সুন্দরবনের বাঘ

Staff Reporter Staff Reporter
প্রকাশিত: ০৫:৩৬ পিএম, ১০ মে ২০২০

প্রাণীকূলের মধ্যে সবচেয়ে সুন্দর ও সাহসী প্রাণী বাঘ। সুন্দর বনের রয়েল বেঙ্গল টাইগার তো ব্যাঘ্রকুলের রাজা, যা বাংলাদেশের জাতীয় প্রাণীর মর্যাদাও পেয়েছে। এক সময় সুন্দরবন শুধু নয়, দেশের আরও কিছু বনে ছিল বাঘের অস্তিত্ব। কিন্তু অবৈধ শিকারি ও পাচারকারীদের দাপটে সুন্দরবনের বাইরে দেশের অন্য কোনো অরন্যে বাঘের অস্তিত্ব নেই। তবে সরকারি বিধি নিষেধের কড়াকড়িতে বিশ্বের বৃহত্তম বাদাবন সুন্দরবনেও বাঘের সংখ্যা আরও বাড়ছে। সুন্দরবনে বেড়েছে আটটি বাঘ। সর্বশেষ পরিসংখ্যানে সুন্দরবনে বাঘের সংখ্যা ছিল ৮৮টি। নতুন হিসাবে তা বেড়ে হয়েছে ৯৬টি। তবে বাঘ বৃদ্ধির এ সুখবরটি হলো সুন্দরবনের ভারতীয় অংশে। এদিকে সুন্দরবনের বাংলাদেশ অংশের সর্বশেষ পরিসংখ্যানেও বেড়েছিল আটটি বাঘ। ২০১৮ সালে সুন্দরবনের বাংলাদেশে অংশে বাঘের সংখ্যা ছিল ১১৪টি। যা ২০১৭ সালে ছিল ১০৬টি। ২০১৮ সালের ২২মে এ তথ্য জানিয়েছে বনবিভাগ। সুন্দরবনের বাঘের সংখ্যা প্রতি বছরই বেড়ে চলেছে। আর এতে আশার আলো দেখছেন ব্যাঘ্র বিশেষজ্ঞরা। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, সুন্দরবনের জঙ্গলে বাঘ বৃদ্ধি পাওয়ার অন্যতম কারণ হলো সুন্দরবন বাঘের উপযুক্ত আবাসস্থল এবং সেখানে বা নিরাপদে আছে এটাই প্রমাণ করে। তাছাড়া প্রতিটি বাঘের ‘হ্যারিচুয়াল অ্যাকশন’ সেটিও সুন্দরবনে দারুণভাবে কার্যকরি হচ্ছে। সুন্দরবনের ৪২০০ বর্গকিলোমিটার এলাকার ৩৭০০ এলাকায় বাঘের বিচরণ ক্ষেত্র আছে। বাঘ বাড়াতে গেলে আগামী দিনে ম্যানগ্রোভ বন বাড়াতে হবে। সুন্দরবনের বাঘ রক্ষায় অবৈধ শিকার বা পাচারের বিরুদ্ধে সরকারকে জিরো টলারেন্সে নীতি গ্রহণ করতে হবে। বাঘের অস্তিত্বের স্বার্থে পরিবেশ সুরক্ষার উদ্যোগ নেওয়া জরুরি। সুন্দরবনের আলাদা বৈশিষ্ট্য বজায় রাখার জন্য বাঘের প্রজনন বৃদ্ধির বিষয়টি প্রাসঙ্গিকতার দাবিদার।