এত খারাপ অবস্থা আর কখনো দেখিনি : মির্জা ফখরুল

DhakaNANDI DhakaNANDI
প্রকাশিত: ০৭:১৪ পিএম, ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২১

# ‘সার্চ কমিটির’ সাংবিধানিক ভিত্তি নেই : আব্বাস

স্টাফ রিপোর্টার, ঢাকা অফিস : বাংলাদেশে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের সরকার গোটা রাষ্ট্রকে দলীয়করণ করে ফেলেছে বলে অভিযোগ করেছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। 

সোমবার (২৭ সেপ্টেম্বর) দুপুরে জাতীয় প্রেস ক্লাবে বিএনপির স্থায়ী কমিটির প্রয়াত সদস্য আসম হান্নান শাহের পঞ্চম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে আসম হান্নান শাহ স্মৃতি সংসদের উদ্যোগে এক স্মরণসভায় এ অভিযোগ করেন তিনি। 

মির্জা ফখরুল বলেন, প্রশাসনে-আইনশৃঙ্খলা বাহিনীতে লোক নেওয়া হচ্ছে দলীয় ভিত্তিতে। সবখানে দলীয় ভিত্তিতে নিয়োগ হচ্ছে। এভাবে পুরো প্রশাসনকে-রাষ্ট্রকে তারা (সরকার) দলীয়করণ করে ফেলেছে। 

বর্তমান সময়কে সবচেয়ে খারাপ সময় উল্লেখ করে বিএনপি মহাসচিব বলেন, এই সময়টা সবচেয়ে খারাপ সময়। ৫০ বছরে এই সময়ের মতো এত খারাপ অবস্থা আর কখনো দেখিনি। গোটা জাতিকে ধ্বংস করে দিচ্ছে, যা আগে কখনো দেখিনি। 

সভায় দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য মির্জা আব্বাস বলেন, আমরা এই সরকারের অধীনে কোনো নির্বাচনে যাব না। একইসঙ্গে এই সরকারের অধীনে কোনো নির্বাচন হতেও দেওয়া হবে না। চেষ্টা করলে প্রতিরোধ করা হবে, বাধা দেওয়া হবে। সেই বাধার মুখে আপনারা টিকে থাকতে পারবেন না। 

নির্বাচন কমিশন পুনর্গঠনে গঠিত ‘সার্চ কমিটির’ কোনো সাংবিধানিক ভিত্তি নেই বলে দাবি করেন তিনি। 

সভায় আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের ষড়যন্ত্র তত্ত্বের মহামারিতে আক্রান্ত উল্লেখ করে বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম-মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী বলেন, ওবায়দুল কাদের সাহেব প্রতিদিনই বলেন- ষড়যন্ত্র হচ্ছে, ষড়যন্ত্র হচ্ছে। এতদিন ছিল করোনার মহামারি, এখন ষড়যন্ত্র তত্ত্বের মহামারি। এই ষড়যন্ত্র তত্ত্বের মহামারিতে আক্রান্ত হয়ে বসে আছেন ওবায়দুল কাদের সাহেব। তারা এত অন্যায়-অবিচার করেছেন যে, এখন এসব কথা বলে জনগণের মধ্যে বিভ্রান্তি সৃষ্টি করতে চায়। 

তিনি আরও বলেন, আওয়ামী লীগের নেতারা প্রায়ই বলেন বিএনপি পেছনের দরজা দিয়ে ক্ষমতায় আসতে চায়। সব দরজা যখন বন্ধ হয়ে যায়, তখন বিএনপি গণতন্ত্রকে ফিরিয়ে আনার জন্য কাঠের দরজা, লোহার দরজা বা যে দরজাই হোক- তা ভেদ করে সামনের দিকে এগিয়ে যাবে। 

বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক ফজলুল হক মিলনের সভাপতিত্বে এবং জেলা নেতা মজিবুর রহমান ও  সাখাওয়াত হোসেন সবুজের সঞ্চালনায় এতে আরও বক্তব্য দেন-বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য আমানউল্লাহ আমান, আবদুস সালাম, যুগ্ম-মহাসচিব খায়রুল কবির খোকন, সহ-স্বাস্থ্যবিষয়ক সম্পাদক অধ্যাপক ডা. রফিকুল ইসলাম বাচ্চু, স্বেচ্ছাসেবক দলের সাধারণ সম্পাদক আবদুল কাদির ভুঁইয়া জুয়েল, কৃষক দলের সদস্য সচিব শহিদুল ইসলাম বাবুল, ছাত্রদলের সিনিয়র সহ-সভাপতি কাজী রওনকুল ইসলাম শ্রাবণ, প্রয়াত হান্নান শাহের ছেলে শাহ রিয়াজুল হান্নান প্রমুখ।


আরও পড়ুন