বগুড়ায় ২৫জন  করোনায় আক্রান্ত

Online Desk Online Desk
প্রকাশিত: ০৫:৩৬ এএম, ২৪ মে ২০২০

স্টাফ রিপোর্টারঃ বগুড়ায় নতুন করে আরও ২৫ জন করোনায় সংক্রমিত হয়েছেন। যা  একদিনে সর্বোচ্চ আক্রান্তের রেকর্ড বলে জানিয়েছেন বগুড়ার ডেপুটি সিভিল সার্জন ডা. মোস্তাফিজুর রহমান তুহিন। শুক্রবার রাতে তিনি জানান, নতুন করে আক্রান্ত ২৫জনকে নিয়ে বগুড়ায় এ পর্যন্ত ১৬৮জন করোনাভাইরাসে সংক্রমিত হলেন। আক্রান্তদের মধ্যে ১৬জন সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরে গেলেও একজনের মৃত্যু হয়েছে। শনিবার বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজের পিসিআর ল্যাবে বগুড়ার ১৬৩টি নমুনাসহ মোট ১৮৮টি নমুনা পরীক্ষা করা হয়। আক্রান্তদের বয়স ১৩ থেকে ৬৫ বছর। তাদের নমুনা গত ১৯ মে থেকে ২২ মে’র মধ্যে সংগ্রহ করা হয়। 

জেলা স্বাস্থ্য বিভাগের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী আক্রান্তদের মধ্যে ১২জনই বগুড়া সদরের বাসিন্দা। এছাড়া জেলার শাজাহানপুর উপজেলার ৫জন, শেরপুরের ৩জন, গাবতলীর ২জন এবং কাহালু, দুপচাঁচিয়া ও সোনাতলার আরও একজন করে ৩জন আক্রান্ত হয়েছেন। 

বগুড়া সদরে আক্রান্ত ১২জনের ১১জনই শহরের চেলোপাড়া মহল্লার বাসিন্দা। তারা সবাই ওই এলাকার ‘চাষী বাজার’ নমে মাছের পাইকারী বাজারের ব্যবসায়ী। অপরর যুবকের বাড়ি শহরের জহুরুলনগর এলাকায়। সকলেই স্থানীয়ভাবে আক্রান্ত। বগুড়ায় করোনা রোগীদের চিকিৎসার জন্য নির্ধারিত মোহাম্মদ আলী হাসপাতালের আবাসিক চিকিৎসক (আরএমও) ডা. শফিক আমিন কাজল জানিয়েছেন, আক্রান্তদের মধ্যে এমনও একজন রয়েছেন যিনি সব ধরনের সুরক্ষা নিয়েও শুধুমাত্র শহরের কাঁঠালতলা বাজার এলাকায় গিয়ে আক্রান্ত হয়েছেন।

স্বাস্থ্য বিভাগের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী জেলার অন্যান্য উপজেলার মধ্যে শেরপুর শাহপাড়ার ঢাকাফেরত এক দম্পতি আক্রান্ত হয়েছেন। অপরজন ঢাকায় কর্মরত পুলিশের কনস্টেবল। তিনি গত ১৯ মে ঢাকা থেকে শেরপুরে আসার পর নমুনা দিয়ে আবার ঢাকায় চলে গেছেন।

শাজাহানপুর উপজেলায় আক্রান্ত ৫জনই ঢাকাফেরত। তাদের মধ্যে মাঝিড়া এলাকার এক দম্পতি এবং শাকপালা এলাকার দুই ব্যক্তি রয়েছেন। এছাড়া আগে থেকেই মোহাম্মদ আলী হাসপাতালে চিকিৎসাধীন এক ব্যক্তির নমুনা পরীক্ষায় করোনা পজিটিভ এসেছে।

গাবতলী উপজেলার আক্রান্ত দুই ব্যক্তির মোবাইল ফোন বন্ধ থাকায় তাদের পূর্ণাঙ্গ পরিচিতি ও ঠিকানা জানা যায়নি। জেলার পশ্চিমের উপজেলা দুপচাঁচিয়ার ঢাকাফেরত এক নারী আক্রান্ত হয়েছৈন। অন্যদিকে সোনাতলা উপজেলা এবং কাহালু নারহট্ট এলাকার অপর দুই ব্যক্তি স্থানীয়ভাবে আক্রান্ত হয়েছেন। 

 ডেপুটি সিভিল সার্জন ডা. মোস্তাফিজুর রহমান তুহিন জানান, আক্রান্তদের আপাতত নিজ নিজ বাড়িতে রেখেই চিকিৎসা দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। তবে প্রয়োজন হলে তাদেরকে মোহাম্মদ আলী হাসপাতালে ভর্তি করা হবে।


আরও পড়ুন