বিড়ালের বিষ্ঠা থেকে যে কফি তৈরি হয় 

প্রকাশিত: নভেম্বর ২৪, ২০২২, ০৫:২৮ বিকাল
আপডেট: নভেম্বর ২৪, ২০২২, ১১:৪৪ রাত
আমাদেরকে ফলো করুন

কফি একটি জনপ্রিয় পানীয়। প্রায় সকল দেশেই এটি খাওয়া হয়। তবে সেই কফি যদি হয় বিড়ালের বিষ্ঠা থেকে?
অবাক হচ্ছেন? আবার সেই কফি নাকি সবচেয়ে দামী।এমনি একটি কফি তৈরী হয় ইন্দোনেশিয়ায়।কফিটির নাম লুয়াক।

লুওয়াক নামক এক ধরনের বিড়াল জাতীয় প্রাণী যার লেজ বানরের মতো। লুওয়াকের মল থেকে তৈরি হয় পৃথিবীর এই অন্যতম দামি কফি।কফি তৈরির জন্য এই প্রাণীগুলোকে আলাদাভাবে রাখা হয়। এদেরকে কফি বাগানে ছেড়ে দিলে এরা সবচেয়ে ভালো ফলগুলো গিলে খায়। যখন এরা মলত্যাগ করে তখন কফি বিনস গুলো আস্ত থাকে। বিভিন্ন প্রক্রিয়ায় পরিশুদ্ধ করে কপি লুওয়াক তৈরি করা হয়।

এক কাপ লুয়াক কফির দাম বাংলাদেশি টাকায় ৩ হাজার থেকে ৮ হাজার ৫০০ টাকা পর্যন্ত হতে পারে। যেখানে বিশ্ববাজারে এক কাপ ভালো মানের কফির দাম দুই থেকে পাঁচ ডলারের মধ্যে।

পাম সিভেট আমাদের দেশে গন্ধগকুল বা খাটাশ নামে পরিচিত। দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়া এবং সাহারা মরুভূমি এলাকায় এদের দেখা যায়। তবে লুয়াক উৎপাদনের জন্য ইন্দোনেশিয়ায় এখন প্রচুর গন্ধগোকুল পালন করা হচ্ছে। 

লুয়াক ফলের বীজ গন্ধগোকুল হজম করতে পারে না। ফলে এই বীজগুলো তাদের খাওয়ানো হয়। এরপর বীজগুলো গন্ধগোকুলের পাকস্থলিতে গিয়ে একপ্রকার এনজাইমের (প্রাণীর দেহকোষে উৎপন্ন জৈব রাসায়নিক পদার্থ বিশেষ) সঙ্গে মিশে যায়। ৮-১২ ঘণ্টা বীজগুলো গন্ধগোকুলের পেটের মধ্যে থাকে। এর ফলে বীজে যোগ হয় ক্যারামেলের ফ্লেভার। এটি এক প্রকার সুগন্ধী। তাছাড়া পরিপাকের ফলে বীজে বিদ্যমান এসিডের মাত্রাও কমে যায়। আর এভাবেই লুয়াক-এর স্বাদ এবং ঘ্রাণ বেড়ে যায় কয়েকগুণ।   

গন্ধগোকুলকে না হয় এই বীজ খাওয়ানো হলো। এরপর সেগুলো বের করে নিয়ে আসার উপায় কি? ঠিক ধরেছেন। গন্ধগোকুলের মলের সঙ্গে সেগুলো বেরিয়ে আসে। মল থেকে বীজগুলো আলাদা করা হয়। এরপর বাছাই করা বীজ থেকেই তৈরি হয় লুয়াক কফি। 

 

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, দৈনিক করতোয়া এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়