সঙ্গীতেপ্রেমীরা গানের মাঝেই খুঁজবেন আলম খান ও অ্যাণ্ড্রু কিশোরকে

প্রকাশিত: আগস্ট ০২, ২০২২, ০৭:৪৮ বিকাল
আপডেট: আগস্ট ০২, ২০২২, ০৭:৪৮ বিকাল
আমাদেরকে ফলো করুন

অভি মঈনুদ্দীন : বাংলাদেশের নন্দিত সুরস্রষ্টা আলম খান ও প্লে-ব্যাক সম্রাট অ্যাণ্ড্রু কিশোর ছিলেন গুরু শীষ্য আলম খানের সঙ্গে অ্যাণ্ড্রু কিশোরের শেষ দেখা হয় ২০১৯ সালের ২৪ সেপ্টেম্বর। সেদিন সাংবাদিক অভি মঈনুদ্দীনের আয়োজনে এক আড্ডায় অংশ নিয়েছিলেন আলম খান ও অ্যাণ্ড্রু কিশোর। নিজেদের জীবনের ফেলে আসা দিনের গল্পে মেতে উঠেছিলেন তারা দু’জন। আজ দু’জনের কেউই আমাদের মাঝে নেই। কিন্তু তাদের ভক্ত শ্রোতারা গানের মাঝেই তাদের খুঁজে নিবেন যুগের পর যুগ ধরে। শিবলী সাদিক পরিচালিত ‘মেইল ট্রেন’ সিনেমাতে প্রথম প্লে-ব্যাক করেন অ্যাণ্ড্রু কিশোর। তবে সিনেমাটি মুক্তি পায়নি। পরবর্তীতে এজে মিন্টু পরিচালিত ‘প্রতিজ্ঞা’ সিনেমায় দেওয়ান নজরুলের লেখা আলম খানেরই সুর সঙ্গীতে ‘একে চোর যায় চলে পিছনে লেগেছে দারোগা’ গানটি দর্শক প্রথম রূপালী পর্দায় নায়ক আলমগীরের লিপে প্রথম উপভোগ করেন। প্রথম গানেই সারা বাংলাদেশে সাড়া ফেলেন অ্যাণ্ড্রু কিশোর। তারপর সিনেমার গানে অ্যাণ্ড্রু কিশোরের প্লে-ব্যাক সম্রাট হয়ে উঠার ইতিহাস। ১৯৮২ সালে মহিউদ্দিন পরিচালিত ‘বড় ভালোলোক ছিলো’ সিনেমাতে সৈয়দ শামসুল হকের লেখা ‘হায়রে মানুষ রঙ্গিন ফানুস দম ফুরাইলে ঠুস’ গানটি গেয়ে আরো অধিক সাড়া ফেলেন। একই সিনেমায় সঙ্গীত পরিচালনার জন্য আলম খান এবং গান গাওয়ার জন্য শীষ্য অ্যাণ্ড্রু কিশোর প্রথমবার জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারে ভূষিত হন। আলম খান জানিয়েছিলেন অ্যাণ্ড্রু কিশোরকে তিনি প্রথম পারিশ্রমিক দিয়েছিলেন পাঁচশত টাকা। রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাক্তন ছাত্র অ্যাণ্ড্রু কিশোরের জন্ম রাজশাহী শহরের মিশন হাসপাতালে। ওস্তাদ আব্দুল আজিজ বাচ্চুর কাছে শিখেন সঙ্গীতের নানান দিক। ১৯৭৭’এর দিকে রেডিওতে ট্রান্সমিশন সার্ভিসে খুব গুরুত্বপূর্ণ একটা পদে চাকরি করতেন এ এইচ এম রফিক। তিনি একদিন অ্যাণ্ড্রু’কে ঢাকায় আসার কথা বললেন। ঠিক সে সময় শিল্পকলায় কর্মরত মোহাম্মদ শহীদুল ইসলাম একটা প্ল্যান করলেন। প্ল্যানটা ছিলো মফস্বলে যারা প্রমিজিং মডার্ণ সিঙ্গার তাদের স্টার মিউজিক ডিরেক্টর দিয়ে যদি গান  করানো যায়, তাহলে হয়তো ভাল কিছু গানের জন্ম হতে পারে। ভালো কিছু শিল্পীরও জন্ম হতে পারে। এই প্ল্যান অনুযায়ী সংস্কৃতি অঙ্গনে জন্ম নিলেন সুবীর নন্দী, ফরিদা পারভীন, নারগিস পারভীন, প্রবাল চৌধুরী, অ্যাণ্ড্রু কিশোরও। আলম খানের সুরে অ্যাণ্ড্রু কিশোর সর্বশেষ সৈয়দ শামসুল হকের লেখা ‘ফুলের গন্ধের মতো থেকে যাবো তোমার রুমালে’ গানটিতে কন্ঠ দিয়েছিলেন। আলম খানের সুরে অ্যাণ্ড্রু কিশোরের কন্ঠে অধিক জনপ্রিয় গানগুলোর মধ্যে রয়েছে ‘কতো রঙ্গ জানোরে মানুষ’, ‘হায়রে মানুষ রঙ্গিন ফানুষ’, ‘ডাক দিয়াছেন দয়াল আমারে’, ‘ ভালোবেসে গেলাম শুধু’,‘ কারে বলে ভালোবাসা’,‘ চাঁদের সাথে আমি দেবোনা’, ‘জীবনের গল্প আছে বাকী অল্প’, ইত্যাদি।

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, দৈনিক করতোয়া এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়