উত্তরাঞ্চলে বন্যার পদধ্বনি

Staff Reporter Staff Reporter
প্রকাশিত: ০৮:১৪ পিএম, ২৮ জুন ২০২০

করোনার ছোবলে সবকিছু এলোমেলো; তার উপর আবার বন্যার পদধ্বনি উত্তরাঞ্চলবাসীকে দুশ্চিন্তায় ফেলে দিয়েছে। গত কয়েকদিনের অবিরাম বর্ষণ ও ভারত থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢলে তলিয়ে গেছে যমুনার চরাঞ্চলের কৃষকের স্বপ্নের ফসল। চলতি মৌসুমে ক্ষতি কাটিয়ে ওঠার স্বপ্ন দেখতে শুরু করা কৃষকদের সেই স্বপ্ন এখন ভেস্তে গেছে নদীর পানি বৃদ্ধি পাওয়ায়। জেলার চরাঞ্চলে খোঁজ নিয়ে জানা যায়, যমুনায় পানি বৃদ্ধির ফলে চরের শত শত হেক্টর জমির পাট, তিল, বাদাম, ভুট্টা, আউশ, কাউন, আখ ও সবজির ক্ষেত পানিতে তলিয়ে গেছে। তলিয়ে থাকা এসব ফসল পচতে শুরু করেছে এ কারণেই পরিপূর্ণ হওয়ার আগেই ফসল কাটতে শুরু করেছেন অনেক কৃষক। এতে সবচেয়ে বিপাকে পড়েছে অন্যের জমি বর্গা ও চড়া সুদে টাকা নিয়ে চাষাবাদ করা চাষিরা। হঠাৎ নদীতে পানি আসায় কৃষকদের মড়ার উপর খাঁড়ার ঘা হয়ে উঠেছে।

এক সপ্তাহের বৃষ্টিপাতে নদীর পানিতে তলিয়ে গেছে কৃষকের অধিকাংশ জমির ফসল। ফসল এখনও পরিপূর্ণ হয়ে ওঠেনি। অপরিপূর্ণ ফসলগুলো পানিতে তলিয়ে যাওয়ায় উৎপাদন নিয়ে চিন্তিত। পানিতে তলিয়ে থাকা কিছু অংশের ফসল কাটতে শুরু করেছে। যা থেকে অর্ধেক পাটও উৎপাদন হবে কি-না তা নিয়েও সন্দেহ আছে। এর ওপর চলছে নদী ভাঙন। ভাঙনে ভিটেমাটি টিকিয়ে রাখা ও অন্যদিকে জীবিকার ব্যবস্থা নিশ্চিত করা- এ নিয়ে উভয় সংকটে পড়েছে কৃষকরা। চরাঞ্চলের মানুষ চরম দুর্ভোগে দিনাতিপাত করছে। ক্ষতিগ্রস্তদের প্রয়োজনীয় সহায়তার আশ্বাস দেয়া হয়েছে। পানি উন্নয়ন বোর্ড প্রতিনিয়ত নদীর তলদেশ সার্ভে করছে। যাতে কোথাও কোনো ত্রুটি থাকলে তাৎক্ষণিকভাবে ব্যবস্থা নেয়া যায়। বাঁধগুলোর অবস্থা ভালো আছে। আরও জানা যায় কোনো কোনো স্থানে পানি কমতে শুরু করলেও দেখা দিয়েছে জলাবদ্ধতা। এতে এলাকাবাসীর কষ্ট বাড়ছে। সব প্রতিকূলতা মোকাবেলা করার জন্য সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ সচেতন। সকলে সম্মিলিতভাবে উদ্যোগী হলে প্রাকৃতিক দুর্যোগ সহজে মোকাবেলা করা যাবে।