পানিবন্দি ৫০ হাজার মানুষ বন্যা পরিস্থিতির আরও অবনতি

Online Desk Online Desk
প্রকাশিত: ০২:০১ পিএম, ২৯ জুন ২০২০

অনলাইন ডেস্ক: জামালপুরের বন্যা পরিস্থিতি আরও অবনতি হয়েছে। ইতোমধ্যেই দেওয়ানগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কার্যালয়ে পানি ঢুকে পড়েছে। বন্যায় জামালপুর জেলায় পানিবন্দি হয়ে পড়েছেন ৫০ হাজারেরও বেশি মানুষ। গত ২৪ ঘণ্টায় দেওয়ানগঞ্জ উপজেলার বাহাদুরাবাদ ঘাট পয়েন্ট এলাকায় ২৯ সেন্টিমিটার বেড়ে আজ সোমবার (২৯ জুন) সকালে ৬টায় বিপদসীমার ৭৮ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে যমুনার পানি।

জানা গেছে, আজ সকাল ৬টায় বাহাদুরাবাদ ঘাট পয়েন্ট এলাকায় যমুনার পানি ২০ দশমিক ২৮ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। এখানে স্বাভাবিক পানির স্তর হচ্ছে ১৯ দশমিক ৫০।
এদিকে পানি বাড়ার ফলে ইতোমধ্যেই জেলার ৬টি উপজেলা ২৫টি ইউনিয়ন বন্যা কবলিত হয়ে পড়েছে। সবচেয়ে বেশি বন্যায় কবলিত হয়েছে ইসলামপুর ও দেওয়ানগঞ্জ উপজেলা। দেওয়ানগঞ্জ উপজেলার ৮টি ইউনিয়ন ও ইসলামপুর উপজেলার ৭টি ইউনিয়ন এখন পানি নিচে। প্রশাসনের সহযোগিতায় দেওয়ানগঞ্জ ও ইসলামপুর উপজেলার মানুষ নিরাপদ আশ্রয়ের খোঁজে বাড়ি-ঘর ছেড়ে অন্যত্র চলে যাচ্ছে।
এদিকে ইসলামপুর উপজেলার চিনাডুলি ইউপির দক্ষিণ চিনাডুলি, দেওয়ানপাড়া, ডেবরাইপ্যাচ, বলিয়াদহ, পশ্চিম বামনা, বেলগাছা ইউপির কছিমার চর, দেলীপাড়, গুঠাইল, সাপধরী ইউপির আকন্দপাড়া, পূর্ব চেঙ্গানিয়ারসহ নদীপাড়ের আরও বেশকটি গ্রামের বিস্তীর্ণ এলাকায় পানি প্রবেশ করেছে। পার্থশী, নোয়ারপাড়া ও পলবান্দা ইউপির লোকালয়ে বন্যার পানি প্রবেশ করছে।

এদিকে পানি বাড়ায় বকশীগঞ্জের সাধুরপাড়া ইউপির মদনের চর, বিলেরপাড়, ডেরুরবিল, চর গাজীরপাড়া, উত্তর আচ্চাকান্দি, কতুবেরচর,  বাংগালপাড়া, নয়াবাড়ি, চরকামালেরবার্ত্তী, চর আইরমারী গ্রাম, মেরুরচর ইউপির মাইছানিরচর, ভাটি কলকিহারা,  উজন কলকিহারা,  পূর্ব  কলকিহারা,  চিনারচর, বাঘাডুবি, খেওয়ারচর, ঘুঘুরাকান্দি, ফকিরপাড়া, নীলক্ষিয়া ইউনিয়নের গোমেরচর, সাজিমারা, নয়াপাড়া, পাগলাপাড়া গ্রামের নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হয়েছে। এসব গ্রামের প্রায় পাঁচ হাজার মানুষ পানিবন্দি হয়ে পড়েছেন।

এছাড়া সরিষাবাড়ির আওনা, কুলপালচর, কুমারপাড়া, নলসন্ধ্যা, মিরকুটিয়া, কাজলগাঁও, দমোদরপুর, চরপোগলদঘা, কালিপুর, শ্যামপুর, মালিপাড়া, বিন্নাফৈর, টাকুরিয়া,মানিক পোটল, গোবিন্দ পোটল, চর সরিষাবাড়ি, চর নান্দিনা, আদ্রা, ছাতারিয়াসহ বিভিন্ন এলাকার নিম্নাঞ্চলে পানি প্রবেশ করেছে।
জামালপুর জেলা প্রশাসক এনামুল হক  জানান, জেলার সদর ব্যতিত সব উপজেলায় বন্যার পানি ঢুকতে শুরু করেছে। বন্যায় মানুষের কষ্ট লাঘবে প্রয়োজনীয় সব ধরনের সহযোগিতা করা হবে।