সন্তান কথা না শুনলে কী করণীয়...

Online Desk Aminul Online Desk Aminul
প্রকাশিত: ০৮:৩১ পিএম, ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২১

লাইফস্টাইল ডেস্ক: সন্তান সুসন্তান হয়ে বেড়ে উঠুক এই চাওয়াটা সব বাবা-মায়ের। কিন্তু সন্তানকে উপযুক্ত করে লালন-পালন করার ক্ষেত্রে বাবা-মায়েরা অনেক সময় সঠিক নির্দেশনা দিতে পারেন না। বাবা-মা মনে করেন, বাচ্চারাও আমাদের মতো। আমরা যা বুঝি তারাও তা বোঝে, আমরা যা পছন্দ করি ওরাও তাই পছন্দ করবে। কিন্তু বাচ্চা যদি আমার মতোই বুঝতো, তাহলে তো সে বাচ্চা থাকতো না। এজন্যে সে যেভাবে বুঝবে তাকে সেভাবেই বুঝাতে হবে। এক্ষেত্রে পারিবারিক সম্পর্ককে শ্রদ্ধাপূর্ণ ও মমতাপূর্ণ করা এবং সন্তানকে সবসময় আদেশ-নির্দেশ না দিয়ে উদ্বুদ্ধ করলে, পরিশ্রমী এবং কষ্টসহিষ্ণু করে তুললে, সন্তান আপনার কথাই শুনবে।
আসুন জেনে নিই সন্তানকে কথা শোনাতে যা কিছু করণীয়।
তিরস্কার বা আদেশ-নির্দেশ নয়: তিরস্কার বা সারাক্ষণ আদেশ-নির্দেশ না করে সন্তানকে তার করণীয় যুক্তি দিয়ে বুঝিয়ে দিন। তিরস্কার বা সারাক্ষণ আদেশ-নির্দেশ করতে থাকলে সন্তান ভাবতে পারে যে, আপনি বোধ হয় তার প্রতিপক্ষ। কিন্তু আপনি সন্তানের বন্ধু -এই অনুভূতিটা তার বিকাশের জন্যেই জরুরী। 
সন্তানকে বুঝুন: আপনার সন্তানকে বুঝতে দিন যে, আপনি তাকে বোঝেন। যত আপনার সন্তান বুঝবে যে, আপনি তাকে বোঝেন ততোই সে আপনার অনুগত হবে। আপনার কথা শুনবে। অতএব তাকে শোনানোর জন্যে আগে তাকে শুনুন। তার কথায় মনোযোগ দিন। তাকে বুঝতে দিন যে, আপনি তাকে বোঝেন। তার পরিবর্তন দেখে অবাক হয়ে যাবেন।
সন্তানের ব্যাপারে একমত হোন: সন্তানের ব্যাপারে বাবা-মার ঐকমত্য গুরুত্বপূর্ণ। একই ব্যাপারে বাবা-মা ভিন্ন মত দেবেন না। এতে সন্তান বিভ্রান্ত হয়। আগেই সিদ্ধান্তগুলো নিয়ে নিন। আর কোনও ব্যাপারে দ্বিমত হলে তা নিয়ে কখনও সন্তানের সামনে বিতর্কে জড়াবেন না। নিজেরা কথা বলুন।
সন্তানের প্রশ্নের জবাব দিন: আপনি যদি আপনার সন্তানের প্রশ্নের জবাব না দেন, জবাবের জন্যে সে হয়তো খুঁজে নেবে এমন কাউকে বা এমন কিছুকে, যার পরিণতি আপনার জন্যে অতটা সুখকর না-ও হতে পারে।
সন্তানকে তা-ই বলুন, যা আপনি নিজেও পালন করেন: শিশুরা তাদের বাবা-মায়েরা কী বলছে সেটা নয়, কী করছে সেটাই অনুকরণ করে। কাজেই আপনার সন্তানকে এমন কিছু করতে বলবেন না, যা আপনি নিজেই করেন না।
