সরকার মানুষের ভাতের অধিকারও কেড়ে নিতে চায় : বকুল

DhakaNANDI DhakaNANDI
প্রকাশিত: ০৮:২৩ পিএম, ১৮ নভেম্বর ২০২১

# খুলনায় লিফলেট বিতরণ কর্মসূচির উদ্বোধন

করতোয়া ডেস্ক : একাদশ সংসদ নির্বাচনে খুলনা-৩ আসনে ধানের শীষ প্রতীকের প্রার্থী ও বিএনপির কেন্দ্রীয় নেতা আলহাজ্ব রকিবুল ইসলাম বকুল বলেছেন, সরকারের লোকজন দেশের প্রতিটি সেক্টরে দুর্নীতির মাধ্যমে বিপুল পরিমাণ অর্থ লুটপাট করে বিদেশে সম্পদের পাহাড় গড়েছে। চালের কেজি ১০ টাকায় খাওয়ানোর কথা বলে এখন সেই চাল ৭৫-৮০ টাকায় খাওয়াচ্ছে। নিত্যপ্রয়োজনীয় প্রতিটি পণ্যের মূল্য বৃদ্ধির কারণে তা জনগণের ক্রয়সীমার বাহিরে গিয়ে এখন সাধারণ মানুষের জন্য নাভিশ্বাস হয়ে উঠেছে।

তিনি আরও বলেন, শিল্পাঞ্চল অধ্যুষিত খুলনার খালিশপুর এলাকার শিল্প-কলকারখানাগুলো বন্ধ করে এই সরকার শ্রমিকদের জীবন অসহনীয় করে তুলেছে। শ্রমিকরা এখন খাদ্য আর বাসস্থানের অভাবে মানবেতর জীবনযাপন করছে, যা কোনোভাবেই মেনে নেওয়া যায় না। সরকার নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যের দাম বৃদ্ধির মাধ্যমে জনগণের ভোটের অধিকারের পাশাপাশি ভাতের অধিকারও কেড়ে নিতে চায়।

জ্বালানি তেলসহ নিত্য প্রয়োজনীয় সকল পণ্যের মূল্য বৃদ্ধির প্রতিবাদে বৃহস্পতিবার (১৮ নভেম্বর) বিকেলে খুলনায় কেন্দ্রীয় বিএনপি ঘোষিত দেড়মাসব্যাপী লিফলেট বিতরণ কর্মসূচির উদ্বোধনকালে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন বকুল। এদিন খুলনা মহানগরীর খালিশপুর থানার অন্তর্গত চিত্রালী সুপার মার্কেট এলাকার পথচারী ও রাস্তার দু’পাশে দোকানে থাকা মানুষের হাতে লিফলেট বিতরণ করেন তিনি।

রকিবুল ইসলাম বকুল বলেন, এই সরকারের বিরুদ্ধে সমাজের সর্বস্তর থেকে আমাদের প্রতিরোধ গড়ে তুলতে হবে। বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের নেতৃত্বে বিএনপি ১৬ কোটি মানুষের অধিকার আদায়ের এই আন্দোলনে তাদের পাশে থাকবে। 

তিনি দাবি করে বলেন, দেশনায়ক তারেক রহমানের বলিষ্ঠ নেতৃত্বেই অচিরেই এই দেশের আপামর জনসাধারণের ভাতের এবং ভোটের অধিকার নিশ্চিত হবে।

খালিশপুর থানা বিএনপি আয়োজিত লিফলেট বিতরণ কর্মসূচিতে থানার সিনিয়র সহ-সভাপতি আবুল কালাম জিয়ার সভাপতিত্বে এবং সাংগঠনিক সম্পাদক বিপ্লবুর রহমান কুদ্দুসের সঞ্চালনায় অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন- খুলনা মহানগর ও জেলা বিএনপি নেতা স ম আব্দুর রহমান, শেখ জাহিদুল ইসলাম, শেখ শাহিনুল ইসলাম পাখি, খান জুলফিকার আলী জুলু, শফিকুল আলম তুহিন, মনিরুল ইসলাম বাপ্পী, আজিজুল হাসান দুলু, শের আলম সান্টু, শেখ সাদী, মুরশিদ কামাল, মাসুদ পারভেজ বাবু, সুলতান মাহমুদ, শেখ ইমাম হোসেন, আবু সাইদ হাওলাদার আব্বাস, মিরাজুর রহমান মিরাজ, কে এম হুমায়ুন কবির, মতলুবুর রহমান মিতুল, হাবিবুর রহমান বিশ্বাস, নিঘাত সীমা, তসলিম উদ্দীন মাস্টার, কালু কোরাইশী, আব্দুল মতিন বাচ্চু, মশিউর রহমান খোকন, শামসুজ্জোহা ডিয়ার, সালাম সরদার, গোলাম মোস্তফা ভুট্টো, শেখ মিজানুর রহমান,নিশাত জামান, আবু সাইদ চেয়ারম্যান, রবিউল ইসলাম রুবেল প্রমুখ।

