বিদায় আনিসুজ্জামান

Staff Reporter Staff Reporter
প্রকাশিত: ০৩:৪৫ পিএম, ১৬ মে ২০২০

বাঙালির মননের প্রতীক, শিক্ষাবিদ, জাতীয় অধ্যাপক আনিসুজ্জামান আর নেই। গত বৃহস্পতিবার রাজধানীর সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে তিনি ইন্তেকাল করেন (ইন্না লিল্লাহি........রাজিউন)। তার বয়স হয়েছিল ৮৩ বছর। বাংলাদেশের কীর্তিমান এ মানুষটির  মৃত্যুতে গভীর শোকের ছায়া নেমে এসেছে। করোনার দহন নিয়ে সর্বজন শ্রদ্ধেয় এই ব্যক্তিত্বের অনন্তযাত্রায় দেশের সামাজিক, সাংস্কৃতিক, রাজনৈতিক সব পর্যায়ে গভীর শোকের ছায়া নেমে আসে। দীর্ঘ ছয় দশক ধরে আলোকবর্তিকা হাতে দেশের মানুষকে পথ দেখিয়েছেন। অন্ধকার সরিয়ে আলোর পথে ধাবিত করেছেন। শাণিত করেছেন বাঙালি জাতির সৃজনশীলতা, মানবিকতা ও মূল্যবোধ, ভাষা আন্দোলন, মুক্তিযুদ্ধ, মৌলবাদ, স্বৈরাচার বিরোধী আন্দোলনসহ নানা গণতান্ত্রিক আন্দোলনে ক্লান্তিহীনভাবে নিজেকে তিনি সম্পৃক্ত রেখেছেন। দেশ ও জাতির জন্য অক্লান্ত কাজ করা এই আলোর দিশারি চিরঘুমে চলে গেলেন। নিজ প্রতিভাও কাজের মধ্যে দিয়ে অনন্য মানুষ হয়ে উঠেছিলেন অধ্যাপক আনিসুজ্জামান। অসংখ্য মানুষের ‘প্রিয় স্যার’ আনিসুজ্জামানের মৃত্যুতে গভীর শোক ও দুঃখ প্রকাশ করেছেন রাষ্ট্রপতি মোঃ আব্দুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। আমাদের দেশে আমরা যাদের বুদ্ধিজীবী বলি তাদের মধ্যে আনিসুজ্জামান ছিলেন সবচেয়ে তীক্ষè বুদ্ধি, মেধা সম্পন্ন, প্রগতিশীল এবং মুক্ত চিন্তার অধিকারী, যদিও তার পিএইচডির থিসিস ছিল মুসলিম মানস ও বাংলা সাহিত্য বিষয়ে। কিন্তু প্রকৃতপক্ষে তিনি যাদের নিয়ে কাজ করেছেন, ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যা সাগর কিংবা রবীন্দ্রনাথ কিংবা অন্যান্য যা কিছু নিয়ে কাজ করছেন তার মধ্য দিয়ে তার মৌলিক বুদ্ধি বৃত্তি, মৌলিক দৃষ্টিভঙ্গি এবং পান্ডিত্য ফুটে উঠেছে। আমরা তার বিদেহী আত্মার মাগফিরাত কামনা করি। তার স্মৃতি সব সময় আমাদের পথ দেখাবে।