মারপিট ও হত্যা প্রচেষ্টা মামলায় বগুড়ার বিতর্কিত আব্দুল মান্নান কারাগারে

প্রকাশিত: সেপ্টেম্বর ২১, ২০২২, ১০:১৬ রাত
আপডেট: সেপ্টেম্বর ২১, ২০২২, ১০:১৬ রাত
আমাদেরকে ফলো করুন

স্টাফ রিপোর্টার: বগুড়ায় মারপিট ও হত্যাচেষ্টার মামলায় ঠিকাদার বিতর্কিত আব্দুল মান্নান আকন্দকে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। আজ বুধবার সকাল ১০টার দিকে সদর আমলী আদালতের অতিরিক্ত চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আহমেদ শাহরিয়ার তারিক তাকে কারাগরে পাঠানোর আদেশ দেন। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন কোর্ট ইন্সপেক্টর সুব্রত ব্যানার্জী।

এর আগে গত ১৪ সেপ্টেম্বর শহরের স্টেশন সড়কে বীর মুক্তিযোদ্ধা হাসেন আলী রেলওয়ের কর্মচারী কল্যাণ ট্রাস্টের মার্কেটের গাড়ি পার্কিংয়ের জায়গায় অবৈধভাবে নির্মিত দোকান উচ্ছেদ করার সময় রায়হান আলী নামে রেলওয়ের এক কর্মচারীকে বেদম মারধর করেন আব্দুল মান্নান ও তার লোকজন। ওই ঘটনায় হত্যাপ্রচেষ্টা, চুরি ও মারপিটের অভিযোগে আহত রায়হানের বাবা হায়দার আলী সরকার ওই মার্কেট নির্মাণের ঠিকাদার আব্দুল মান্নানকে প্রধান আসামি করে ৫২ জনের বিরুদ্ধে সদর থানায় মামলা দায়ের করেন।

সেই মামলায় জামিন নিতে বুধবার সকালে সদর আমলী আদালতে হাজির হন আব্দুল মান্নান আকন্দ। পরে উভয় পক্ষের শুনানি শেষে আদালতের বিচারক অতিরিক্ত চীফ জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট আহমেদ শাহরিয়ার তারিক আব্দুল মান্নানের জামিন আবেদন নামঞ্জুর করে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন। আব্দুল মান্নানের আইনজীবী রেজাউল করিম মন্টু বলেন, আদালতে জামিন আবেদন জানানো হয়েছিল। কিন্তু আদালত জামিনের আবেদন না মঞ্জুর করে আব্দুল মান্নানকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন। কোর্ট ইন্সপেক্টর সুব্রত ব্যানার্জী বলেন, আদালতের আদেশ পাওয়ার পরেই আব্দুল মান্নানকে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

উল্লেখ্য, মামলায় বাদী হায়দার আলী সরকার উল্লেখ করেন গত ১৪ সেপ্টেম্বর ৩ টার দিকে বগুড়ার স্টেশন সড়কে বীর মুক্তিযোদ্ধা হাসেন আলী রেলওয়ে (কর্মচারী) কল্যাণ ট্রাষ্ট সুপার মাকেটে ও আশে পাশে রেলের জায়গায় অবৈধ দখলদারদের উচ্ছেদ করার জন্য রেলওয়ে কর্তৃপক্ষ অভিযান শুরু করে। কর্তৃপক্ষ ওই এলাকায় রেলের জায়গায় আব্দুল মান্নান আকন্দের অবৈধভাবে নির্মানকৃত অনেকগুলো দোকান ভেঙে ফেলে। এ সময় হায়দার আলী সরকারের সেলিনা হোটেলেটি রেলের জায়গায় বৈধভাবে নির্মান হওয়ায় রেল কর্তৃপক্ষ হোটেলেটি না ভাঙ্গায় আসামি আব্দুল মান্নান আকন্দ সহ ১২ জন এজাহার নামীয় আসামিসহ আরও ৩০/৪০ জন অজ্ঞাত আসামি ওই হোটেলে অবৈধ ভাবে প্রবেশ করে বাদি হায়দার আলী সরকারের ছেলে রায়হান কবীরকে হত্যার উদ্দেশ্যে মারপিট করে এবং আব্দুল মান্নান আকন্দ ইট দিয়ে মাথায় আঘাত করে আহত জখম করে। এরপর আসামিরা হোটেলের রেফ্রিজারেট, চেয়ার, থালা বাসুনগ্যাসের চুলা ও টাকা চুরি করে নিয়ে যায় আহত রায়হান কবির কে বগুড়া মোহাম্মদ আলী হাসপাতালে ভর্তি করে চিকিৎসা নেয়া হয়। মামলাটি পরিচালনা করেন বাদি রাষ্ট্রপক্ষে কোর্ট ইন্সপেক্টর (২) জালাল উদ্দিন এবং আসামি পক্ষে এড. মো: রেজাউল করিম মন্টু এবং শুভ্র কুমার প্রাং শুভ।

উল্লেখ্য, আসন্ন জেলা পরিষদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী ডা. মকবুল হোসেনের বিরুদ্ধে আব্দুল মান্নান চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। আব্দুল মান্নান আকন্দ শহরের নামাজগড় প্রত্যাশা হাউজিং এর মুনসুর আলী আকন্দ ওরফে শুকরার ছেলে।

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, দৈনিক করতোয়া এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়