‘বছরে তিনটি করে পাক-ভারত ম্যাচ হওয়া উচিত’

Online Desk Saju Online Desk Saju
প্রকাশিত: ০৩:৫৬ পিএম, ২৫ অক্টোবর ২০২১

আইসিসি আয়োজিত ইভেন্ট ছাড়া প্রায় ৮ বছর ধরে মাঠে পাক-ভারত দ্বিপাক্ষিক লড়াই নেই। কিন্তু এই দুই চিরপ্রতিদ্বন্দ্বীর লড়াই দেখতে সারাবছরই উন্মুখ হয়ে থাকেন ক্রিকেট ভক্তরা। দুই দেশের মধ্যকার কূটনৈতিক সম্পর্কের কারণেই ভারত বা পাকিস্তানের মাটিতে দ্বিপাক্ষিক সিরিজ আয়োজন সম্ভব হয়ে ওঠে না। আর তাই বহুল কাঙ্ক্ষিত এই লড়াই দেখার অপেক্ষার প্রহর গুণতে হয় সমর্থকদের।

চলমান টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে এবার গ্রুপপর্বেই ভারত-পাকিস্তান দ্বৈরথ দেখল ক্রিকেট বিশ্ব। তবে শুধু বৈশ্বিক টুর্নামেন্টের মঞ্চেই নয়, নিরপেক্ষ ভেন্যুতে প্রতি বছর তিন ম্যাচের দ্বিপাক্ষিক টি-টোয়েন্টি সিরিজ আয়োজনের পরামর্শ দিয়েছেন সাবেক ইংলিশ অধিনায়ক কেভিন পিটারসেন।

এ প্রসঙ্গে পিটারসেন বলেন, ‌'নিরপেক্ষ ভেন্যুতে প্রতি বছর পাঁচ দিনের ব্যবধান রেখে ভারত-পাকিস্তানের মধ্যে তিনটি টি-টোয়েন্টি ম্যাচ খেলা উচিত। বিজয়ী দলের স্কোয়াডের ১৫ জনের জন্য প্রাইজমানি থাকবে ১৫ মিলিয়ন ডলার। বছরে অন্তত একটা এমন সপ্তাহ চায় ক্রিকেট সংশ্লিষ্টরা।‌'

দুই দেশের ক্রিকেট বোর্ডের সম্পর্কের অবনতির কথা সবারই কমবেশি জানা। তবে পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ডের (পিসিবি) নতুন দায়িত্ব নেওয়া চেয়ারম্যান রমিজ রাজা চেষ্টা চালাচ্ছেন দুই দেশের বোর্ডের মধ্যে সম্পর্ক উন্নয়নের। এ বিষয়ে বেশ কয়েকবার তিনি আলোচনায়ও বসেছিলেন বোর্ড অব কন্ট্রোল ফর ক্রিকেট ইন ইন্ডিয়ার (বিসিসিআই) কর্মকর্তাদের সঙ্গে।

বিশ্বকাপের মঞ্চে টি-টোয়েন্টি কিংবা ওয়ানডে কোনো সংস্করণেই ভারতের বিপক্ষে জয় ছিল না পাকিস্তান দলের। তবে সেই আক্ষেপ এবার ঘুচিয়েছে বাবর আজমের দল। তাও আবার ১০ উইকেটের বড় ব্যবধানে। এমন লজ্জার হার দিয়ে অতীত বেদনার হতাশা কাটিয়েছে বাবর আজম-রিজওয়ানরা।

চলতি টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে রোববার (২৪ অক্টোবর) ভারতকে ১০ উইকেটে হারিয়ে লজ্জা দিয়েছে পাকিস্তান। ভারতের দেওয়া ১৫২ রানের লক্ষ্য উদ্বোধনী জুটিতে ১৩ বল হাতে রেখেই পেরিয়ে যায় বাবর আজমের দল।শেষ পর্যন্ত অপরাজিত থেকে পাকিস্তানের দুই ওপেনার বাবর আজম ৬৮ ও মোহাম্মদ রিজওয়ান ৭৯ রান করেন।
 


আরও পড়ুন