রায়হানের শরীরে ১১১ আঘাতের চিহৃ পাওয়া গেছে

Online Desk Online Desk
প্রকাশিত: ১২:২৭ পিএম, ১৮ অক্টোবর ২০২০

অনলাইন ডেস্ক: সিলেটের বন্দরবাজার ফাঁড়িতে পুলিশের নির্যাতনে মারা যাওয়া রায়হান আহমদের শরীরে ১১১টি আঘাতের চিহ্ন পেয়েছেন ময়নাতদন্তকারী চিকিৎসকরা। যার মধ্যে ১৪টি গুরুতর ছিল বলে উল্লেখ করা হয়েছে। রিপোর্টে বলা হয়, রায়হানের ২টি আঙুলের নখ উপড়ে ফেলা হয়। মৃত্যুর ২ থেকে ৪ ঘণ্টা আগে এসব নির্যাতন চালানো হয়। এছাড়া তার শরীরে চামড়ার নিচ থেকে প্রায় ২ লিটার রক্ত পাওয়া গেছে। রায়হানের মরদেহর ময়নাতদন্তের প্রাথমিক রিপোর্টে এসব তথ্য উল্লেখ করা হয়েছে।

সিলেট এমএজি ওসমানি মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ফরেনসিক বিভাগ রায়হান আহমদের মরদেহের ময়না তদন্ত করেন। ফরেনসিক বিভাগ থেকে ময়না তদন্তের রিপোর্ট পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই)-এর কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। রায়হান হত্যার ঘটনায় তার স্ত্রীর দায়ের করা মামলার তদন্ত করছে পিবিআই। তবে মৃত্যুর পূর্ণাঙ্গ কারণ ভিসেরা প্রতিবেদন পাওয়ার পর বলা যাবে বলে প্রাথমিক প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়।

প্রসঙ্গত, গত ১১ অক্টোবর ভোররাতে নগরীর আখালিয়ার নেহারিপাড়ার যুবক রায়হান আহমদকে পুলিশ ফাঁড়িতে ধরে এনে নির্যাতন করা হয়। এরপর ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়ার পর তার মৃত্যু হয়। এ ঘটনায় নিহতের স্ত্রী বাদী হয়ে ১২ অক্টোবর কোতোয়ালি থানায় হত্যা মামলা দায়ের করেন। এরপর আকবরসহ ৪ পুলিশকে বরখাস্ত ও ৩ জনকে প্রত্যাহার করা হয়। ১৩ অক্টোবর বিকেল থেকে আজ রোববার এই রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত আকবর পলাতক রয়েছেন। এ ঘটনায় জড়িত এসআই আকবরসহ পলাতক অন্যরা যেন দেশ ছেড়ে পালিয়ে না যেতে পারেন, সেই জন্য দেশের প্রতিটি সীমান্তসহ ইমিগ্রেশনের সতর্কতা জারি করেছে সরকার।