পবিত্র ঈদুল আজহা

Staff Reporter Staff Reporter
প্রকাশিত: ০৮:২০ পিএম, ৩০ জুলাই ২০২০

মুসলমানদের অন্যতম বৃহৎ ধর্মীয় উৎসব পবিত্র ঈদুল আজহা আগামীকাল শনিবার। স্বাস্থ্য বিভাগের জারি করা স্বাস্থ্য বিধি ও সামাজিক দূরত্ব মেনে পালিত হবে পবিত্র ঈদ। এজন্য এবার ঈদগাহে ঈদের জামাত না হয়ে মসজিদে হবে নামাজ সামাজিক দূরত্ব মেনে। ঈদুল আজহা কোরবানির ঈদ হিসেবেও পরিচিত। কোরবানি শব্দটির অর্থ ত্যাগ ও নৈকট্য। মহান স্রষ্টার সন্তুষ্টি ও মানব কল্যাণে সর্বোচ্চ আত্মত্যাগ করাই মূলত ঈদুল আজহা বা কোরবানির ঈদের তাৎপর্য। ঈদুল আজহার অন্যতম অনুষঙ্গ পশু কোরবানি। যার সঙ্গে জড়িত ঈমানদারদের আদি পিতা হজরত ইব্রাহিম (আ) ও তার পুত্র হজরত ইসমাইল (আ) এর পবিত্র স্মৃতি। প্রায় পাঁচ হাজার  বছর আগে ইব্রাহিম (আ) তার পুত্র ইসমাইল (আ) কে কোরবানি করার প্রস্তুতি নিয়ে অন্যান্য ত্যাগের আদর্শ স্থাপন করে গেছেন। আল্লাহর নির্দেশেই তিনি ইসমাইল (আ) কে কোরবানি দিতে উদ্যত হয়েছিলেন মক্কার মরু প্রান্তরে। মহান আল্লাহ ইব্রাহিম (আ) এর সংকল্প দেখে তার কোরবানি কবুল করেন এবং ইসমাইল (আ) এর স্থলে একটি দুম্বা কোরবানি মঞ্জুর করেন। এরই সূত্র ধরে গোটা মুসলিম জাহানে আজও চলে আসছে কোরবানির এই ধারা। এর ভেতরে দিয়ে মহান আল্লাহর নৈকট্য লাভের দিকে অগ্রসর হয় মুসলিম জাতি। আজ এমন এক সময়ে ঈদুল আজহা হতে যাচ্ছে যখন বাংলাদেশ সহ সারা বিশ্ব করোনা মহামারিতে আক্রান্ত। দেশ দফায় দফায় বন্যা কবলিত। বাড়িঘর ফসলের মাঠ বন্যার পানিতে ডুবে গেছে। লাখো মানুষ পানি বন্দি। করোনা ভাইরাসের মহামারি চলছে। দেশে এযাবত করোনায় মারা গেছে তিন হাজার আর করোনায় আক্রান্ত হয়েছে দুই লাখ ২৯ হাজার। দেশে মার্চ থেকে চলছে সাধারণ ছুটি। লক ডাউন, যদিও এখন প্রত্যাহার করা হয়েছে। কিন্তু অর্থনীতির চাকা স্থবির। মানুষে মানুষে সৌভ্রাতৃত্ব তৈরি করতে হবে। সবক্ষেত্রে ত্যাগের মহান দৃষ্টান্ত স্থাপন করতে হবে। সেবার মানসিকতা নিয়ে দাঁড়াতে হবে দুস্থ ও আর্ত মানুষের পাশে। এবারের ঈদুল আজহায় আমাদের মধ্যে এমন মানসিকতার প্রতিফলন ঘটবে- এমনটিই প্রত্যাশিত। সবাইকে ঈদ মুবারক।