শেখ হাসিনাকে হত্যাচেষ্টা মামলা ন্যায়বিচার পাইনি উচ্চ আদালতে যাব -আসামী পক্ষের আইনজীবী

Online Desk Online Desk
প্রকাশিত: ০৩:৪৭ পিএম, ০৪ ফেব্রুয়ারি ২০২১

অনলাইন ডেস্ক: সাতক্ষীরায় শেখ হাসিনার গাড়িবহরে হামলার মামলায় আসামিরা ন্যায়বিচার থেকে বঞ্চিত হয়েছেন বলে জানিয়েছেন তাদের আইনজীবী। তাঁরা ন্যায়বিচারের জন্য উচ্চ আদালতের যাবেন বলেও জানান। কলারোয়ায় ২০০২ সালের ৩০ আগস্ট তৎকালীন বিরোধীদলীয় নেতা বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার গাড়িবহরে হামলার ঘটনায় হত্যাচেষ্টা মামলার রায় আজ বৃহস্পতিবার ঘোষণা করা হয়। সাতক্ষীরার চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট হুমায়ূন কবির এই রায় ঘোষণা করেন। রায়ে বিএনপির সাবেক সংসদ সদস্য হাবিবুল ইসলাম হাবিবকে ১০ বছরসহ ৫০ আসামিকে বিভিন্ন মেয়াদে সাজা দিয়েছেন আদালত। এই মামলায় আসামির সংখ্যা ৫০ জন। এর মধ্যে ১৫ জন পলাতক রয়েছেন। ৫০ আসামির মধ্যে ‘টাইগার খোকন’ নামের একজন আগে থেকে অন্য মামলায় জেলহাজতে আটক রয়েছেন।

রায় ঘোষণার পর আদালত চত্বরে আসামিপক্ষের আইনজীবী শাহানারা পারভিন বকুল গণমাধ্যমকে বলেন, তথ্য-উপাত্ত দেওয়া সত্ত্বেও আমরা এই রকম একটা রায় আশা করিনি। কারণ ওইদিন হাবিবুল ইসলাম হাবিব যে কলারোয়ায় ছিলেন না তার যথেষ্ট প্রমাণ আমরা আদালতে উপস্থাপন করেছি। প্রথমত, তাঁর নাম এফআইআরে ছিল না। দ্বিতীয়ত, বাদী তাঁর জবানবন্দিতে হাবিবের নাম বলেননি। তৃতীয়ত, যার ওপরে হামলার কথা বলা হয়েছে, তিনি সেদিন কলারোয়া থেকে ঢাকায় যাওয়ার পথে চার জায়গায় সভা করেছিলেন। নাভারণ, ঝিকরগাছা, খাজুরা ও যশোর। এই চার জায়গায় তিনি অনেকের নাম বললেও হাবিবুল ইসলাম হাবিবের নাম বলেননি। তার মানে এই ঘটনায় তাঁর কোনো সংশ্লিষ্টতা নেই। তারপরও সাজা দেওয়া হলো।

রায়ে সন্তোষ্ট কি না জানতে চাইলে আইনজীবী আরো বলেন, এই রায়ে সন্তোষ্ট হবো কীভাবে? আমরা তো ন্যায়বিচারই পাইনি। আমরা উচ্চ আদালতে যাব। আশা করি, উচ্চ আদালত অবশ্যই আমাদের ন্যায়বিচার দিবেন।

মামলায় আসামিপক্ষে ছিলেন ব্যারিস্টার মাহবুব উদ্দিন খোকন, অ্যাডভোকেট শাহানারা আক্তার বকুল, অ্যাডভোকেট আবদুল মজিদ, অ্যাডভোকেট মিজানুর রহমান পিন্টু, অ্যাডভোকেট তোজাম্মেল হোসেন, অ্যাডভোকেট আবদুস সেলিম প্রমুখ। এ মামলায় আদালতে ২০ জন সাক্ষ্য দিয়েছেন।