লুটেরা অর্থনৈতিক ব্যবস্থায় মানুষের হতাশা চরমে : মির্জা ফখরুল

DhakaNANDI DhakaNANDI
প্রকাশিত: ০৮:১৫ পিএম, ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২১

স্টাফ রিপোর্টার, ঢাকা অফিস : সরকারের লুটেরা অর্থনৈতিক ব্যবস্থায় মানুষের হতাশা চরম পর্যায়ে পৌঁছেছে বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। 

সোমবার (২৭ সেপ্টেম্বর) একজন রাইড শেয়ারের চালকের বাইক পুঁড়িয়ে ফেলার ঘটনার প্রসঙ্গ টেনে মঙ্গলবার (২৮ সেপ্টেম্বর) বিকেলে এক দলীয় সভায় এ রকম মন্তব্য করেন তিনি। রাজধানীর গুলশানে দলের চেয়ারপারসনের রাজনৈতিক কার্যালয়ে বিএনপির স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উদযাপন জাতীয় কমিটি ও বিষয়ভিত্তিক কমিটির এই সভা হয়। 

মির্জা ফখরুল বলেন, সরকার অর্থনীতিকে ধ্বংস করেছে। এরা আজকে পুরোপুরিভাবে একটা লুটেরা অর্থনীতি তৈরি করেছে, একটা লুটেরা সমাজ তৈরি করছে। গতকাল (সোমবার) একজন যুবক তার মোটর সাইকেল পুঁড়িয়ে দিয়েছে। কেন পুঁড়িয়েছে? সে বলছে যে, আমি একটা সিরামিক্সের দোকান করতাম। সেটা করোনার কারণে বন্ধ হয়ে যাওয়ায় আমি আমার সঞ্চিত অর্থ দিয়ে একটা মোটর সাইকেল কিনে বাইক রাইড শেয়ারিংয়ে কাজ করার চেষ্টা করছি। সেখানে আমাকে প্রতি পদে পদে বাধা দেয়া হচ্ছে- অমুক সার্টিফিকেট লাগবে, তমুক সার্টিফিকেট লাগবে- তার চাইতে পুঁড়িয়ে ফেলি। এটা কখন হয়? যখন হতাশার চরম পর্যায়ে গিয়ে পৌঁছে মানুষ। আজকে সেই অবস্থায় গিয়ে আমরা পৌঁছেছি। এই অবস্থা থেকে বেরিয়ে আসতে হলে আমাদের সবাইকে ঐক্যবদ্ধ হতে হবে। 

সুবর্ণজয়ন্তী উদযাপন জাতীয় কমিটির আহবায়ক খন্দকার মোশাররফ হোসেনের সভাপতিত্বে এবং সদস্য সচিব আবদুস সালামের সঞ্চালনায় সভায় নেতৃবৃন্দ স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীর বছরব্যাপী কর্মসূচি পুনরায় শুরুর বিষয় নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করেন। এই সভায় বিএনপির সেলিমা রহমান, ইকবাল হাসান মাহমুদ টুকু, অধ্যাপক ডা. ফরহাদ হালিম ডোনার, বিজন কান্তি সরকার, সৈয়দ এমরান সালেহ প্রিন্স, অধ্যাপক ড. এবিএম ওবায়দুল ইসলাম, আমিনুল হক, অধ্যাপক ডা. হারুন-আল রশিদ,  চেয়ারপারসনের একান্ত সচিব এবিএম আবদুর সাত্তার প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।


 


আরও পড়ুন