নেইমারের হ্যাটট্রিকে পেরুকে উড়িয়ে দিল ব্রাজিল

Online Desk Saju Online Desk Saju
প্রকাশিত: ০৩:৪০ পিএম, ১৪ অক্টোবর ২০২০

গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচে জ্বলে উঠলেন দলের সেরা তারকা নেইমার। হ্যাটট্রিক করলেন বিশ্বের সবচেয়ে দামি ফুটবলার। তাঁর সঙ্গে জালের দেখা পেয়েছেন রিচার্লিসন। ফলে পেরুর মাঠ থেকে দুর্দান্ত জয় তুলে নিল পাঁচবারের বিশ্বচ্যাম্পিয়ন ব্রাজিল।

পেরুর এস্তাদিও ন্যাসিওনাল দে লিমায় আজ বুধবার সকালে অনুষ্ঠিত কাতার বিশ্বকাপের বাছাই পর্বের ম্যাচে পেরুকে ৪-২ গোলে হারিয়েছে ব্রাজিল। এ নিয়ে বিশ্বকাপের বাছাই পর্বের ম্যাচে টানা দ্বিতীয় জয় পেল তিতের দল। এর আগে নিজেদের প্রথম ম্যাচে বলিভিয়াকে হারিয়ে মিশন শুরু করেছিল সেলেসাওরা।

পেরুর বিপক্ষে ম্যাচের শুরুটা ছিল হতাশার। নিজেদের ভুলে ম্যাচের শুরুতেই গোল খেয়ে বসে ব্রাজিল। ষষ্ঠ মিনিটে ব্রাজিলের ডি-বক্সে সতীর্থকে বল বাড়ান পেরুর ডিফেন্ডার। বল ক্লিয়ার করতে গিয়ে উল্টো প্রতিপক্ষের খেলোয়াড় আন্দ্রে কারিয়োর পায়ে বল তুলে দেন মার্কিনিয়োস। সুযোগ পেয়ে দারুণ ভলিতে জাল খুঁজে নেন কারিয়োর।

একটু পরেই আরেকটি হোঁচট খায় ব্রাজিল। ব্যথা পেয়ে মাঠ ছাড়েন মার্কিনিয়োস। পিছিয়ে পড়ার চাপ কাটিয়ে ম্যাচের ২৮ মিনিটে সমতায় ফেরে ব্রাজিল। প্রতিপক্ষের ডি-বক্সে নেইমারের জার্সি ধরে টান দিয়ে বাধা দেন পেরুর মিডফিল্ডার ইয়োতুন। সঙ্গে সঙ্গে পেনাল্টির বাঁশি বাজান রেফারি। পেনাল্টির সুযোগ পেয়ে সফল স্পট কিকে স্কোরলাইন ১-১ করেন পিএসজি তারকা।

ম্যাচের ৫৯ মিনিটে ফের এগিয়ে যায় পেরু। এই গোলেও ভুল ছিল ব্রাজিলের। বল ক্লিয়ার করতে গিয়ে প্রতিপক্ষে খেলোয়াড়ের পায়ে তুলে দেন রদ্রিগো। সেখান থেকে ডি-বক্সে বল পেয়ে লক্ষ্যভেদ করেন রেনাতো তাপিয়া।

এগিয়ে যাওয়ার সুফল বেশিক্ষণ ধরে রাখতে পারেনি পেরু। একটু পরেই সমতায় ফেরে ব্রাজিল। ৬৪তম মিনিটে নেইমারের দূরের পোস্টে নেওয়া কর্নারে হেড নেন ফিরমিনো। তাঁর হেড লক্ষ্যেই ছিল। তবুও ঝুঁকি না নিয়ে গোলপোস্টের মুখে হালকা ছোঁয়ায় নিশ্চিত করেন রিচার্লিসন। গোল নিয়ে দ্বিধায় ছিল প্রতিপক্ষ। পরে ভিএআর দেখে নিশ্চিত করেন রেফারি।

আক্রমণে ধার বাড়িয়ে ৮৩ মিনিটে প্রথম এগিয়ে যায় ব্রাজিল। ডি-বক্সে ফাউলের শিকার হলে পেনাল্টি পায় ব্রাজিল। পেনাল্টি থেকে ব্রাজিলকে এগিয়ে নেন নেইমার।

যোগ করা সময়ে আরেকবার দৃশ্যপটে আসেন নেইমার। এবার পূরণ করেন হ্যাটট্রিক। ৯৪ মিনিটে নিজের তৃতীয় গোল করে ব্রাজিলকে দারুণ জয় উপহার দেন বিশ্বের সবচেয়ে দামি ফুটবলার। তাতে স্বস্তির জয় নিয়ে মাঠ ছাড়ে পাঁচবারের বিশ্বচ্যাম্পিয়নরা।


আরও পড়ুন