উপহারের ঘর: ডিসিরা চান বহুতল ভবন, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের না

প্রকাশিত: জানুয়ারী ১৮, ২০২২, ০৬:০৮ বিকাল
আপডেট: জানুয়ারী ১৮, ২০২২, ০৬:০৮ বিকাল
আমাদেরকে ফলো করুন

আশ্রয়ণ-২ প্রকল্পের আওতায় সারাদেশে ভূমি ও গৃহহীনদের জমিসহ ঘর করে দিচ্ছে সরকার। তবে এ প্রকল্পের কাজ করতে গিয়ে নানান অসঙ্গতি দেখা দিয়েছে। ফলে দীর্ঘমেয়াদি, টেকসই ও জমি সাশ্রয়ের জন্য বহুতল ভবন করার প্রস্তাব দিয়েছেন জেলা প্রশাসকরা (ডিসি)।

মঙ্গলবার (১৮ জানুয়ারি) রাজধানীর ওসমানী স্মৃতি মিলনায়তনে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় ও প্রকল্প সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে ডিসিদের অধিবেশনে এ প্রস্তাব দেওয়া হয়। তবে ডিসিদের এ প্রস্তাব প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় থেকে নাকচ করে দেওয়া হয়েছে।


অধিবেশন শেষে সাংবাদিকদের ব্রিফ করেন মুখ্য সচিব ড. আহমদ কায়কাউস। তিনি বলেন, ‘আশ্রয়ণ প্রকল্পে ডিসিরা বহুতল ভবন করার প্রস্তাব দিয়েছেন। বহুতল ভবন হলে সেটা স্থায়ী হবে। তবে বহুতল ভবন করতে অনেক টাকা প্রয়োজন। এতে প্রধানমন্ত্রীর যে প্রত্যাশা, মুজিববর্ষে কেউ ভূমিহীন বা গৃহহীন থাকবে না, সেই প্রত্যাশা বাস্তবায়নের জন্য এটা করার সুযোগ নেই।’

মুখ্য সচিব বলেন, ‘বহুতল ভবন হলে তাদের সেখানে ৫০-১০০ বছর থাকতে হবে। তবে আমরা চাই, আশ্রয়ণ প্রকল্পের মাধ্যমে তারা নিজেদের অবস্থান থেকে উত্তরণ করতে পারবেন। বহুতল ভবন হলে যেটা অসম্ভব হয়ে পড়বে।’

তিনি আরও বলেন, ‘ডিসিরা আরও কিছু প্রস্তাবনা দিয়েছেন, যেগুলো বাস্তব তা গ্রহণ করা হবে। যেগুলো বাস্তবসম্মত নয়, সেগুলো তাদের বুঝিয়ে বলা হয়। প্রধানমন্ত্রীও কিছু নির্দেশনা দিয়েছেন, যেগুলো বাস্তবায়ন করা হচ্ছে।’

মাঠ প্রশাসনে কাজ করতে গিয়ে ডিসিরা প্রতিবন্ধকতার সম্মুখীন হচ্ছেন কি না, এমন প্রশ্নের জবাবে মুখ্য সচিব আহমদ কায়কাউস বলেন, ‘এমন কোনো বিষয় পাইনি। তবে করোনা মহামারিসহ বিভিন্ন সময়ে জেলা প্রশাসক ও বিভিন্ন পর্যায়ের কর্মকর্তারা সমন্বয় করে কাজ করে দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছেন। সেটা নিয়ে আমি গর্বিত।’

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, দৈনিক করতোয়া এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়