বগুড়ায় বিএনপির সমাবেশে গয়েশ্বর

সরকারের দুর্নীতির কারণে শ্রীলংকার অবস্থার দিকে এগোচ্ছে দেশ

প্রকাশিত: মে ১৪, ২০২২, ০৯:১১ রাত
আপডেট: মে ১৪, ২০২২, ০৯:১১ রাত
আমাদেরকে ফলো করুন

স্টাফ রিপোর্টার: বিএনপির জাতীয় স্থায়ী কমিটির সদস্য সাবেক মন্ত্রী গয়েশ্বর চন্দ্র রায় বলেছেন, রাজপথের আন্দোলনের মাধ্যমে গণতন্ত্র পূনঃরুদ্ধার করতে হবে। এ সরকারের দুর্নীতি আর অর্থ পাচারের কারণে এই দেশও শ্রীলংকার মতো অবস্থার দিকে যাচ্ছে। তাই যতো তাড়াতাড়ি সম্ভব কঠোর আন্দোলনের মাধ্যমে এ সরকারের পতন ঘটিয়ে দেশ ও জনগণকে রক্ষা করতে হবে। এটা একমাত্র পারে বিএনপির মতো দলই। এজন্য নেতাকর্মিদের ঐক্যবদ্ধ থাকার আহবান জানান তিনি।


আজ শনিবার বিকেলে বিএনপির কেন্দ্রিয় কর্মসূচির অংশ হিসেবে দ্রব্যমূল্যের উর্ধ্বগতি, বিরোধীদলের নেতাকর্মিদের উপর হামলা, মামলা, গ্রেফতার ও নৈরাজ্যের প্রতিবাদে বগুড়া জেলা বিএনপির উদ্যোগে দলীয় কার্যালয়ের সামনে বিক্ষোভ সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। সমাবেশে সভাপতিত্ব করেন বগুড়া জেলা বিএনপির আহবায়ক ও বগুড়া পৌরসভার মেয়র মোঃ রেজাউল করিম বাদশা।


সমাবেশে বিএনপির জাতীয় স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায় আরও বলেন, দেশ থেকে কোটি কোটি টাকা পাচার হয়েছে। যারা পাচার করেছেন তারা কারা, জনগণ জেনে গেছেন। আর নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যমূল্যের উর্ধ্বগতিতে জনগণের নাভিশ্বাস অবস্থা। সেদিকে দেখার নেই তাদের। বিএনপি জনগণের কথা বলে। জনগণের অধিকার নিয়ে কথা বলে। আর এজন্য দেশের হাজার হাজার নেতাকর্মিদের বিরুদ্ধে মামলা দেয়া হয়েছে। গ্রেফতার করা হয়েছে। এখনও হামলা করা হচ্ছে। তিনি বলেন, এই সরকারের অধীনে কোনো নির্বাচনে যাবে না বিএনপি।


বিক্ষোভ সমাবেশে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন বিএনপি চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা ও কৃষকদলের কেন্দ্রীয় কমিটির সিনিয়র সহ-সভাপতি সাবেক এমপি মোঃ হেলালুজ্জামান তালুকদার লালু, বিএনপির রাজশাহী বিভাগীয় সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক ওবায়দুর রহমান চন্দন।


বিএনপির জাতীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য ও সদর উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান আলী আজগর তালুকদার হেনা এবং জেলা বিএনপির আহবায়ক কমিটির সদস্য কেএম খায়রুল বাশারের সঞ্চালনায় সমাবেশে আরো বক্তব্য রাখেন বগুড়া জেলা বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম আহ্বায়ক এ্যাডঃ এ কে এম সাইফুল ইসলাম, যুগ্ম আহ্বায়ক ফজলুল বারী তালুকদার বেলাল, যুগ্ম আহবায়ক ও বগুড়া-৪ আসনের সংসদ সদস্য মোশারফ হোসেন, বিএনপির জাতীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য ভিপি সাইফুল ইসলাম, জয়নাল আবেদীন চাঁন, কেএম মাহবুবর রহমান হারেজ ও মিসেস লাভলী রহমান, জেলা বিএনপির আহ্বায়ক কমিটির সদস্য এ কে এম আহসানুল তৈয়ব জাকির, এম আর ইসলাম স্বাধীন, এ কে এম তৌহিদুল আলম মামুন, শেখ তাহা উদ্দিন নাহিন, সহিদ উন নবী সালাম, এনামুল কাদির এনাম, মনিরুজ্জামান মনি, সাইদুজ্জামান সাকিল, শহিদুল ইসলাম বাবলু, মাফতুন আহমেদ খান রুবেল, জেলা শ্রমিক দলের সভাপতি আব্দুল ওয়াদুদ, জেলা যুবদলের আহ্বায়ক খাদেমুল ইসলাম খাদেম, যুগ্ম আহবায়ক জাহাঙ্গীর আলম, জেলা ছাত্রদলের সভাপতি আবু হাসান, সাধারণ সম্পাদক নূরে আলম সিদ্দিকী রিগ্যান, বিএনপি নেতা আব্দুর রহিম, মৎস্যজীবী দল নেতা ময়নুল হক বকুল প্রমুখ। সমাবেশে জেলা বিএনপি ও অঙ্গ-সহযোগী সংগঠনের বিভিন্ন পর্যায়ের নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।


এদিকে সমাবেশ ঘিরে দুপুরের পর থেকেই বিএনপি ও অঙ্গ-সহযোগী সংগঠনের বিভিন্ন ইউনিটের নেতাকর্মীরা খন্ড খন্ড মিছিল নিয়ে সমাবেশ স্থলে সমবেত হয়। এক পর্যায়ে শহরের নবাববাড়ি রোডস্থ জেলা বিএনপির কার্যালয়ের উত্তর পাশে ফতেহ আলী বাজার গেট এবং দক্ষিণে নবাববাড়ি সড়কে বিপুল সংখ্যক নেতাকর্মি সমর্থক জড়ো জড়ো হন। ওই সময় মিছিল আর শ্লোগানে মুখরিত হয়ে উঠে সমাবেশ স্থল।

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, দৈনিক করতোয়া এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়