ভাঙ্গুড়ায় দুটি ট্রেন একই লাইনে প্রবেশ, অল্পের জন্য দুর্ঘটনা থেকে রক্ষা

প্রকাশিত: মে ১৪, ২০২২, ০৫:২৮ বিকাল
আপডেট: মে ১৪, ২০২২, ০৫:২৮ বিকাল
আমাদেরকে ফলো করুন

ভাঙ্গুড়া (পাবনা) প্রতিনিধি : পাবনার ভাঙ্গুড়ায় অল্পের জন্য আন্ত:নগর ধুমকেতু ও দ্রুতযান এক্সপ্রেস ট্রেন  দুটি মুখোমুখি সংঘর্ষ থেকে রক্ষা পেয়েছে কয়েকশ’ যাত্রী।

গতকাল শুক্রবার দিবাগত রাত প্রায় ১ টার দিকে উপজেলার বড়ালব্রিজ রেলস্টেশনে এ ঘটনা ঘটে। এ কারণে আধাঘন্টা বিলম্বে ঢাকার উদ্দেশে ছেড়ে যায় আন্তঃনগর ধুমকেতু এক্সপ্রেস ট্রেনটি।  

ট্রেনের যাত্রী ও স্টেশন সূত্রে জানা গেছে, গতকাল শুক্রবার দিবাগত রাত প্রায় ১ টার দিকে ঢাকা- পঞ্চগড়গামী আন্ত:নগর দ্রুতযান এক্সপ্রেস ট্রেনটি বড়ালব্রিজ স্টেশন সংলগ্ন ২২ নং  রেলব্রিজ অতিক্রমকালে  বিপরীত দিক থেকে রাজশাহী - ঢাকাগামী আন্ত:নগর ধুমকেতু এক্সপ্রেস ট্রেনটি ভাঙ্গুড়া স্টেশন থেকে লাইন ক্লিয়ার নিয়ে  বড়ালব্রিজ স্টেশনের দিকে একই লাইন দিয়ে ছুটে আসছিল। এ অবস্থায় ঢাকা- পঞ্চগড়গামী দ্রুতযানের চালক বিপরীত দিক আসা ট্রেনের আলো দেখতে পেয়ে  ট্রেনটি রেলব্রিজ স্টেশনের ওপর দ্রুত থামিয়ে দেন। এতে মুখোমুখি সংঘর্ষ থেকে রক্ষা পায় ট্রেন দুটির কয়েকশ’ যাত্রী। এ ঘটনায় উভয় ট্রেনের যাত্রীদের চিৎকার হৈ চৈ শুরু করলে তাদের  মাঝে আতঙ্ক দেখা দেয়।

এমতবস্থায়  রাজশাহী -ঢাকাগামী আন্তঃনগর ধুমকেতু ট্রেনটি ভাঙ্গুড়া স্টেশনে ফিরে গিয়ে এক নম্বর ইয়ার্ডলাইনে অবস্থান নিলে দ্রুতযান ট্রেনটি দুই নম্বর লাইন দিয়ে থরু পাস করে। মূলত ভাঙ্গুড়া স্টেশন মাস্টারের ভুল সিগন্যালের কারণে ট্রেন দুটির আধাঘন্টা যাত্রা বিরতি ও দুর্ঘটনা কবলিত হচ্ছিল। যা ট্রেন দুটির চালকদের বুদ্ধিমত্তার কারণে দুর্ঘটনা থেকে অল্পের জন্য রক্ষা পায়।

এ বিষয়ে ভাঙ্গুড়া স্টেশন মাস্টার হাবিবুর রহমান  বলেন, কম্পিউটার সিগন্যাল বন্ধ হয়ে যাওয়ায় ধুমকেতু এক্সপ্রেস ট্রেনটি স্টেশনে আটকে থাকে। ২০ মিনিট পর কম্পিউটার চালু করা গেলে ট্রেনটি ঢাকার উদ্দেশে ছেড়ে যায়।

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, দৈনিক করতোয়া এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়