বরিশালে ঘুমন্ত শাশুড়িকে গলাকেটে হত্যা, সন্দেহে আটক পুত্রবধূ

প্রকাশিত: মে ১২, ২০২২, ১২:৫৭ দুপুর
আপডেট: মে ১২, ২০২২, ১২:৫৭ দুপুর
আমাদেরকে ফলো করুন

বরিশালের বাকেরগঞ্জ উপজেলায় লাবণ্য আক্তার নামের এক নারীর বিরুদ্ধে তাঁর ঘুমন্ত শাশুড়িকে গলাকেটে হত্যার অভিযোগ উঠেছে। উপজেলার রঙ্গশ্রী ইউনিয়নের কাঁঠালিয়া গ্রামে গতকাল বুধবার রাত সাড়ে ১০টার দিকে এ ঘটনা ঘটে। ঘটনার সাথে জড়িত সন্দেহে নিহতের পুত্রবধূ লাবণ্য আক্তারকে (২১) জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করেছে পুলিশ।

নিহত নারীর নাম নাজনীন বেগম (৫০)। তিনি কাঁঠালিয়া গ্রামের মৃত হানিফ হাওলাদারের স্ত্রী। এবং অভিযুক্ত লাবণ্য নিহত নাজনীন আক্তারের বড় ছেলে উজ্জ্বল হাওলাদারের স্ত্রী।

নাজনীনের ভাসুর মো. কালাম হাওলাদার বলেন, ‘গতকাল বুধবার রাতে নাজনীনের ছেলে উজ্জ্বল ফোন দিয়ে জানায় যে, তাঁর মা ফোন ধরছে না। আমাকে ঘরে গিয়ে তাঁর মায়ের খোঁজ নিতে বলে। পরে নাজনীনদের ঘরের সামনের দরজা বন্ধ দেখে পেছনের খোলা দরজা দিয়ে ঢুকি। ওই সময় চৌকির পাশে মশারিতে প্যাঁচানো এবং রক্তাক্ত অবস্থায় নাজনীনের মরদেহ দেখতে পাই। পরে পুলিশকে খবর দেই।’

বাকেরগঞ্জ থানার ওসি আলাউদ্দিন মিলন জানান, পারিবারিক নানা কারণে শাশুড়ির সাথে বনিবনা হচ্ছিল না পুত্রবধূ লাবণ্যর। ঘটনার পর ভেজা কাপড়ে ঘর থেকে বেড়িয়ে যায় লাবণ্য। সব কিছু মিলিয়ে সন্দেহের তীর তার দিকেই যাচ্ছে। তাই জিজ্ঞাসাবাদের জন্য রাতে তাকে আটক করা হয়েছে।

স্থানীয় ইউপি সদস্য শামিম হাওলাদার জানান, নাজনীন আক্তারের দুই ছেলে উজ্জ্বল হাওলাদার ও রাজু হাওলাদার চাকরির সুবাদে রাজধানীতে থাকেন। ঈদের ছুটিতে দুই ভাই বাড়িতে আসলেও ১০ মে কর্মস্থল ঢাকায় ফিরে যায়। গ্রামের বাড়িতে শাশুড়ি ও পুত্রবধূ বসবাস করতেন। বুধবার রাত ১০টার দিকে মা নাজনীন আক্তারের মোবাইলে কল করেন উজ্জ্বল। কিন্তু তিনি ফোন না ধরায় চাচা কালাম হাওলাদারকে ফোন করে মায়ের খোঁজ নিতে বলেন। কালাম ভাতিজার কথামতো তাদের বাড়িতে গিয়ে ঘরের সামনের দরজা বন্ধ দেখেন। কিন্তু পেছনের দরজা খোলা ছিল। সেখান দিয়ে ঘরে ঢুকে রক্তাক্ত অবস্থায় নাজনীন আক্তারের মরদেহ দেখতে পেয়ে পুলিশকে জানান কালাম হাওলাদার।

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, দৈনিক করতোয়া এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়