করোনার দ্বিতীয় ঢেউয়ে কেন এতটা বেহাল ভারত? জানাল হু

OnlineStaff OnlineStaff
প্রকাশিত: ০৯:৪২ পিএম, ১০ মে ২০২১

করতোয়া ডেস্ক : টানা ৪ দিন পর ভারতে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ৪ লাখের নিচে নামল। গত ২৪ ঘণ্টায় দেশটিতে আক্রান্ত হয়েছেন ৩ লাখ ৬৬ হাজার ৪৯৯ জন। দেশে দৈনিক মৃত্যুর সংখ্যাও নেমেছে ৪ হাজারের নিচে। সোমবার দেশটিতে ৩ হাজার ৭৪৮ জনের মৃত্যুর সংবাদ পাওয়া গেছে। করোনাভাইরাসে আক্রান্ত ও প্রাণহানির পরিসংখ্যান রাখা ওয়েবসাইট ওয়ার্ল্ডওমিটারের তথ্যানুযায়ী সোমবার পর্যন্ত ভারতে মোট সংক্রমিত হয়েছেন ২ কোটি ২৬ লাখ ৬২ হাজার ৪১০ জন এবং এখন পর্যন্ত মোট মৃত্যু হয়েছে ২ লাখ ৪৬ হাজার ১৪৬ জনের। কিন্তু করোনার দ্বিতীয় ঢেউয়ে ভারতের অবস্থা এতটা বেহাল কেন? সমস্যা কোথায়? উত্তর দিলেন বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা ‘হু’ এর প্রধান বিজ্ঞানী সৌম্য স্বামীনাথন। সংবাদ সংস্থাকে দেওয়া একটি সাক্ষাৎকারে তিনি জানান, হঠাৎ করে জমায়েত বেড়ে যাওয়াই ভারতে করোনার সংক্রমণের অন্যতম কারণ।

 তিনি জানান, ভারতে করোনা ভাইরাসের বি.১.৬১৭ প্রজাতি সক্রিয়। গত অক্টোবরে প্রথম এই প্রজাতির খোঁজ মেলে। আগেই আমেরিকা, ব্রিটেনের মতো কিছু দেশ সেই প্রজাতিকে ‘উদ্বেগজনক’ বলে ঘোষণা করেছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা হু। তার মতে, একটা সময়ের পর ভারতীয়দের মধ্যে মাস্ক ব্যবহারের প্রবণতা কমে গিয়েছিল। জমায়েতের প্রবণতা বেড়ে গিয়েছিল। ফলে প্রথমে সমাজের নিচের স্তরে সংক্রমণ ছড়ায়। এরপর তা ওপরের দিকে ওঠে। এভাবে চলতে থাকলে পরিস্থিতি হাতের বাইরে চলে যাবে বলে সতর্ক করেছেন এই ভারতীয় বিজ্ঞানী। এদিকে ভারতের করোনা পরিস্থিতি নিয়ে উদ্বেগ জানিয়েছেন যুক্তরাষ্ট্রের শীর্ষস্থানীয় সংক্রামক রোগ বিশেষজ্ঞ অ্যান্থনি ফাউচি। মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের এই প্রধান চিকিৎসা উপদেষ্টা বলেছেন, ভারতে সবাইকে টিকা দিতে হবে। দীর্ঘমেয়াদী এই পদক্ষেপই করোনার ছোবল থেকে দেশটিকে সুরক্ষা দিতে পারে। সংবাদমাধ্যমকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে ফাউচি বলেন, এই মুহূর্তে টিকাদান কর্মসূচির ওপরই সবচেয়ে বেশি জোর দেওয়া উচিত দিল্লির। প্রয়োজনে শুধু দেশজ উৎপাদনের ওপর ভরসা না করে বিদেশ থেকেও টিকা আমদানিতে নজর দেওয়া উচিত।