যৌতুকের দাবিতে গৃহবধূকে নির্যাতন, স্বামী সতীনসহ ৬ জনের বিরুদ্ধে মামলা

Online Desk Aminul Online Desk Aminul
প্রকাশিত: ০৭:৩৬ পিএম, ২৪ নভেম্বর ২০২১

আদমদীঘি (বগুড়া) প্রতিনিধি: বগুড়ার আদমদীঘিতে ৫ লাখ টাকা যৌতুকের দাবিতে এক সন্তানের জননীকে শারীরিক ও মানসিক নির্যাতনের অভিযোগে মামলা হয়েছে। উপজেলার তালশন গ্রামের ভুক্তভোগী মল্লিকা রানী মালী বাদি হয়ে তার স্বামী, সতিন, শ্বশুরসহ ৬ জনের বিরুদ্ধে গত রোববার বগুড়ার নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল-২ এ এই মামলা দায়ের করেন। আদালত বাদির অভিযোগ আমলে নিয়ে তা তদন্ত করে প্রতিবেদন দাখিলের জন্য আদমদীঘি সদর ইউপি চেয়ারম্যানের কাছে প্রেরণ করেছেন।
মামলার বিবরণে জানা যায়, উপজেলার তালশন গ্রামের সুরেশ চন্দ্র মালীর মেয়ে মল্লিকা রানীর সাথে ২০১৫ সালের ৩১ মার্চ নওগাঁর মান্দা উপজেলার গোপালপুর বাজারের বকুল কুমার দাসের ছেলে সমর কুমারের বিয়ে হয়। তাদের অরূপ কুমার বাধন নামের ৫ বছর এক ছেলে রয়েছে। বিয়ের পর বিভিন্ন সময় যৌতুক দাবিতে মল্লিকা রানীকে শারীরিক ও মানসিক নির্যাতন করা হতো। এক পর্যায়ে স্বামী সমর কুমার দাস সন্তানসহ স্ত্রী মল্লিকা রানীকে যৌতুকের দাবিতে গ্রামে পাঠিয়ে দেয়। এরপর গত ১২ অক্টোবর তার গ্রামের বাড়িতে এসে ৫ লাখ টাকা যৌতুক দাবি করে। এতে অপারগতা প্রকাশ করলে আসামিরা বাদিনীকে মারপিট করে চলে যায়। পরে আহত অবস্থায় উদ্ধার করে আদমদীঘি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।


আরও পড়ুন