তালেবানের বিরুদ্ধে আফগান নারীদের বিক্ষোভ অব্যাহত

Online Desk Saju Online Desk Saju
প্রকাশিত: ০৪:৩৫ পিএম, ১৫ সেপ্টেম্বর ২০২১

আফগানিস্তানের ক্ষমতা দখলের পর ক্রমেই নারীদের ওপর দমন নিপীড়ন ও বৈষম্যমূলক আচরণ করে যাচ্ছে তালেবান। গোষ্ঠীটির এমন পদক্ষেপের বিরুদ্ধে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে প্রতিবাদ ও বিক্ষোভ করেছে আফগান নারীরা।

এ বিষয়ে ভূ-রাজনীতি বিশ্লেষক ফ্যাবিয়েন বাউসার্ট টাইমস অব ইসরায়েলে লিখেছেন, কাবুল দখলের আগে তালেবান ঘোষণা দিয়েছিল তাদের শাসনামলে নারীদের অধিকার রক্ষা করা হবে। নারীরা শিক্ষার অধিকার পাবেন এবং তাদের কর্ম ক্ষেত্রে কোনো রকম বাধা সৃষ্টি করবে না গোষ্ঠীটি। কিন্তু ক্ষমতা গ্রহণের পর তালেবান তাদের পূর্বের প্রতিশ্রুতি রক্ষা করেনি। ফলে নারীদের মধ্যে তালেবান বিরোধী মনোভাব স্পষ্ট হয়ে ওঠে। এরই ধারাবাহিকতায় তালেবানের বিরুদ্ধে বিক্ষোভ দেখায় দেশটির নারীরা।

এ ছাড়া আফগানিস্তানে গণমাধ্যমের কণ্ঠরোধ করার চেষ্টা করছে তালেবান। কাবুলে তালেবানের বিরুদ্ধে নারীরা যে বিক্ষোভ অংশগ্রহণ করেছিল সেই বিক্ষোভের খবর প্রচার করায় দেশটির বেশ কয়েকজন সাংবাদিককে আটক করেছে তালেবান। এ ঘটনার প্রেক্ষাপটে বিশ্বব্যাপী সাংবাদিকদের অধিকার নিয়ে কাজ করা সংস্থা কমিটি টু প্রটেক্ট জার্নালিস্টস (সিপিজে) আফগানিস্তানে সাংবাদিকদের গ্রেপ্তার বন্ধ করতে এবং গণমাধ্যমকে স্বাধীনভাবে কাজ করতে দিতে  তালেবানের প্রতি আহ্বান জানিয়েছে।

সিপিজের এশিয়া বিষয়ক সমন্বয়ক স্টিভেন বাটলার বলেন, ‘পূর্বে গণমাধ্যমকে স্বাধীনভাবে কাজ করতে দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দিলেও তালেবানের বর্তমান কর্মকাণ্ড বলে দিচ্ছে তাদের আগের সেই প্রতিশ্রুতি মূল্যহীন।’

তালেবানের নবগঠিত অন্তর্বর্তীকালীন সরকারে কোনো নারীকে রাখা হয়নি। এমন বৈষম্যমূলক কর্মকাণ্ডের প্রতিবাদে গত শুক্রবার দেশটির নারীরা যে বিক্ষোভ করেন তা বানচাল করতে নারীদের ওপর চাবুক ও লাঠি ব্যবহার করে তালেবান। যদিও অফিশিয়ালি তালেবান ওই বিক্ষোভের অনুমতি দিয়েছিল।

বিক্ষোভে অংশ নেওয়া একজন নেতৃত্ব স্থানীয় নারী টাইমস অব ইসরায়েলকে জানান, বিক্ষোভ দমনে লাঠি ও চাবুকের ব্যবহার করে তালেবান সৈন্যরা। তারা (তালেবান) আমাদের ঘরে ফিরে যেতে বলে। এছাড়া বিক্ষোভ বাদ দিয়ে তালেবান সরকারকে মেনে নিতে বলে।

অন্য সাধারণ আফগানরা যেখানে তালেবানের ভয়ে তটস্থ সেখানে আফগান নারীদের এমন দুঃসাহসিক বিক্ষোভ প্রসঙ্গে ফ্যাবিয়েন বাউসার্ট বলেন, দীর্ঘ ২০ বছর মার্কিনীদের অধীনে এইসব নারীরা তাদের মৌলিক অধিকারগুলো ভোগ করে আসছিল। তারা তাদের অধিকারের বিষয়ে সচেতন। আর যখনই তালেবানের দ্বারা তা ক্ষুণ্ন হয়, তখনই শত ঝুঁকি মোকাবিলা করে বিক্ষোভের নামেন আফগান নারীরা।

আফগানিস্তান জাতিসংঘের হয়ে নারীদের জন্য কাজ করা সংস্থার উপপ্রধান অ্যালিসন ডেভিডিয়ান বলেন, তালেবানের অস্পষ্ট নীতির কারণে আফগান নারীরা ভীতির মধ্যে রয়েছেন। কারণ হিসেবে ডেভিডিয়ান উল্লেখ করেন, এই ভীতির পেছনে রয়েছে তালেবানের প্রথম শাসনামলের ঘটনাবলি। যে সময় মারাত্মকভাবে নারীর অধিকার খর্ব করা হয়েছিল। ফলে নতুন করে তালেবানের প্রত্যাবর্তনে ভীতসন্ত্রস্থ হচ্ছে দেশটির নারীরা।

সূত্র: এএনআই