সাকিবের জোড়া আঘাতে ফিরল স্বস্তি

Online Desk Saju Online Desk Saju
প্রকাশিত: ০৬:৪৮ পিএম, ২৪ অক্টোবর ২০২১


বাংলাদেশের দেওয়া বড় লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে প্রথম ওভারেই দলের সেরা ব্যাটসম্যান কুশাল পেরেরাকে হারিয়েছিল শ্রীলঙ্কা। তবে এরপরই যেন আরও শক্ত হয়ে ফিরে আসে দক্ষিণ এশিয়ার দলটি।

তবে আবারো সেই ব্রেকথ্রু এনে দিলেন বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসান। আর এই উইকেটের মধ্য দিয়ে এখন টি-টোয়েন্টির বিশ্ব আসরে শহীদ আফ্রিদিকে ছাড়িয়ে সর্বোচ্চ উইকেটের মালিক তিনি। 

এক ওভারেই দুই উইকেট শিকার করে বাংলাদেশকে আবারো খেলায় ফেরালেন সাকিব। প্রথমে পাথুম নিশাঙ্কাকে আউট করেন তিনি। সাকিবের প্রথম বলটিই উড়িয়ে খেলতে গিয়ে মিডল স্টাম হারান নিশাঙ্কা। ফেরার আগে ২১ বলে ২৪ রান করেন লঙ্কান ওপেনার। ওভারের চতুর্থ বলে তিনি বোল্ড করেন আভিস্কা ফার্নান্দোকেও।

ব্যাট হাতে বড় সংগ্রহের পর বল হাতেও স্বপ্নের মতো শুরু পায় বাংলাদেশ। ইনিংসের প্রথম ওভারের চতুর্থ বলেই কুশাল পেরেরাকে ফেরান নাসুম আহমেদ। যেন আস্থার প্রতিদান দিলেন নাসুম। গ্রুপপর্বে একাদশে ঠাঁই পাননি। তবে কন্ডিশন বিবেচনায় মূলপর্বের প্রথম ম্যাচেই তাকে সুযোগ দেওয়া হয় দলে। এসেই বাজিমাত সুনামগঞ্জের হাওড়ের এই ছেলের। ফেরান লঙ্কান উদ্বোধনী ব্যাটার কুশাল পেরেরাকে। আউট হওয়ার আগে ৩ বলে ১ রান করেছেন তিনি।

কুশাল পেরেরা ফেরার পর তিন নম্বরে ব্যাট করতে আসেন বাঁ-হাতি চরিত আসালাঙ্কা। প্রথম ওভারেই ব্রেকথ্রু এনে দেওয়ার পর ইনিংসের তৃতীয় ওভারে আবারও বল হাতে আসেন নাসুম। তবে এবার দুঃস্বপ্নের মতোই কাটল তার। দুই ছয়ে দিয়েছেন ১৬ রান। আর এই ওভারের পরই হাত খুলে খেলা শুরু করেন লঙ্কান ব্যাটসম্যান।

শেষ পর্যন্ত পাওয়ারপ্লের ৬ ওভারে ১ উইকেট হারিয়ে ৫৪ রান সংগ্রহ করেছে দাসুন শানাকার দল। পাওয়ার প্লেতে বাংলাদেশের তুলনায় বেশ খানিকটা এগিয়ে থাকল লঙ্কানরা। প্রথম ৬ ওভারে ১ উইকেট হারিয়ে বাংলাদেশ তুলেছিল ৪১ রান।

এর আগে ব্যাট করতে নেমে প্রথম ওভারে মাত্র ২ রানে ইনিংস শুরুর পর দ্বিতীয় ওভারে বিনুরা ফার্নান্ডোর লেগস্টাম্পের বাইরের বলে ফ্লিক করতে ভুল করেননি লিটন দাস। দ্বিতীয় ওভারে বাংলাদেশ পেয়েছে প্রথম বাউন্ডারি। এরপর তৃতীয় ওভারে ১২ রান সংগ্রহ করেছে দুই উদ্বোধনী ব্যাটার। টানা দুটি ফ্রন্টফুটের নো-বল করেছেন দুষ্মন্ত চামিরা। দুটি ফ্রি-হিটই ব্লকহোলে করার চেষ্টা করেছেন। প্রথমটিতে নাঈমের তেমন টাইমিং হয়নি, হয়েছে ২ রান। পরেরটিতে অবশ্য চার মেরেছেন নাঈম।

ওমানের বিপক্ষে দারুণ খেলা নাঈম শেখের হাত ধরেই এদিন বাংলাদেশের ওপেনিং জুটি পৌঁছে যায় ২৯ রানে। সর্বশেষ ৭ ম্যাচে ওপেনিংয়ে বাংলাদেশের সর্বোচ্চ রান আসে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে। এর আগে ঘরের মাঠে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে দ্বিতীয় টি-টোয়েন্টিতে উঠেছিল ৫৯ রান। বিশ্বকাপের গ্রুপ পর্বের তিন ম্যাচে ওপেনিং জুটিতে উঠেছিল ৮, ১১ ও ০ রান।

তবে ভালো শুরুর পর ইনিংসের ষষ্ঠ ওভারে চামিরার বলে কাটা পড়েন লিটন দাস। লাহিরু কুমারার বলে দাসুন শানাকার হাতে ক্যাচ দিয়ে সাজঘরে ফেরার আগে করেছেন ১৬ বলে ১৬ রান। দলীয় ৪০ রানের মাথায় প্রথম উইকেট পড়লে মাহমুদউল্লাহ বাহিনীর।

ড্রেসিংরুমে ফিরে যাওয়ার আগে লিটন বিতণ্ডায় জড়ান বোলার লাহিরু কুমারার সঙ্গে। যদিও লিটনকে আউট করার পর কুমারাকেই শুরুতে এগিয়ে গিয়ে কিছু একটা বলতে দেখা গেছে। লিটন শুধু সেটির জবাব দিয়েছেন। শ্রীলঙ্কার অন্য খেলোয়াড়, নাঈম ও আম্পায়াররা এসে শান্ত করেছেন দুজনকে। নিশ্চিতভাবেই ম্যাচ রেফারির খাতায় উঠেছে দুজনের নাম।

অন্যদিকে, লিটনের পর ব্যাট করতে নেমে থিতু হওয়ার আগেই ফিরলেন গ্রুপপর্বের দুই জয়ের নায়ক সাকিব আল হাসান। চামিকা করুনারত্নে পেয়েছেন বাংলাদেশ ইনিংসের সবচেয়ে বড় উইকেটটা। ৭ বলে দুই চারের সাহায্যে ১০ রান করে আউট হয়ে গেছেন সাকিব। বাংলাদেশ দ্বিতীয় উইকেট হারায় ৫৬ রানে।

টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের এবারের আসরে এ পর্যন্ত তিনটি ফিফটি বাংলাদেশের। এর মধ্যে দুটির পাশেই লেখা আছে একজনের নাম। নাঈম শেখ। প্রথমটি ছিল গ্রুপপর্বের ম্যাচে ওমানের বিপক্ষে। আর সবশেষটি সুপার টুয়েলভের প্রথম লড়াইয়ে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে।
 


আরও পড়ুন