উদ্বোধনের আর মাত্র
০০
দিন
০০
ঘণ্টা
০০
মিনিট
০০
সেকেন্ড

সুনামগঞ্জে পানি কমলেও দুর্ভোগ কমেনি

প্রকাশিত: জুন ২১, ২০২২, ০৬:১৫ বিকাল
আপডেট: জুন ২১, ২০২২, ০৬:১৫ বিকাল
আমাদেরকে ফলো করুন

সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি: সুনামগঞ্জ শহরের ঘরবাড়ি ও রাস্তা ঘাট থেকে পানি নামতে শুরু করেছে কিন্তু দুর্ভোগ কমেনি। গত কয়েক দিন যেখানে নৌকার অভাবে কেউ যেতে পারেননি এখন সড়ক দিয়েই সেখানে যাওয়া যাচ্ছে। এমনকি সোমবার বিকেলে শহরের ৫০ শতাংশ এলাকায় বিদ্যুৎ সংযোগ দেওয়া হয়েছে।

উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢলে সুনামগঞ্জ শহরসহ তলিয়ে যায় ১২টি উপজেলা। ফলে পানিবন্দি হয়ে পড়েন ১২ লাখেরও বেশি মানুষ। যা অতীতের সব বন্যাকে হার মানিয়েছে। বর্তমানে শহরের মূল সড়ক ও ঘরবাড়ি থেকে পানি নামতে শুরু করেছে। খুলতে শুরু করেছে দোকানপাট, চলতে শুরু করেছে যানবাহন। তবে দুর্ভোগ কমেনি বন্যা কবলিত মানুষের। তাদের মধ্যে রয়েছে হাহাকার, কান্না আর ত্রাণের জন্য আর্তনাদ। বন্যা পরিস্থিতির উন্নতি হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে বিদ্যুৎ পরিস্থিতিও স্বাভাবিক হচ্ছে। অনেক জায়গায় মুঠোফোনের নেটওয়ার্কও পাওয়া যাচ্ছে।

পানিবন্দি মানুষেরা জানান, দোকান পাট খুললে কী হবে, বন্যার সময় সব কিছুর দাম বাড়িয়ে দিয়েছেন ব্যবসায়ীরা। এটা নিয়ন্ত্রণ করার কেউ নেই। সরকারের অনেক সহযোগিতা করার কথা শুনেছি কিন্তু আমরাতো কোনো সহযোগিতা এখনও পাইনি।

পানিবন্দি জমির মিয়া বলেন, পাঁচ দিন ধরে ভাত না খেয়ে আছি। শুধু শুকনা খাবার খেয়ে কোনো রকম বেঁচে আছি। তবে কষ্টের বিষয় কিছু দোকানি মোমবাতি ও মুড়ির দাম দ্বিগুণ করে দিয়েছে।

পানিবন্দি জমসেদ মিয়া বলেন, শহরের পানি কমলে কী হবে, আমাদের দুর্ভোগতো কমেনি। ওয়াসিম মিয়া বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আপনি সুনামগঞ্জে আসেন, দেখে যান আপনার দেশের মানুষ কতটা কষ্টে আছে। না খেয়ে আছে।

সুনামগঞ্জের জেলা প্রশাসক মো. জাহাঙ্গীর হোসেন জানান, আমরা বন্যা কবলিত মানুষদের উদ্ধারের চেষ্টা করছি। সব জায়গায় ত্রাণ সামগ্রী পৌঁছে দেওয়ার চেষ্টা করছি। 

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, দৈনিক করতোয়া এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়