অর্থনীতিতে করোনার বিরূপ প্রভাব

Staff Reporter Staff Reporter
প্রকাশিত: ০৩:০৯ পিএম, ১৯ মে ২০২০

করোনাভাইরাসের ছোবলে বিপর্যস্ত বিশ্ব। বাংলাদেশেও এর সংক্রমণ ঘটছে। আমরা লক্ষ্য করছি, করোনা প্রতিরোধে বাংলাদেশ সরকারের আন্তরিকতার অভাব নেই। এর আগে গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে ব্যবসায়ী নেতাদের সঙ্গে করোনা পরিস্থিতি নিয়ে মতবিনিময়কালে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, আমরা বীরের জাতি, যে কোন দুর্যোগ মোকাবেলা করার মতো সাহস আমাদের আছে। সবাইকে বলব হতাশ বা আতংকিত হলে চলবে না। যে কোন পরিস্থিতি মোকাবেলা করার জন্য সবাইকে প্রস্তুত থাকতে হবে। এদিকে বিশ্বব্যাপী মহামারি রূপ নেওয়া করোনাভাইরাসের আঘাতে স্থবির হয়ে পড়েছে সব ধরনের অর্থনৈতিক কর্মকান্ড। এর প্রভাবে বিশ্বের প্রায় ১৬০ কোটি মানুষ অসহায় হয়ে পড়বে বলে আন্তর্জাতিক শ্রম সংস্থা (আইএলও) সতর্কতা জারি করেছে। আর বিশ্বব্যাংক বলছে, বিশ্বব্যাপী ইকোনমিক গ্রোথ হবে শূন্য। এ অবস্থায় বাংলাদেশের অর্থনীতিতে কি ধরনের প্রভাব পড়ছে তার ওপর একটি পর্যবেক্ষণ প্রতিবেদন তৈরি করেছে সরকার। এতে নেতৃত্ব দিয়েছে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়। ওই পর্যবেক্ষণ প্রতিবেদনের তথ্য মতে, বাংলাদেশে করোনার যে আচমকা আঘাত লেগেছে সেটার রেশ টানতে হবে অনেক বছর। সামনের অন্তত কয়েকটি বছর দেশের অর্থনীতির গতি শ্লথ হয়ে যাবে। আর চলতি বছর কাংখিত জিডিপির প্রবৃদ্ধি অর্জন করা সম্ভব হবে না বলে এতে উল্লেখ করা হয়েছে। আমরা লক্ষ্য করছি, করোনা প্রতিরোধে সরকারের আন্তরিকতার অভাব নেই। দেশের পরিস্থিতি অনুযায়ী একটার পর একটা পদক্ষেপ গ্রহণ করা হচ্ছে। পাশাপাশি আর্থিকভাবে মানুষ যাতে কষ্ট না পায়, সেদিকেও নজর রাখা হচ্ছে। করোনাভাইরাস মানুষ থেকে মানুষের মাঝে ছড়ায়। তাই মানুষের সঙ্গে দূরত্ব বজায় রাখতে হবে। দেশের মানুষ দুর্যোগে পরস্পরের পাশে দাঁড়ায়। অতীতে আমরা অনেক বিপদ মোকাবেলা করেছি পারস্পরিক সহমর্মিতায়। প্রধানমন্ত্রী যেভাবে দেশের প্রতিটি খাতকে চিহ্নিত করে কার্যকর পদক্ষেপ নিচ্ছে তাতে দেশের মানুষের মধ্যে আস্থা ফিরে এসেছে। আমরা অবশ্যই করোনাকে পরাস্ত করতে পারব।