ভুল করলে মাশুল পেতে দিন, প্রয়োজনে শাস্তি দিন: আপনার সন্তান যদি বোঝে যে, আপনার কথা না শুনেও সে পার পেয়ে যাচ্ছে, তাহলে সে অবাধ্য হতে উৎসাহ পাবে। তাই সারাক্ষণ চিৎকার-চেঁচামেচি না করে শান্ত থাকুন, কিছু প্রতীকী শাস্তির ব্যবস্থা করুন। এ ব্যাপারে দৃঢ় হতে ভয় পাবেন না। কারণ সন্তান যদি বুঝতে পারে যে, এই অবাধ্য হবার জন্যে তাকে শাস্তি পেতে হবে, তাহলে সে সাবধান হবে।
একই কথা বার বার বলবেন না: একই কথা বার বার বললে তার গুরুত্ব কমে যায়। এর চেয়ে এক বার বলুন। তাকে বুঝতে দিন, না শোনার শাস্তি।
সম্পর্কের দূরত্ব মিটিয়ে ফেলুন: সন্তানের সাথে জেনারেশন গ্যাপ বা সম্পর্কের দূরত্বের একটা কারণ হলো- বাবা-মায়েরা চান তারা তাদের ছোটবেলায় যেমন ছিলেন, সন্তানও ঠিক তেমন হবে। ফলে এই অবাস্তব প্রত্যাশার জন্যে সৃষ্টি হয় ভুল বোঝাবুঝি। কাজেই কিছু কিছু ব্যাপারে আপনাকে সহনশীল বা নমনীয় হতে হবে। সন্তানের চাহিদা, দৃষ্টিভঙ্গি এবং পছন্দের সাথে আপনার চাহিদা, দৃষ্টিভঙ্গি এবং পছন্দের একটা ভারসাম্য আনতে হবে। 
যেমন- প্রযুক্তির ব্যাপারে বর্তমান প্রজন্মের আগ্রহ, দক্ষতা, সম্ভাবনা সবকিছুই পুরনো প্রজন্মের চেয়ে বেশি। এটি যদি বড়রা মেনে নেন, এ গুণের জন্যে তাদের প্রশংসা করেন, সমীহ করেন, তাহলেই কিন্তু একটা সুন্দর বোঝাপড়ার সম্পর্ক তৈরি হয়।
আপনার অপূর্ণ স্বপ্নের বাস্তবায়ন সন্তানের মধ্যে দেখতে যাবেন না: বাবা-মায়েরা অনেক সময় তাদের অপূর্ণ স্বপ্নের বাস্তবায়ন দেখতে চান তার সন্তানের মধ্যে। ফলে সন্তানের জীবনের লক্ষ্য কী হবে তা তারাই ঠিক করে দেন। সন্তানের চাওয়া বা সামথ্যের বিষয়টিকে কোনও গুরুত্ব না দিয়েই। আর পরবর্তীতে তার মাশুল দিতে হয় সন্তানকেই। সে না পারে বাবা-মায়ের চাওয়া পূরণ করতে, না পারে নিজের মেধাকে বিকশিত করতে। কাজেই বেড়ে ওঠার একটি পর্যায়ের পরে তার সব ব্যাপারে হস্তক্ষেপ না করে চিন্তা ও সিদ্ধান্ত গ্রহণের স্বাধীনতা দিন। এতে সে স্বনির্ভর হয়ে উঠবে।
সন্তানের আত্মমর্যাদাবোধকে নষ্ট করবেন না: শিশুদেরও যে আত্মমর্যাদাবোধ আছে এটা আমরা অনেক সময় ভুলে যাই। আমরা হয়তো অন্যের সামনে তাকে বকাবকি করি, ভুল ধরিয়ে দেই বা অপ্রস্তুত করি। এ ধরনের আচরণের ক্ষেত্রে সতর্ক থাকুন। ‘তোকে দিয়ে কিছু হবে না’ এ জাতীয় কথা বলেও তাকে ছোট করবেন না। ব্যর্থতার প্রসঙ্গ তুলে খোঁটা দেবেন না, আপনার উৎসাহ তার ব্যর্থতাকেও সাফল্যে রূপান্তরিত করতে পারে।