পঞ্চগড় পৌরসভার অধিকাংশ সড়কের বেহাল দশা জনদূর্ভোগ চরমে

১০ বছর ধরে হচ্ছে না রাস্তার সংস্কার কাজ

প্রকাশিত: আগস্ট ০৩, ২০২২, ০৫:৪৭ বিকাল
আপডেট: আগস্ট ০৩, ২০২২, ০৫:৪৭ বিকাল
আমাদেরকে ফলো করুন

পঞ্চগড় প্রতিনিধি: দীর্ঘদিন ধরে সংস্কার না করায় পঞ্চগড় পৌরসভার অধিকাংশ সড়ক চলাচলের অনুপযোগি হয়ে পড়েছে। পিচ উঠে গিয়ে খানাখন্দকে ভরে গেছে অনেক সড়ক। সামান্য বৃষ্টি হলেই ওই সড়ক দিয়ে মানুষজন পায়ে হেটে চলাচল করতে পারছে না।

ফলে চরম দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে স্থানীয় বাসিন্দাদের। রিকশা-ভ্যানও চলছে কচ্ছপ গতিতে। অনেক সময় ছোট এসব যানবাহন উল্টে গিয়ে ঘটছে দূর্ঘটনা। পৌর কর্তৃপক্ষ বলছে, অর্থ বরাদ্দ না পাওয়ায় সড়কগুলো সংস্কার করা যাচ্ছে না। ইতোমধ্যে কিছু বরাদ্দ পাওয়া গেছে। এই বরাদ্দ দিয়ে মাত্র পাঁচ কিলোমিটার সড়ক সংস্কার করা যাবে। ইতোমধ্যে যার দরপত্র আহবান করা হয়েছে। 

পৌরসভা সূত্রে জানা গেছে, ‘ক’ শ্রেণিভুক্ত পঞ্চগড় পৌরসভার আয়তন প্রায় ২২ কিলোমিটার। জনসংখ্যা প্রায় ৬৫ হাজার। পঞ্চগড় পৌরসভার আওতায় প্রায় ১৬০ কিলোমিটার পাকা সড়ক রয়েছে। এর মধ্যে ২০ কিলোমিটার সড়কে আরসিসি ঢালাই করা এবং বাকি প্রায় ১৪০ কিলোমিটার সড়ক পিচ ঢালাই করা।

১৪০ কিলোমিটার সড়কের পুরোটাই সংস্কার করা প্রয়োজন। কিন্তু অর্থ বরাদ্দ সংকটে এসব সড়কের সংস্কার কাজ হচ্ছে না অনেক বছর ধরে। দীর্ঘদিন ধরে সংস্কার কাজ না হওয়ায় চলচলের অনুপযোগি হয়ে পড়েছে অনেক সড়ক। পৌর কর্তৃপক্ষ বলছে, এডিবির অর্থায়নে ইতোমধ্যে এক কোটি টাকার একটি দরপত্র হয়েছে। যা থেকে প্রায় পাঁচ কিলোমিটার সড়ক সংস্কার করা যাবে। অর্থ বরাদ্দ সাপেক্ষে বাকি সড়কের সংস্কার কাজ করা হবে।

পৌর শহরের বিভিন্ন সড়ক ঘুরে দেখা যায়, কায়েতপাড়া স্টেডিয়াম মোড় থেকে পঞ্চগড় বাজার পর্যন্ত সড়কের পিচঢালাই উঠে অধিকাংশ স্থানে খানাখন্দের সৃষ্টি হয়েছে। বীর মুক্তিযোদ্ধা সিরাজুল ইসলাম স্টেডিয়ামের উত্তর পার্শ্বে বন বিভাগের সামনের সড়কে পানি নিষ্কাসনের কোন ব্যবস্থা না থাকায় সামান্য বৃষ্টি হলেই পানি লেগে থাকছে।

এই সড়ক দিয়ে চলাচলকারীরা সকল মানুষ দূর্ভোগে পড়ছেন। এছাড়া বানিয়াপট্টি থেকে কামাতপাড়া, সিনেমা হল রোড থেকে রাজনগড়, বকুলতলা থেকে তুলারডাঙ্গা, ধাক্কামারা পুরনো সড়ক ভবন থেকে নিমনগর সড়কসহ প্রায় প্রতিটি সড়কের এখন বেহাল দশা। রিকশা-ভ্যান, ইজিবাইক, মোটরসাইকেলসহ বিভিন্ন যানবাহন বিকল্প সড়ক দিয়ে চলাচল করছে।

এদিকে পৌর এলাকায় জালাসী মোড় থেকে হাড়িভাসা সড়কের সংযোগস্থলে একটু বৃষ্টি হলেই সড়কের ওপর হাটু পানি জমে থাকে। দু’পাশে পানি নিস্কাসনের ড্রেন থাকলেও সড়কে চেয়ে অনেক উঁচুতে ড্রেন নির্মাণ করায় বৃষ্টির পানি ড্রেনে না গিয়ে সড়কেই জমে থাকছে। 

পৌর এলাকার কায়েতপাড়া এলাকার বাসিন্দা ইউসুফ আলী বলেন, প্রায় পাঁচ বছর আগে স্টেডিয়াম মোড় থেকে পঞ্চগড় বাজার সড়কের সংস্কার কাজ হয়েছিল। এরপর আর কোনো কাজ হয়নি। বর্তমানে সড়কটির পিচঢালাই উঠে প্রায় সব জায়গায় খানাখন্দের সৃষ্টি হয়েছে। এই সড়কটি দিয়ে পায়ে হেটে চলাচল করা যাচ্ছে না। রাস্তা খারাপ হওয়ায় রিকশা চালকরাও এই সড়ক দিয়ে ঢুকতে চায় না। যেতে চাইলেও তারা ডাবল ভাড়া হাকাচ্ছে।

আলমগীর হোসেন নামে শহরের একজন অটো রিকশাচালক বলেন, পৌরসভার রাস্তাগুলোর অবস্থা এত খারাপ হয়েছে যে সেগুলো দিয়ে রিকশা চালানোই কঠিন হয়ে পড়েছে। প্রচন্ড ঝাঁকুনিতে অটো রিকশার বিভিন্ন জিনিস  নষ্ট হচ্ছে।

পঞ্চগড় পৌরসভার নির্বাহী প্রকৌশলী মো. নুরুজ্জামান বলেন, অর্থ বরাদ্দ না থাকায় এসব সড়কের সংস্কার কাজ হচ্ছে না। প্রতিটি সড়ক আরসিসি ঢালাই করা গেলে তা আরও টেকসই হবে। পৌরসভার পক্ষ থেকে ইতোমধ্যে বিভিন্ন প্রকল্পে বরাদ্দের জন্য চাহিদাপত্র দাখিল করা হয়েছে।

পৌরসভার মেয়র জাকিয়া খাতুন বলেন, সড়কগুলো প্রায় ১০ বছর ধরে সংস্কার হয়নি। আমি দায়িত্ব নেওয়ার  পর কোন বরাদ্দ পাইনি। প্রস্তাবনা দাখিল করা হয়েছে। আশা করি এই অর্থ বছরেই প্রয়োজনীয় অর্থ বরাদ্দ পাবো। এর পরই কাজ শুরু করতে পারবো।

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, দৈনিক করতোয়া এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়