দূষিত শহরে প্রথম ঢাকা

Staff Reporter Staff Reporter
প্রকাশিত: ০৯:০২ পিএম, ২৫ নভেম্বর ২০২০

এবার ভারত-পাকিস্তানকে পেছনে ফেলে বিশ্বের সবচেয়ে দূষিত বায়ুর শহরের স্বীকৃতি পেয়েছে ঢাকা। যুক্তরাষ্ট্র ভিত্তিক গবেষণা প্রতিষ্ঠানের পর্যবেক্ষণ এয়ার কোয়ালিটি ইনডেক্সে (একিউআই) তথ্যে গত ১৯ নভেম্বর দিনের বেশির ভাগ সময় ঢাকার দূষণের স্কোর ছিল ১৯৯। যার অর্থ হচ্ছে এ শহরের বাতাসের মান ‘খুবই অস্বাস্থ্যকর’ এবং এ অবস্থায় শহরের সবাই মারাত্মক বিপজ্জনক স্বাস্থ্য ঝুঁকির মধ্যে রয়েছেন।  ঢাকার পরে দ্বিতীয় স্থানে ছিল পাকিস্তানের লাহোর সেখানে স্কোর ১৬৬। তৃতীয় অবস্থানে থাকা ভারতের মুম্বাইয়ের স্কোর ছিল ১৬৫ একিউআই। প্রতিদিনের বাতাসের মান নিয়ে তৈরি করা একিউআই সূচক একটি নির্দিষ্ট শহরের বাতাস কতটুকু নির্মল বা দূষিত সে সম্পর্কে মানুষকে তথ্য দেয় এবং তাদের জন্য কোন ধরনের স্বাস্থ্য ঝুঁকি তৈরি হতে পারে তা জানায়। একিউআই স্কোর ১৫১ থেকে ২০০ হলে নগরবাসীর প্রত্যেকের স্বাস্থ্যের ওপর প্রভাব পড়তে পারে। বিশেষ করে শিশু, বৃদ্ধ ও অসুস্থরা স্বাস্থ্য ঝুঁকিতে পড়তে পারেন। জনবহুল ঢাকা দীর্ঘদিন ধরে দূষিত বাতাস নিয়ে হিমশিম খাচ্ছে।

মূলত নির্মাণ কাজের নিয়ন্ত্রণহীন ধূলা, যানবাহনের ধোঁয়া, ইটভাটা, প্রভৃতি কারণে রাজধানীতে দূষণের মাত্রা চরম বিপর্যয়ের মধ্যে। আমরা মনে করি, দূষিত শহর হিসেবে যে চিত্র সামনে এসেছে তা শুধু দু:খজনকই নয় বরং উদ্বেগের। দূষণের কবল থেকে রাজধানীকে রক্ষা করতে সমস্যা চিহ্নিত করে তা সমাধানে কার্যকর পদক্ষেপ নেয়ার কোন বিকল্পও নেই। বায়ূ দূষণের শিকার হচ্ছে, সাধারণ মানুষ। নানা অসুখে-বিসুখে ভুগছেন নগরবাসী। চিকিৎসকদের মতে, বায়ু দূষণের কারণে অনেক দুরারোগ্য ব্যাধির জন্ম হতে পারে মানবদেহে। কীভাবে বায়ু দূষণ বন্ধ করা যায় এবং মানুষ মুক্ত বায়ু সেবন করতে পারে, সেদিকে বিশেষ নজর দিতে হবে। রাষ্ট্র যদি এদিকে বিশেষ মনোযোগী না হয় তা হলে জনগণের স্বাস্থ্য ঝুঁকি বেড়ে যাবে এটাই বাস্তবতা। সরকারও এর দায় এড়াতে পারে না। যারা বায়ু দূষণের সঙ্গে জড়িত তাদের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে। এই অবস্থা কোনোভাবেই চলতে দেয়া যায় না।