দায়িত্ব ছাড়ার বিষয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত জানালেন কোহলি

Online Desk Saju Online Desk Saju
প্রকাশিত: ০৭:১৫ পিএম, ১৬ সেপ্টেম্বর ২০২১

টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের পর ভারত দলের এই ফরম্যাটে অধিনায়কত্ব ছাড়বেন বিরাট কোহলি। অন্য দুই ফরম্যাটে ঠিকই নেতৃত্ব দিয়ে যাবেন তিনি। বৃহস্পতিবার (১৬ সেপ্টেম্বর) এক টুইটে এ কথা বলেন ভারত ক্যাপ্টেন।

টুইটে কোহলি বলেন, অনেক ভেবে-চিন্তে সিদ্ধান্ত নিয়েছেন তিনি। সংযুক্ত আরব আমিরাতে অনুষ্ঠিতব্য টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের পর সংক্ষিপ্ত ফরম্যাটে তিনি আর নেতৃত্ব দিতে চান না। বরং ব্যাটিংয়ে মনযোগ দিতে চান তিনি। 

কোহলির ভাষ্য, 'আমার চাপের কথা ভেবে দেখলাম, তিন ফরম্যাটে খেলা আবার অধিনায়কত্ব, গত ৪-৫ বছর ধরে আমার জন্য একটু বেশি খাটুনি যাচ্ছে। সব সময়ই আমি দলকে সেরা দিয়ে এসেছি, দেওয়ার চেষ্টা করেছি। এখন মনে হচ্ছে আমার একটু বিরতি দরকার। তাই বিশ্বকাপের পর থেকে টি-টোয়েন্টিতে আমি আর ভারতকে নেতৃত্ব দেব না। ব্যাটসম্যান হিসেবে দলের সঙ্গে থাকব।'

ভারত অধিনায়ক যোগ করেন, 'হ্যাঁ, আমি অনেক চিন্তা-ভাবনা করার পর এই সিদ্ধান্ত নিয়েছি, অনেকের সঙ্গে আলাপ করার পর। রবি ভাইয়ের সঙ্গে কথা বলেছি, রোহিতের সঙ্গে আলাপ হয়েছে। আমার সিদ্ধান্ত চূড়ান্ত, আমি টি-টোয়েন্টিতে আর অধিনায়কত্ব করব না।'
 
বিগত কয়েক দিন ধরে গণমাধ্যমে গুঞ্জন ভেসে বেড়াচ্ছে- বিরাট কোহলি নাকি নেতৃত্ব ছাড়বেন। সেটি যে এত দ্রুত ঘটে যাবে তা কে জানত! তবে সেই গুঞ্জনে বলা হচ্ছিল সাদা বলের ক্রিকেটের নেতৃত্ব থেকেই সরে দাঁড়াবেন তিনি। ওয়ানডে ও টি-টোয়েন্টি ফরম্যাটের নেতৃত্ব তুলে দেওয়া হবে রোহিত শর্মার কাঁধে। 

কোহলির বয়স এখন ৩২ বছর। তার যা ফিটনেস তাতে করে অনায়াসে তিনি আরও পাঁচ-ছয় বছর ক্রিকেট খেলতে পারবেন। অধিনায়কত্ব ছাড়ায় এখন আরও বেশি করে ব্যাটিংয়ে মনোযোগ দিতে পারবেন তিনি।

কোহলি এখন পর্যন্ত ভারতকে ৪৫টি টি-টোয়েন্টি ম্যাচে নেতৃত্ব দিয়েছেন। এর মধ্যে ভারত ২৭ বার জিতেছে ও ১৪ বার হেরেছে। অন্যদিকে, রোহিত স্ট্যান্ড-ইন ক্যাপ্টেন হিসেবে ভারতকে ১০ বার ওয়ানডে ফরম্যাটে নেতৃত্ব দিয়েছেন। জিতেছেন আটবার। হারতে হয়েছে দু’বার। আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টি ম্যাচে হিটম্যানের অধিনায়কত্বে ভারত ১৯ ম্যাচের মধ্যে ১৫ ম্যাচেই জিতেছে। হেরেছে চারবার। রোহিতের অনুরাগীরা এখন তাকে পাকাপাকি অধিনায়ক হিসেবে দেখার জন্য মুখিয়ে আছেন।

এদিকে, কোহলি এবং রোহিতের মধ্যে যে সম্পর্ক মধুর নয়, এ কথা বহুচর্চিত। কিন্তু গত কয়েক মাসে নাকি দু’জনের বন্ধুত্ব যথেষ্ট গাঢ় হয়েছে। দায়িত্ব ছেড়ে দেওয়ার আগে কোহলি নিজের লক্ষ্য এবং দলের ভবিষ্যতের ব্যাপারে একটা সুস্পষ্ট অভিমুখ ঠিক করে দিয়ে যেতে চান।


আরও পড়ুন