স্কেটিংয়ে এগিয়ে যাচ্ছে বগুড়ার শিশুরা

Online Desk Aminul Online Desk Aminul
প্রকাশিত: ০৮:৪৩ পিএম, ১৯ অক্টোবর ২০২১

স্টাফ রিপোর্টার: শক্ত পিচের ওপর পায়ে চাকাযুক্ত বিশেষ জুতো পড়ে শারীরিক নানা ছন্দে ছুটে চলছে একঝাঁক শিশু-কিশোর, খেলাটির নাম স্কেটিং। এখন স্কেটিং এ এগিয়ে যাচ্ছে বগুড়ার শিশুরাও। পশ্চিমা দেশগুলোতে এ খেলা অনেক পুরনো হলেও সময়ের সাথে সাথে ধীরে ধীরে খেলাটি জনপ্রিয় হয়ে উঠছে বাংলাদেশেও। অন্যান্য গেমসের থেকে কিছুটা আলাদা হওয়ার কারণে দারুণ আগ্রহ বাড়ছে শিশু-কিশোরদের মাঝে। দুর্দান্ত পারফরমেন্সে আন্তর্জাতিক অঙ্গনেও বাংলাদেশ তৈরী করছে শক্ত অবস্থান। এমনটি সন্তানদের দেখে অনুপ্রাণিত হয়ে অনেক অভিভাবকও শিখছেন স্কেটিং। শরীরচর্চার পাশাপাশি খেলাটিতে ভবিষ্যত দেখছেন তারা।
২০১৮ সালের ১৪ ফ্রেব্রুয়ারী বগুড়ায় প্রতিষ্ঠিত হয় বগুড়া রোলার স্কেটিং ক্লাব। বর্তমানে উত্তরবঙ্গ তথা বগুড়ায় ক্ষুদে স্ক্যাটারদের বিচরণ দারুণভাবে লক্ষণীয়। শারীরিক কসরতের পাশাপাশি খেলাটি দেখতেও বেশ আকর্ষণীয় তাই বর্তমানে অনেকেই স্কেটিং শিখতে বেশ আগ্রহী।
স্কেটিং শিখতে আসা ৩য় শ্রেণির শিক্ষার্থী আদিবা জানায়, স্কেটিং শিখতে পেরে সে নিজেকে ধন্য মনে করে। এটা একটি আলাদা খেলা। খেলার পাশাপাশি এটার মাধ্যমে শরীর চর্চাও হয়ে থাকে । যার মজাই আলাদা। সে আরও বলে ভালো স্কেটিং শিখে সে জাতীয় প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করতে চায়।
৫ম শেণীর শিক্ষার্থি নাজা জানায়, প্রতিদিন সকালে বাবার সাথে সকালের মিষ্টি রোদে স্কেটিং করতে আসে সে। স্কেটিং শেষ করে যোগ দেয় কেচিং এ। প্রথমে বাবা-মার ইচ্চাতে স্কেটিং শিখতে আসলেও এখন তার নিজেরই অনেক ভালো লাগে। এখানে তার অনেক স্ক্যাটার বন্ধুদেরও সাথে সকালে খুব ভালো একটা সময় কাটে।  
এ ছাড়া কয়েকজন অভিভাবক বললেন, তাদের শিশুদের স্কেটিং শেখাতে প্রথমে ভয় পেয়েছিলেন। পরে বুঝতে পারলেন স্কেটিং বিশেষ ধরনের শরীর চর্চা। যা শিশুমনে স্পোর্টসম্যান স্পিরিট গড়ে তোলে।
সংগঠনটির প্রতিষ্ঠাতা ও পরিচালক স্ক্যাটার প্রশিক্ষক মো: আশরাফুল ইসলাম রহিত বলেন, জাতীয় রোলার স্কেটিং ফেডারেশনের সাবেক কোচ এ.কে আজাদের পরামর্শ নিয়ে অনেকটা শখের বসেই যাত্রা শুরু করেছিলাম।  শুরুতে মানুষের তেমন কোন আগ্রহ ও সাড়া না পাওয়ায় ৩ বছর আগে নিজের দুই ছেলে নাবীয়ূন ইসলাম পৃথিবী (১০) ও আদিয়্যাত ইসলাম দুরন্ত (৫) কে শেখানোর মাধ্যমেই যাত্রা শুরু হয়েছিলো ’বগুড়া রোলার স্কেটিং ক্লাবের’। এরপর একে একে যুক্ত হতে থাকে স্কেটিং প্রেমী আগ্রহী শিশু-কিশোর। ৩ বছরের ব্যবধানে শিশুদের প্রিয় বিচরণ ক্ষেত্র হয়ে উঠেছে ”বগুড়া রোলার স্কেটিং ক্লাব”।