যুবদল নেতৃবৃন্দের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন- মাহবুব হাসান পিয়ারু, চৌধুরী শফিকুল ইসলাম হোসেন, কাজী নেহিবুল হাসান নেহিম, আব্দুল আজিজ সুমন, সৈয়দ মেহেদী মাসুদ সেন্টু, মোল্লা সোহেল, সোলায়মান মোল্লা, ইঞ্জিনিয়ার শাহিনউদ্দীন, মাহামুদ হাসান বিপ্লব, গাজী সালাউদ্দিন, আমিন আহমেদ, এম এম জসিম, মঈনউদ্দিন নয়ন, খায়রুজ্জামান শামীম, সামাদ বিশ্বাস, নাজমুল হোসেন বাবু, মাহবুবুর রহমান, নাসিম আহমেদ ইমন, মিজানুর রহমান টুলু, পিয়ার সুমন, খলিলুর রহমান, ওমর ফারুক, তামজীদ আহমেদ মিশু, রাকিব, মেহেদী হাসান বাপ্পি, সোহেল হাওলাদার, আহসান আল বাকের, মিজানুর রহমান বাবু, মুজাহিদুল ইসলাম টনি, আরিফুর রহমান আরিফ, জাহিদুল ইসলাম জাহিদ, আসলাম খান লিটন, জুয়েল হাসান, রাকিবুল ইসলাম রাজু, আল আমিন তালুকদার, মো. রানা প্রমুখ।

স্বেচ্ছাসেবক দল নেতৃবৃন্দের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন- একরামুল হক হেলাল, ফারুক হিল্টন, ইউসুফ মোল্লা, খায়রুজ্জামান সজীব, মহিদুল ইসলাম, জাহিদুল ইসলাম বাচ্চু, আলাউদ্দিন তালুকদার, আলামিন সরদার রতন, মোতালেব শেখ, নাইম হাসান হাসিব, সিরাজুল ইসলাম, রিপন সিকদার, আল আমিন শেখ, রফিকুল ইসলাম বাবু, মীর মোঃ আল আমিন, আকরাম হোসেন, সাইদুল ইসলাম, শাহ আলম, সাইদুল ইসলাম তুহিন, নুর ইসলাম প্রমুখ।

ছাত্রদল নেতৃবৃন্দের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন- হেলাল আহমেদ সুমন, ইস্তিয়াক আহমেদ ইস্তি, আব্দুল মান্নান মিস্ত্রি, তাজিম বিশ্বাস, গোলাম মোস্তফা তুহিন, রশিউর রহমান রুবেল, হাসান মাহমুদ, সৈয়দ ইমরান, হেদায়েতুল্লাহ দীপু, রিয়াজুল খান মুরাদ, হেলাল হোসেন গাজী, ফিরোজ আহমেদ, গাজী মনিরুল ইসলাম, আবু জাফর, অনিক আহমেদ, হিমেল গাজী, সাদ্দাদ হোসেন, রাহাত হোসেন, স্বপন রহমাতুল্লাহ, রাশিকুল আনাম রাসু, পারভেজ হোসেন মিজান, আলী আকবর, মাজহারুল ইসলাম রাসেল, মিজানুর রহমান মৃদুল, রাজু আহমেদ, আল আমিন লিটন, শাকিল আহমেদ, মেহেদী হাসান, মারজান হোসেন, অন্তিম বিশ্বাস, টুটুল, সাজিদ, ইয়াসিন মল্লিক, সাকিব রিজভী, হাফিজুর রহমান, সুজন, নিবীড়, তানবীর আহমেদ ময়ন, সাজ্জাদ, রিয়াদ, রনি শেখ, নাজমুল, ইসমাইল হোসেন, আবিদ হাসান, হৃদয়, ইফতি, হাইসাম, বেল্লাল প্রমুখ।

মহিলা দল নেতৃবৃন্দের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন- আজিজা খানম এলিজা, আনজিরা খাতুন, আফরোজা জামান, সামসুন্নাহার লিপি, ফাতেমা বেগম, পাপিয়া পারুল, লুবনা বিউটি, শারমিন, নাসরিন হক শ্রাবণি, সোনিয়া খান, লুবনা ইয়াসমিন, পাপিয়া রহমান পারুল, ইভা জামান, সালমা বেগম, কনা আক্তার প্রমুখ।


আরও পড়ুন