ডেক্সামেথাসোনের রয়েছে বিপজ্জনক পার্শ্ব প্রতিক্রিয়ার ঝুঁকি!

Online Desk Saju Online Desk Saju
প্রকাশিত: ০১:০৩ পিএম, ২৩ জুন ২০২০

অনলাইন ডেস্কঃ সম্প্রতি অক্সফোর্ডের গবেষকরা পরীক্ষা করে দেখেছেন, ‘ডেক্সামেথাসোন’ প্রয়োগ করে রোগীদের মৃত্যুর হার কমিয়েছে প্রায় ৪১ শতাংশ। এই ওষুধের প্রয়োগে অক্সিজেনের সাহায্য নেওয়া গুরুতর অসুস্থ করোনা আক্রান্তদের মৃত্যুর হার কমেছে প্রায় ২৫ শতাংশ এবং স্থিতিশীল করোনা রোগীদের মৃত্যুর হার প্রায় ১৩ শতাংশ কমেছে।

ডেক্সামেথাসোন আসলে একটি অ্যান্টি-ইনফ্লেমেটরি স্টেরয়েড যা ১৯৬০ সাল থেকেই বাতজনিত সমস্যা, চর্মরোগ, মারাত্মক অ্যালার্জি, হাঁপানি, দীর্ঘস্থায়ী ফুসফুসের রোগের চিকিৎসায় প্রয়োগ করা হয়।

কিন্তু কতটা নিরাপদ এই স্টেরয়েড? এই স্টেরয়েডের সুফল সামনে এলেও এ বার এটির পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া সম্পর্কে সতর্ক করে দিলেন বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকরা। এই স্টেরয়েডের একটি অত্যন্ত সাধারণ পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া হল, 

 ১, এটি শরীরের স্বাভাবিক প্রতিরোধ ক্ষমতাকে দুর্বল করে দেয়। 

২, যাঁদের কিডনির সমস্যা রয়েছে, তাঁদের ক্ষেত্রে এই স্টেরয়েডের প্রয়োগ বিপজ্জনক হতে পারে!

৩, এই ওষুধ সকলের উপর নির্বিচারে প্রয়োগ করা যাবে না। যেমন, এই ডেক্সামেথাসোন প্রয়োগের ফলে হঠাৎ করেই বেড়ে যেতে পারে রক্তের সুগার লেভেল যা ডায়াবেটিসের রোগীদের ক্ষেত্রে প্রাণঘাতীও হয়ে উঠতে পারে।
 
৪,যাঁদের হার্টের সমস্যা রয়েছে, তাঁদের ক্ষেত্রে হাত-পা ফোলা, হঠাৎ করে শ্বাসকষ্ট বেড়ে যাওয়ার মতো সমস্যা দেখা দিতে পারে।

বিশেষজ্ঞদের মতে, করোনা চিকিৎসার ক্ষেত্রে ‘ডেক্সামেথাসোন’ (Dexamethasone) একটি যুগান্তকারী প্রাপ্তি। তবে এটি কখনওই নির্বিচারে প্রয়োগ করা যাবে না। বিশেষত, যাঁদের কিডনির বা হার্টের সমস্যা রয়েছে বা যাঁরা ডায়াবেটিসে আক্রান্ত, তাঁদের ক্ষেত্রে ‘ডেক্সামেথাসোন’ প্রয়োগ বিপজ্জনক হতে পারে!

গত বুধবার (১৭ জুন) বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থাতার প্রধান অ্যাধানম গেব্রিয়েসাস বলেন, অবশেষে করোনাভাইরাস চিকিৎসায় আশার আলো দেখাচ্ছে গবেষণা, যখন কি-না এই ভাইরাসটি কেড়ে বিশ্বের প্রায় পোঁনে চার লাখেরও বেশি প্রাণ। আক্রান্ত হয়েছে প্রায়  ৯২ লাখ।