আশরাফুল ইসলাম রহিদ বলেন, স্কেটিং শুধু একটি খেলা নয়, উৎকৃষ্টমানের ব্যায়ামও বটে। শারীরিকভাবে ফিট থাকতে স্কেটিং এর কোন বিকল্প নেই। তবে বর্তমানে বগুড়ার বিভিন্ন এলাকা থেকে একঝাক শিশু-কিশোর প্রশিক্ষণ নিচ্ছে রোলার স্কেটিং ও ইন-লাইন স্কেটিংয়ে। মাঝে মাঝে রোল বল খেলতেও দেখা যায় এই সব ক্ষুদে স্ক্যাটারদের। শুরুর দিকে তেমন আগ্রহ না থাকলেও বর্তমানে অনেকেই আগ্রহী হচ্ছেন মজার খেলা স্কেটিং শেখার জন্য। তিনি বলেন, বগুড়া ছাড়া উত্তরাঞ্চলে কোথাও স্কেটিং ক্লাব নেই। বগুড়ায়  এখন স্কেটিং এর জনপ্রিয়তা বাড়ছে।
 রহিত বলেন,কোন প্রশিক্ষনার্থী ক্লাবে ভর্তি হলে তাকে স্কেটিং এর কোন উপকরণ কিনতে হয় না। প্রাথমিক প্রশিক্ষণে ক্লাব থেকেই সরবরাহ করা হয় স্কেটিং এর যাবতীয় উপকরণ। ভর্তি ফি ও মাসিক বেতনও সাধ্যের মধ্যেই, ফলে মাত্র তিন বছরের ব্যবধানে বর্তমানে ক্লাবের তালিকাভুক্ত সদস্য সংখ্যা ৪০ ছাড়িয়েছে। বর্তমানে অনেক অভিভাবকও অনেকটা শখের বসেই শিখছেন স্কেটিং। এছাড়া ২১ শে ফ্রেব্রুয়ারী, ২৬ শে মার্চ, ১৬ই ডিসেম্বর সহ বিভিন্ন জাতীয় দিবসে ক্লাবের সকল সদস্যদের সুসজ্জিত ও স্বতস্ফুর্ত অংশগ্রহণে র‌্যালীতে যোগ হয় নতুন মাত্রা।
তবে নিজস্ব কোন স্কেটিং প্লে গ্রাউন্ড না থাকায় স্থানীয় সরকারি আজিজুল হক কলেজ নতুন ভবন কাম্প্যাস চত্বরে প্রতিদিনই সকাল ৬ টা থেকে সকাল ৮ টা পর্যন্ত এবং শুক্রবার বিকেল ৩টা থেকে ৬টা পর্যন্ত অস্থায়ীভাবেই চলছে বগুড়া রোলার স্কেটিং ক্লাবের প্রশিক্ষণ। ব্যক্তিগত উদ্যোগে প্রতিষ্ঠিত হলেও কাংখিত লক্ষে পৌঁছার জন্য যথাযথ পৃষ্ঠপোষকার প্রয়োজন আছে এবং সরকারি পৃষ্ঠপোষকতা ও সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের সহযোগিতা পেলে নিজেদের দক্ষতা উন্নয়নের মাধ্যমে বগুড়ার স্ক্যাটারদের নিয়ে জাতীয় ও আন্তর্জাতিক অঙ্গনেও সফলতার স্বাক্ষর রাখার স্বপ্ন দেখেন এই স্ক্যাটিং প্রশিক্ষক।
 আশরাফুল ইসলাম রহিত বলেন, সম্প্রতি, দেশে প্রথমবারের মত বগুড়া রোলার স্কেটিং ক্লাবের ক্ষুদে স্ক্যাটারদের নিয়ে নির্মিত হয়েছে শিশুতোষ চলচ্চিত্র "দ্য রান"। ইতোমধ্যে ভারতের কলকাতায় চতুর্থ ঋতুরঙ্গম চলচ্চিত্র উৎসবে ‘দ্য রান’ বিশেষ ক্যাটাগরিতে প্রশংসিত হয়েছে। স্বল্পদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্রটি পরিচালনা করেছেন বগুড়ার নির্মাতা সুপিন বর্মন।
বারাসাতের হৃদয়পুর সংহতি গ্রন্থাগার মিলনায়তনে আগস্টের শেষ সপ্তাহে বগুড়ায় নির্মিত এ চলচ্চিত্রটি অংশগ্রহণ করে। শিশুতোষ এই ছবিটি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ও ফ্রান্সের দুইটি চলচ্চিত্র উৎসবের জন্য মনোনীত হয়েছে। বৈশ্বিক কোভিডের কারণে তারিখ পিছিয়েছে। বগুড়া রোলার স্কেটিং ক্লাবের একদল স্কেটিং প্রিয় শিশুদের নিয়ে নির্মিত হয়েছে দ্য রান ছবিটি।


আরও পড়ুন