ময়মনসিংহে বাড়ছে অননুমোদিত ভবন নির্মাণ

Online Desk Saju Online Desk Saju
প্রকাশিত: ১১:৩২ এএম, ২২ জুলাই ২০২১


শিক্ষানগরী ময়মনসিংহে ক্রমশ বাড়ছে মানুষের চাপ। বাড়তি এই চাপ সামলাতে নগরজুড়ে চলছে বহুতল ভবন নির্মাণের মহোৎসব। তবে অনুমোদিত নকশা কিংবা নকশায় দেওয়া শর্ত না মেনেই নির্মাণের অভিযোগ রয়েছে অনেক ভবন নির্মাতার উপর।

কাগজপত্রে পরিকল্পিত থাকলেও বাস্তবে অপরিকল্পিতভাবেই গড়ে উঠছে এ নগরী। অবশ্য সিটি করপোরেশনের কর্মকর্তারা বলছেন, নিয়ম লঙ্ঘনের অভিযোগ পেলে ব্যবস্থা নেন তারা।

করোনা মহামারিতে সব কিছু স্থবির থাকলেও থেমে নেই বহুতল ভবন নির্মাণের কাজ। ময়মনসিংহ নগরীর অলিগলিতে দেদারছে চলছে বহুতল ভবন নির্মাণ। অভিযোগ রয়েছে, বেশির ভাগ নির্মিত ও নির্মাণাধীন বহুতল ভবন নির্মাণে মানা হচ্ছে না ইমারত নির্মাণ বিধিমালা।

সরু সড়কের পাশেও হচ্ছে বহুতল ভবন। চতুর্দিকে যে পরিমাণ জায়গা ছেড়ে ভবন নির্মাণের কথা তা মানা হয় না। অনুমোদিত নকশা বদলে যায় কাজ করার সময়। অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে জিলা স্কুল ও নতুন বাজার রেলক্রসিংয়ের পাশে দুটি বহুতল ভবন সম্প্রতি সিলগালা করে দিয়েছে সিটি করপোরেশন।

অভিযোগের অপেক্ষায় না থেকে নিয়মিত তদারকির দাবি নগরবাসীর। তারা বলেন, দুর্ঘটনা ঘটার পরেই আমরা জানতে পারি ভবন নির্মাণে নিয়ম-কানুন মানা হয়নি। নকশা বর্হিভূতভাবে নির্মাণ চলা ভবনগুলোর কাজ এখনই থামিয়ে দেওয়া উচিত। আর নির্মিত অননুমোদিত ভবনের ব্যাপারে সংশ্লিষ্ট্য প্রশাসনকে কঠোর হওয়ারও তাগিদ দেন তারা।

সিটি করপোরেশনের নগর পরিকল্পনাবিদ বলছেন, নিয়ম না মানায় কয়েকটি ভবন সিলগালা ও বর্ধিত অংশ ভেঙে দেওয়া হয়েছে।

ময়মনসিংহ সিটি করপোরেশনের নগর পরিকল্পনাবিদ মানস কুমার বিশ্বাস বলেন, অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে আমাদের বিশেষজ্ঞ দল সরেজমিন পরিদর্শন করে, যেসব ভবন নির্মাণের ক্ষেত্রে অনুমোদিত লেআউট প্ল্যানের ব্যতয় করা হয়েছে সেগুলো আমরা প্রয়োজন অনুযায়ী ভেঙে দিয়েছি।

সিটি মেয়র বলছেন, ইমারত নির্মাণ বিধিমালা না মেনে ভবন নির্মাণ করলে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

ময়মনসিংহ সিটি করপোরেশন মেয়র ইকরামুল হক টিটু বলেন, নিয়মিত আমাদের ভ্রাম্যমান আদালত অভিযান পরিচালনা করছে। যারা ভবন নির্মাণে অনুমোদিত নকশার ব্যতয় ঘটাবেন, তাদের বিরুদ্ধে প্রচলিত আইনের ধারা অনুযায়ী প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

নগরীর ৭২ হাজার ৬২১টি হোল্ডিং এ ভবন রয়েছে লক্ষাধিক। এর মধ্যে সিটি করপোরেশন হওয়ার পর অন্তত দেড় হাজার ভবন নির্মাণের অনুমোদন দেওয়া হয়েছে।


আরও পড়ুন