উদ্বোধনের আর মাত্র
০০
দিন
০০
ঘণ্টা
০০
মিনিট
০০
সেকেন্ড

নেত্রকোনায় বন্যা পরিস্থিতি অপরিবর্তিত

প্রকাশিত: জুন ২১, ২০২২, ০৫:৫৯ বিকাল
আপডেট: জুন ২১, ২০২২, ০৫:৫৯ বিকাল
আমাদেরকে ফলো করুন

নেত্রকোনা প্রতিনিধি: নেত্রকোনার কলমাকান্দা, দুর্গাপুর, বারহাট্টা ও খালিয়াজুরি উপজেলায় বন্যা পরিস্থিতি অপরিবর্তিত রয়েছে। পানিবন্দি হয়ে পড়েছে প্রায় সাড়ে ১২ লক্ষাধিক মানুষ। ১০ উপজেলার ৬৩টি ইউনিয়ন প্লাবিত হয়েছে। বন্যার পানিতে অসংখ্য রাস্তাঘাট, ঘরবাড়ি, ব্যবসা প্রতিষ্ঠান, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান তলিয়ে গেছে। অসংখ্য পুকুরের মাছ বন্যার পানিতে ভেসে গেছে। সবচেয়ে বেশি খারাপ অবস্থা কলমাকান্দা, দুর্গাপুর, বারহাট্টা ও খালিয়াজুরি উপজেলার।

বন্যায় গ্রামীণ সড়ক পানিতে তলিয়ে যাওয়ায় বিভিন্ন ইউনিয়নের সঙ্গে সড়ক যোগাযোগ ব্যবস্থা বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে। বানভাসী মানুষের দুর্ভোগ চরম আকার ধারণ করেছে। তাদের অভিযোগ তারা প্রয়োজনীয় ত্রাণসামগ্রী পাচ্ছেন না। স্থানীয় প্রশাসন বন্যা দুর্গতদের দুর্ভোগ লাঘবে জেলার বিভিন্ন ইউনিয়নে ৩২৯টি আশ্রয়কেন্দ্র খুলেছে। এসব আশ্রয় কেন্দ্রে ১ লাখ ১৫ হাজার ৯২৩ জন আশ্রয় নিয়েছে।

নেত্রকোনা পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী এম এল সৈকত জানান, কংশ নদীর জারিয়া পয়েন্টে ৪ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে এবং কলমাকান্দা উপজেলার উব্দাখালি ও মহাদেও নদীর পানি বিপৎসীমার ৮০ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। খালিয়াজুরীর ধনু নদের পানি ৮০ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে।

এ ব্যাপারে নেত্রকোনার জেলা প্রশাসক অঞ্জনা খান মজলিশ বলেন, নেত্রকোনা জেলায় বন্যা দূর্গতদের জন্য সরকারের পক্ষ থেকে এ পর্যন্ত ১৩ লাখ নগদ টাকা, ৩৩৩ মেট্রিক টন চাল ও ৪ হাজার ৯৫০ প্যাকেট শুকনো খাবার বরাদ্দ পাওয়া হয়েছে। এর মধ্যে বন্যা দূর্গত লোকজনের মাঝে ১৩১ মেট্রিক টন চাল, ৩ লাখ ৫ হাজার টাকা ও ২ হাজার ৩শ শুকনো খাবারের প্যাকেট বিতরণ করা হয়েছে। 

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, দৈনিক করতোয়া এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়