বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে সংকট

Staff Reporter Staff Reporter
প্রকাশিত: ০৭:৩৫ পিএম, ২৪ ফেব্রুয়ারি ২০২১

আবাসিক হলগুলো খুলে দেয়ার আন্দোলন দেশের পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে ছড়িয়ে পড়েছে। করোনা মহামারি প্রকোপের কারণে গত বছরের মার্চ মাসে বন্ধ হয়ে যাওয়ার পর এক বছরের মাথায় এসে হল খুলে দেওয়ার দাবিতে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে যে আন্দোলন শুরু হয়, তাতে যোগ দিয়ে মাঠে নেমে এসেছেন অন্য সরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরাও। এরই মধ্যে ঢাকা (ঢাবি) ও জাহাঙ্গীরনগর সহ (জাবি) কয়েকটি বিশ্ববিদ্যালয়ের হল ফটকের তালা ভেঙে সেখানে প্রবেশ করেছেন তারা। আলাপ-আলোচনা করেও কোনোভাবেই হলগুলোয় শিক্ষার্থীদের প্রবেশ রুখতে পারছেন না বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। আবাসিক হল খোলার দাবিতে রোববার রাজশাহী ও চট্টগ্রাম প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়, ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ে এবং সিলেটের শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে কর্মসূচি পালন করেছেন শিক্ষার্থীরা।

এদিকে দেশের বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে মে মাসের তৃতীয় সপ্তাহ থেকে শ্রেণিকক্ষে স্বাভাবিক শিক্ষা কার্যক্রম শুরু হবে বলে জানিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপুমনি। গত সোমবার তিনি বলেছেন, ২৪মে ঈদুল ফিতরের পর সব বিশ্ববিদ্যালয়ের শ্রেণিকক্ষে পাঠদান শুরু হবে। তার আগে ১৭ মে থেকে ছাত্রাবাসগুলো খুলে দেয়া হবে। কিন্তু আন্দোলনরত বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর শিক্ষার্থীরা বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের কোনো কথায় কান না দিয়ে হলের তালা ভেঙে হলে ঢুকে পড়েছে। পরিবেশ উত্তপ্ত হয়ে উঠেছে। সাধারণত আমরা দেখেছি কোনো বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা একবার কোনো বিষয়ে উত্তপ্ত হলে অন্য বিশ্ববিদ্যালয়গুলো সমর্থন করে তাদের ক্যাস্পাসকেও উত্তপ্ত করে তোলে। আমরা মনে করি, দেশের করোনার সংক্রমণ কমেছে, মৃত্যুহার কমেছে, টিকাদান চলছে। তাই আলোচনায় বসে এ ঘটনার একটা শান্তিপূর্ণ সমাধান জরুরি। দেশের উচ্চ শিক্ষার সুষ্ঠু পরিবেশ নিশ্চিত করার জন্য এর বিকল্প নেই বলেই আমাদের ধারণা। দেশের সংশ্লিষ্ট নীতি-নির্ধারকরা অত্যন্ত বুদ্ধিমত্তার সঙ্গে বিষয়টির সুরাহা করা উচিত।