সড়কে অব্যাহত মৃত্যু

Staff Reporter Staff Reporter
প্রকাশিত: ০৭:১০ এএম, ২৩ ফেব্রুয়ারি ২০২১

সড়ক দুর্ঘটনা আতঙ্কে পরিণত হয়েছে। একের পর এক দুর্ঘটনা ঘটেই চলেছে। রাজধানীসহ দেশের ছয় জেলায় সড়ক দুর্ঘটনায় এক পুলিশ সদস্যসহ ১৩ জনের প্রাণহানি হয়েছে। রোববার এবং শনিবার রাতে এসব দুর্ঘটনা ঘটে। এর মধ্যে বগুড়ায় বাস-ট্রাকের মুখোমুখি সংঘর্ষে ছয়জন নিহত হয়েছে। এছাড়া মুন্সীগঞ্জে দুজন, মাগুরায় একজন, নওগাঁয় একজন, রাজবাড়ীতে এক পুলিশ সদস্য এবং রাজধানীতে পৃথক ঘটনায় দুজন নিহত হয়েছে। মূল্যবান প্রাণ যাচ্ছে সড়ক-মহাসড়কে। দেশের সড়ক পথ যেন মৃত্যুফাঁদে পরিণত হয়েছে। সম্প্রতি পত্রপত্রিকায় প্রকাশিত খবরে জানা গেল, চলতি বছরের জানুয়ারি মাসে দেশে সড়ক দুর্ঘটনা ঘটেছে ৪২৭টি। এতে নিহত হয়েছেন ৪৮৪ জন ও আহত হয়েছেন ৬৭৩ জন। অবাক ব্যাপার, দেশে বর্তমানে ফিটনেসবিহীন গাড়ির সংখ্যা ৪ লাখ ৮১ হাজার ২৯টি। আমরা বলতে চাই, কখনো গাড়ি উল্টে, কখনো মুখোমুখি সংঘর্ষ, আবার একের পর এক সড়কে দুর্ঘটনা ঘটছে এবং বাড়ছে লাশের সংখ্যা।

সঙ্গত কারণেই সামগ্রিক পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ সাপেক্ষে এর ভয়াবহতা আমলে নিতে হবে। একই সঙ্গে সড়ক দুর্ঘটনা রোধে কার্যকর উদ্যোগ গ্রহণ করতে হবে। ধারণ ক্ষমতার চেয়ে বেশি যাত্রী বহন, গতিসীমা মেনে না চলার পাশাপাশি সড়ক পারাপারে পথচারীদেরও নিয়ম মেনে না চলার প্রবণতা আছে। দেশে প্রতিবছর দুর্ঘটনায় ১৮ হাজারেরও বেশি প্রাণহানির ঘটনা ঘটছে। আহত হচ্ছেন সমান সংখ্যক মানুষ। অনেকেই চিরতরে পঙ্গু হয়ে যাচ্ছে। অনেকের পরিবার সর্বস্বান্ত হচ্ছে। কিন্তু সড়কে শৃঙ্খলা ফিরছে না। দেশের সড়কপথে আধুনিক প্রযুক্তির ব্যবহার নেই। সড়ক-মহাসড়কে সিসিক্যামেরা বসানো সম্ভব হয়নি। গতিসীমা অতিক্রমকারী যানবাহনের বিরুদ্ধে তাৎক্ষণিক ব্যবস্থা গ্রহণের কোন সুযোগও নেই। ফলে রাস্তায় উঠেই চালকরা বেপরোয়া হয়ে উঠছে। সবাই দায়িত্বশীলতার পরিচয় দিলে রক্ষা পেত অনেক প্রাণ। পথচারীদেরও দুর্ঘটনা প্রতিরোধে দায়িত্বশীলতার পরিচয় দিতে হবে। সড়ক দুর্ঘটনা রোধে সরকার সমন্বিত উদ্যোগ নেবে-এটাই প্রত্যাশা।