গর্ভবতী নারীর প্রথম সপ্তাহে যে ৮ লক্ষণ দেখা যায়

Online Desk Online Desk
প্রকাশিত: ০৩:৫৯ পিএম, ২৩ ডিসেম্বর ২০২০

অনলাইন ডেস্ক: প্রত্যেক নারীর জীবনের সুন্দর মুহূর্ত হলো প্রথম সন্তান গর্ভে ধারণ করা। তবে অনাকাঙ্ক্ষিত সন্তান গেলে তা আবার কষ্টের হয়। পেটে সন্তান গেলে বোঝা যায় কিছু লক্ষণে। গবেষণায় দেখা গেছে, গর্ভাবস্থার সময় সব নারীর ক্ষেত্রে একই লক্ষণ দেখা যায় না। যদি তারা একই সময়ই গর্ভবতী হন, তাও না। কিন্তু তাও কিছু কিছু লক্ষণ আপনি অনুভব করলেও করতে পারেন।

চলুন জেনে নিই সে লক্ষণগুলো কী

রক্তক্ষরণ: ঋতুচক্রের মতোনই ৬ থেকে ১২ দিন হাল্কা রক্তপাত হতে পারে। এই লক্ষণ দেখলে প্রেগন্যান্সি পরীক্ষা করে নিন।

মুখে অদ্ভুত স্বাদ: সাধারণত প্রথম সপ্তাহে মুখের মধ্যে ধাতব স্বাদ লক্ষ্য পাওয়া যায়। অনেকসময় মুখে দুর্গন্ধও হয়। গর্ভাবস্থার কারণে শরীরে হরমোনের মাত্রার তারতম্যের কারণে এই তফাৎ হতে পারে।

কালো দাগ: অনেকসময় মুখে বা হাতে-পায়ে কালো কালো দাগ ছোপ দেখা যায়। মূলত একে মেলাস্মা বলে। আসলে গর্ভধারণের সময় ত্বকের সংবেদনশীলতা বেড়ে যায়। এর ফলে চেহারায় এই কালো দাগ-ছোপ দেখা যায়।

স্বপ্ন: বিজ্ঞান বলে সাধারণত গর্ভে সন্তান গেলে নারীরা অতিরিক্ত পরিমাণে স্বপ্ন দেখতে থাকেন। তিনি গর্ভবতী হয়েছেন এমন স্বপ্ন দেখেন। এই ধরণের অস্বাভাবিক স্বপ্ন দেখতে শুরু করলে  প্রেগন্যান্সি পরীক্ষার সময় এসেছে।

মাথা ধরা: গর্ভধারণ করার প্রথম সপ্তাহের শুরুতেই মাথা ব্যথা শুরু হতে থাকে। হরমোনের মাত্রা শরীরে বেড়ে যাওয়ার কারণে এই সমস্যা হয়।

মুড সুইং: হরমোনের আধিক্যের জেরে এই রাগ, এই দুঃখ, কখনও অবসাদ একটু পর আনন্দে ভরে ওঠা। এই ধরনের মুড সুইং হতে থাকে। প্রেগন্যান্সির প্রথম সপ্তাহে যে লক্ষণগুলো দেখা যায় তার মধ্যে অন্যতম এটি।

ক্লান্তি: প্রেগন্যান্সিরর একটি উল্লেখযোগ্য লক্ষণ হলো ক্লান্তি। যেহেতু শরীর এই সময় বাড়ন্ত শিশুকে পুষ্টি দেয়ার জন্য অতিরিক্ত রক্ত উৎপন্ন করে এ কারণে অল্পতে ক্লান্তি আসে। প্রথম সপ্তাহে এই ক্লান্তিভাব বেশী হয়।

মূত্রত্যাগে সমস্যা: প্রেগন্যান্সির সময় শরীর অতিরিক্ত পরিমাণ তরল উৎপাদন করে। এজন্য কিডনি দ্বিগুণ পরিমাণে কাজ করে। সে কারণে অতি ঘন ঘন শৌচাগারে যাওয়া প্রয়োজনীয় হয়ে পড়ে।

সূত্র- ওয়ানইন্ডিয়া