ধোবাউড়ায় কাগজ-কলমেই চলছে কমিউনিটি ক্লিনিকের স্বাস্থ্যসেবা

Staff Reporter Staff Reporter
প্রকাশিত: ০৮:৪৭ পিএম, ২২ আগষ্ট ২০২০

ধোবাউড়া (ময়মনসিংহ) প্রতিনিধি : ময়মনসিংহের ধোবাউড়ায় কর্মরত স্বাস্থ্য সহকারী ও পরিবার কল্যাণ সহকারীদের দায়িত্বহীনতায় কাগজ-কলমেই চলছে উপজেলার প্রত্যন্ত অঞ্চলে নির্মিত হওয়া ২৪টি কমিউনিটি ক্লিনিকের চিকিৎসাসেবা। স্বাস্থ্য সহকারী ও পরিবার কল্যাণ সহকারীরা ক্লিনিকে প্রতিদিন কাগজ-কলমে উপস্থিত থাকলেও দিনের পর দিন থাকছেন অনুপস্থিত। অথচ নিয়ম অনুযায়ী সরকারি ছুটি ব্যতীত প্রতিদিন সকাল ১০টা থেকে বিকাল ৩টা পর্যন্ত ক্লিনিকে উপস্থিত থাকার নির্দেশনা থাকলেও তা মানছে না কেউই। প্রত্যন্ত অঞ্চলের রোগীরা ক্লিনিকে চিকিৎসা নেওয়ার জন্য গেলে ক্লিনিকে কাউকে না পেয়ে সেবা বঞ্চিত হয়ে ক্ষোভ নিয়ে বাধ্য হয়ে অসুস্থ অবস্থায় উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে আসতে হচ্ছে। ক্লিনিকগুলোতে পর্যাপ্ত সরকারি ওষুধ সরবরাহ থাকলেও সাধারণ মানুষের দোরগোড়ায় পৌঁছাচ্ছে না কাক্সিক্ষত সেবা। সরকারি বেতন স্কেলে তিন মাসের প্রশিক্ষণে প্রতি ক্লিনিকে তিনজন করে নিয়োগ দেওয়া হলেও সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের তদারকির অভাবে বর্তমানে এর কার্যক্রম শুধু কাগজ-কলমেই সীমাবদ্ধ।

এনিয়ে সরেজমিন অনুসন্ধান করে জানা যায়, কমিউনিটি ক্লিনিকের হেলথ প্রোপাইটার (সিএইচসিপি) ও দায়িত্বরত চিকিৎসক স্বাস্থ্য কেন্দ্রের নিয়িমিত বসেন না। অনেকেই সপ্তাহে একদিন আবার কেউ কেউ মাসে একদিন এসে স্বাক্ষর দিয়ে চলে যান বলে অভিযোগ করেন প্রত্যন্ত অঞ্চলের চিকিৎসা সেবা বঞ্চিত হওয়া সাধারণ মানুষ। উপজেলার চন্দ্রকোনা গ্রামের আব্দুল শহীদ ক্ষোভ নিয়ে বলেন, ‘আমরা চন্দ্রকোনা কমিউনিটি ক্লিনিক মাসে এহাদ্দিন খুলে, তুবও অফিসে গেলে ওষুধ পাওয়া যানা । বলে ওষুধ নাই, সরকার নাকি ওষুধ দেয় না। অপরদিকে ক্লিনিকে রোগীদের বিতরণের জন্য দেওয়া ওষুধ বিতরণ না করে তা বিক্রি করে দেওয়ার অভিযোগও রয়েছে অনেকের বিরুদ্ধে। এ ব্যপারে উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা মো. আবু হাসান শাহীন বলেন, কমিউনিটি ক্লিনিকে কর্মকর্তাদের দায়িত্বহীনতার বিষয়ে মনিরটরিং চলছে এবং ইতিমধ্যে দুইজনকে শোকজ করা হয়েছে। অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে সঠিক প্রমাণ পাওয়া গেলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।