শিরোপার রাতে লিভারপুলের জয়

Online Desk Saju Online Desk Saju
প্রকাশিত: ০৪:৪৫ পিএম, ২৩ জুলাই ২০২০

অনলাইন ডেস্কঃ করোনাভাইরাসের কারণে সমর্থকদের ঘরে থাকার অনুরোধ করেছিল লিভারপুল। কিন্তু তা শোনানো গেল না। অনুরোধ উপেক্ষা করে তারা হাজির অ্যানফিল্ডের আশপাশে। আতশবাজি ফোটানো শুরু ম্যাচের আগে। চ্যাম্পিয়ন লিভারপুলকে অভিনন্দন বার্তা লেখা ব্যানার নিয়ে আকাশে উড়ল বিমানও। এমন উদযাপনের রাতে চেলসির বিপক্ষে ৫-৩ গোলের রোমাঞ্চকর জয় পেয়েছে ইয়ুর্গেন ক্লপের দল। এই জয়ে ৩৭ ম্যাচে ৯৬ পয়েন্ট হলো তিন দশকের অপেক্ষা ঘুচিয়ে শিরোপা জেতা লিভারপুলের।
প্রতিপক্ষের মাঠে হেরে চ্যাম্পিয়ন্স লিগের জন্য অপেক্ষা বাড়ল চেলসির। পয়েন্ট পেলেই ইউরোপ সেরার মঞ্চের পরের আসর নিশ্চিত হয়ে যেত তাদের।

রেকর্ড সাত ম্যাচ হাতে রেখে লিগ শিরোপা অনেক আগে নিশ্চিত হলেও ট্রফিটি এতদিন বুঝে পায়নি লিভারপুল। চেলসি ম্যাচের পর পেলো। দলটির কিংবদন্তি কেনি ডালগ্লিস উত্তরসূরিদের হাতে তুলে দেন শিরোপা।

চেলসির বিপক্ষে আধিপত্য ধরে রাখল ‘অলরেড’রা। লিভারপুলের বিপক্ষে আগের দশ লিগ ম্যাচে মাত্র একবারই জয়ের স্বাদ পেয়েছিল চেলসি; ২০১৮ সালের মে মাসে, স্ট্যামফোর্ড ব্রিজে। বাকি নয় ম্যাচের চারটি জিতেছিল লিভারপুল; পাঁচটি হয়েছিল ড্র।

খেলার ২৩ মিনিটে নাবি কেইটার শট ক্রসবারের ভেতরের দিকে লেগে জালে জড়ায়। এগিয়ে যায় লিভারপুল।

প্রথমার্ধে আরও দুই গোল করে ম্যাচে চালকের আসনে বসে যায় লিভারপুল। ৩৪ মিনিটে ট্রেন্ট-আলেক্সান্ডার আর্নল্ডের বাঁকানো ফ্রি কিকে লক্ষ্যভেদ করেন। ৪৩ মিনিটে কর্নারের পর ডি-বক্সে বল পেয়ে সুযোগ সন্ধানী শটে স্কোরলাইন ৩-০ করেন ভেইনালডাম।

অলিভিয়ে জিরুদের গোলে প্রথমার্ধের যোগ করা সময়ে ব্যবধান কমায় চেলসি। সতীর্থের ক্রসের পর উইলিয়ানের শট গোলরক্ষক ফেরালেও পুরোপুরি বিপদমুক্ত করতে পারেননি। ফিরতি প্রচেষ্টায় লক্ষ্যভেদ করেন জিরুদ।

৫৫ মিনিটে আলেক্সজান্ডার-আর্নল্ডের ক্রসে রবের্ত ফিরমিনো হেডে জাল খুঁজে নিলে বড় জয়ের পথে ছুঁটতে থাকে লিভারপুল। ছয় মিনিট পর ক্রিস্টিয়ান পুলিসিকের ক্রসে ট্যামি আব্রাহামের শট ঝাঁপিয়ে পড়া আলিসনকে ফাকি দিলে স্কোরলাইন হয় ৪-২। ম্যাচে ফেরে কিছুটা উত্তেজনা। একটু পর আলিসনকে একা পেয়েও ব্যবধান কমাতে পারেননি পুলিসিক।

তার ৭৩ মিনিটের গোলে জমে ওঠে ম্যাচ। ক্যালাম হাডসন-ওডোইয়ের বাড়ানো উঁচু ক্রস বুক দিয়ে নামিয়ে দেশে শুনে নিখুঁত শটে লক্ষ্যভেদ করেন ২১ বছর বয়সী এই ফরোয়ার্ড।

৮৪ মিনিটে প্রতি-আক্রমণ থেকে ব্যবধান বাড়িয়ে নেয় লিভারপুল। ফ্রি কিক ফেরানোর পর সাদিও মানের পা হয়ে বল পেয়ে যান রবার্টসন। বাঁ দিক দিয়ে আক্রমণে উঠা এই ডিফেন্ডারের ক্রস থেকে পাওয়া বল দারুণ শটে জালে জড়িয়ে দেন অ্যালেক্স অক্সলেড-চেম্বারলেইন।

রোমাঞ্চকর লড়াইয়ে জিতে দারুণ এক রেকর্ডও গড়ল লিভারপুল। লিগের এক মৌসুমে নিজেদের সবচেয়ে বেশি ৩১ জয়।


আরও পড়ুন