মধ্যে খেজুর রসের ফ্লেবার মিশিয়ে ভেজাল পাটালী তৈরি করে অবাধে বিক্রি করছে। সেই সঙ্গে পাটালীর রং উজ্জ্বল করতে এবং সুগন্ধ ছড়াতে খেজুরের রসে মেশানো হয় এক ধরনের কেমিক্যাল। উপজেলার মানিকদীর গ্রামের সিদ্দিকুর রহমান বলেন, বর্তমান বাজার মূলে ১ কেজি চিনির দাম ৭৫ টাকা। আর ১ কেজি পাটালীর দাম ১২০ থেকে ১৫০ টাকা। চিনির চেয়ে পাটালীর দাম প্রতিকেজিতে ৬০ থেকে ৬৫ টাকা বেশি। সেকারণে ওই সকল গাছি ও ব্যবসায়ীরা অধিক মুনাফা লাভের আশায় চিনির মধ্যে খেজুর রসের ফ্লেবার মিশিয়ে ভেজাল পাটালী তৈরি করে অবাধে স্থানীয় হাট-বাজারে বিক্রি করছেন। ওই সব ভেজাল পাটালী কিনে ক্রেতারা প্রতিনিয়ত প্রতারিত হচ্ছেন।
উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আবাসিক মেডিকেল কর্মকর্তা সেলিম মোরশেদ জানান, ভেজাল ওই পাটালী শিশু স্বাস্থ্যের জন্য মারাত্মক ক্ষতিকর।
উপজেলা নির্বাহী অফিসার রওশন আলী বলেন, ভেজাল পাটালী ব্যবসায়ী ও গাছিদের বিরুদ্ধে শিগগিরই ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।


আরও পড়ুন