আসছে ভয়াবহ ১০ প্রাকৃতিক দুর্যোগ

Staff Reporter Staff Reporter
প্রকাশিত: ০৬:০৪ পিএম, ২১ মে ২০২০

করতোয়া ডেস্ক : প্রতি বছরই নানান প্রাকৃতিক বিপর্যয়ের সম্মুখীন হচ্ছে বিশ্ব। বিজ্ঞানীর গবেষণায় উঠে এসেছে আরও চাঞ্চল্যকর তথ্য। একবিংশ শতকেও পৃথিবীর উপরে আঘাত হানতে পারে বহু প্রাকৃতিক বিপর্যয়। যার জেরে ধ্বংস হয়ে যেতে পারে আমাদের পৃথিবী। ১। আমেরিকার দাবানল :  হাভার্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিবেশ বিজ্ঞানীরা জানিয়েছে, ২০৫০ সালের মধ্যে বহু বার দাবানলের কবলে পড়বে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের জঙ্গলগুলো। পরিসংখ্যান অনুসারে ওই দেশের জঙ্গলগুলোতে প্রতি বছর গড়ে ৩০ থেকে ৫০ হাজার দাবানল হতে পারে। ২। অগ্ন্যূৎপাত :  বারোয়াবুঙ্গা নামক আগ্নেয় উপত্যকায় ঘটবে অগ্ন্যূৎপাত। যার ফলে আইসল্যান্ডের কাছে হতে পারে ভয়াবহ ভূমিকম্প। একবারে বড় ভূমিকম্প না হলেও কম সময়ের মধ্যে একাধিকার কেঁপে উঠতে পারে ওই এলাকার ভূমি। ৩। চিলিতে ভূমিকম্প : বিজ্ঞানীদের মতে ২০৬৫ সালের মধ্যে বহুবার ভয়াবহ ভূমিকম্পে কেঁপে উঠবে চিলি। এই ভূমিকম্পের তীব্রতা থাকবে গড়ে ৮.২। এর ফলে হতে পারে সুনামি। ৪। জাপানে জোড়া ভূমিকম্প :  ২০২০ সালেই জোড়া ভূমিকম্পে কেঁপে উঠবে জাপান। গবেষকদের মতে রিখটার স্কেলে ২০২০ সালে জাপানে হওয়া জোড়া ভূমিকম্পের তীব্রতা থাকবে। ৫। পর্বতে অগ্ন্যূৎপাত : জাপানের পার্বত্য অঞ্চলগুলোতে হতে পারে ভয়াবহ অগ্ন্যুৎপাত। এর জেরে মারাত্মক ক্ষতি হতে পারে মানবকূলের। ৬। অরেগাঁওতে সুনামি : ২০৬৫ সালের মধ্যে সিসমোগ্রাফ যন্ত্রে আট থেকে নয় তীব্রতা নিয়ে সুনামি ধেয়ে আসতে পারে অরেগাঁওতে। ৭। প্লাবন : মহাকাশ গবেষক সংস্থা নাসার দেওয়া তথ্য অনুসারে ২০৫০ সালের মধ্যে ভয়াবহ প্লাবনের কবলে পড়তে চলেছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের পূর্ব উপকূল। ৮। ক্যারিবিয়ান সাগরে সুনামি : লন্ডন কলেজ বিশ্ববিদ্যালয় এবং ক্যালিফোর্নিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষকদের মতে ভয়াবহ সুনামি দেখা দিতে পারে ক্যারিবিয়ান সাগরে। এর জেরে সমূদ্রগর্ভে তলিয়ে যেতে পারে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের বিস্তীর্ণ অংশ। ৯। ক্যালিফোর্নিয়ায় ভূমিকম্প : বিধ্বংসী ভূমিকম্পের সম্মুখীন হতে চলেছে ক্যালিফোর্নিয়া। রিখটার স্কেলে আট কিংবা তার থেকেও বড় মাপের ভূমিকম্প হতে পারে বলে। এমনই দাবি করেছে ভূমিকম্প গবেষক সংস্থা ইউএসজিএস। ১০। ভয়ানক সৌর ঝড়  : আগামী একদশকের মধ্যেই পৃথিবীর দিকে ধেয়ে আসতে চলেছে ভয়ানক সৌর ঝড়। বিশ্বের প্রায় সমগ্র প্রান্তেই এই ঝড়ের প্রভাব পরবে বলেই আশঙ্কা বিশেষজ্ঞদের।